কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

১১ জনপ্রতিনিধিকে বরখাস্তের প্রস্তাব

প্রকাশিত : ৬ মার্চ ২০১৫
  • দিনাজপুরে সহিংসতার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর ॥ ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও পরবর্তী সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২ জন উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১১ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে ২১টি মামলায় পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দায়ের করায় তাঁদের বরখাস্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে।

দিনাজপুরের স্থানীয় সরকার বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, ৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও পরবর্তী সময়ে সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে নির্বাচিত দিনাজপুরের ২ জন উপজেলা চেয়ারম্যান, ২ জন ভাইস চেয়ারম্যান, ৪ জন ইউপি চেয়ারম্যান এবং ৩ জন ইউপি মেম্বারকে বরখাস্ত করার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে। ১১ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি জামায়াত ও বিএনপি’র নেতা। এদের সকলের বিরুদ্ধে পুলিশ মামলা তদন্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র পেশ করেছেন।

জানা যায়, জেলা জামায়াতের সাবেক আমির চিরিরবন্দর উপজেলা চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দীন মোল্লার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয় ২০১৪ সালের ৭ মে। ঘোড়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি শাহ মোঃ শামীম হোসেন চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিস্ফোরক আইনে মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয় গত বছরের ১৪ আগস্ট। চেহেলগাজী ইউপি চেয়ারম্যান ও দিনাজপুর সদর উপজেলা বিএনপি’র নেতা আনিসুর রহমান বাদশার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় দায়েরকৃত ৩টি মামলার মধ্যে ১টিতে অভিযোগপত্র পেশ করা হয়। অপর ২টি মামলা সিআইডি তদন্ত করছেন। খানসামা উপজেলা জামায়াতের আমির ও ভেড়ভেড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল হক সিরাজীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় অভিযোগপত্র পেশ করা হয়েছে। চিরিরবন্দর উপজেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক ও নশরতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরে আলম সিদ্দিকী নয়নের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দায়েরকৃত মামলায় ২০১৪ সালের ৭ মে আদালতে অভিযোগপত্র পেশ করা হয়। পার্বতীপুর উপজেলার বিএনপি নেতা রামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ শাহাদৎ হোসেন সাদোর বিরুদ্ধে দ-বিধি আইনে দায়েরকৃত মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয় ২০১৪ সালের ২১ নভেম্বর।

কাহারোল উপজেলা জামায়াতের আমির ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল করিম মাস্টারের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ২টি মামলায় অভিযোগপত্র দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে আইনশৃঙ্খলা বিঘœকারী অপরাধ দ্রুত বিচারে ১টি ও দ-বিধি আইনে অপর মামলাটি দায়ের করা হয়। ঘোড়াঘাট উপজেলা জামায়াতের আমির ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন আলমের বিরুদ্ধে ৮টি মামলা দায়ের করা হয়। সব ক’টি মামলা বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা হয়। ৮টির মধ্যে ৪টি মামলার অভিযোগপত্র ২০১৪ সালের ২৯ ডিসেম্বর, ১৭ নবেম্বর, ২৭ আগস্ট ও ২৪ আগস্ট আদালতে পেশ করা হয়। বাকি ৪টি মামলা পুলিশী তদন্তে রয়েছে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার বিএনপি নেতা মোঃ নাজির হোসেন এবং ঘোড়াঘাট উপজেলার বুলাকীপুর ইউনিয়নের বিএনপি নেতা ওয়ার্ড মেম্বার মাহফুজুর রহমান লাভলু এবং একই ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার বিএনপি নেতা মোঃ সাইফুল ইসলামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ৩টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে নাজির হোসেনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হলেও লাভলু ও সাইফুলের মামলা তদন্তাধীন রয়েছে।

প্রকাশিত : ৬ মার্চ ২০১৫

০৬/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: