কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

আট বছর বিদ্যুতের অপেক্ষা

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪
  • বায়ু বিদ্যুতের মুলা ঝুলিয়ে কুতুবদিয়ায় সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়

এইচএম এরশাদ, কক্সবাজার ॥ কক্সবাজারে কুতুবদিয়ায় দীর্ঘ ১৮ মাস বিদ্যুত সরবরাহ বন্ধ থাকার পর অবশেষে পিডিবি কর্তৃপক্ষ মাত্র ২শ’ কেভিএ শক্তিসম্পন্ন আরও একটি পুরাতন জেনারেটর স্থাপন করেছে। শুক্রবার থেকে অফিস পাড়ায় পরীক্ষামূলকভাবে বিদ্যুত সরবরাহ করছে তারা। ওই দ্বীপে স্থাপিত স্বপ্নের বায়ু বিদ্যুতের মাধ্যমে গত আট বছরেও আলোর মুখ দেখতে পারছেন না অসংখ্য গ্রাহক। প্যান এশিয়া পাওয়ার সার্ভিসেস (বায়ুবিদ্যুত) লিমিটেড ওই প্রকল্পে সরকার থেকে কোটি কোটি টাকার লোন নিয়ে কুতুবদিয়ার বিদ্যুত গ্রাহকদের সঙ্গে এক রকমের প্রতারণা করে চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে। বায়ু বিদ্যুত প্রকল্পটি ২০০৬ সালে স্থাপনের পর থেকে অকার্যকর অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ইতোমধ্যে সংস্কারের নামে মাঝে-মধ্যে নাড়াছাড়া করে বিদ্যুত সরবরাহের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে থাকে বলে স্থানীয়ের অভিযোগ। ৫০০ কেভিএ উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন ক্যামিন্সসহ ৩টি ইঞ্জিন সম্পূর্ণ অকেজো অবস্থায় পড়ে রয়েছে স্থানীয় বিদ্যুত ভবনে। এ অবস্থায় ‘ডেল’ নামের মাত্র ১৩০ কিলোওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন আরও একটি পুরাতন ইঞ্জিন বসিয়ে কুতুবদিয়াবাসীর ‘কাটা ঘায়ে নুন ছিটা’ অবস্থা করে দিয়েছে বলে অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন।

কুতুবদিয়ায় বায়ু, সোলার ও জেনারেটর সিস্টেমের বিদ্যুত লুকোচুরি আর সরকারী অর্থ লোপাটের ফাঁদ বলে ক্ষোভ প্রকাশ করে সচেতন মহল বলেন, বাঁশখালীর ছনুয়া থেকে দ্বীপের উত্তর ধূরুং এলাকা হয়ে (মাত্র এক কি. মিটার কুতুবদিয়া চ্যানেল) সাবমেরিন কেবলের সাহায্যে কম খরচে জাতীয় গ্রীডলাইন বিদ্যুতায়ন করা যেতে পারে। এদিকে অচল ক্যামিন্স ইঞ্জিন মেরামত ও লাইন সংস্কার প্রক্রিয়াধীন দাবি করে আগামী এক মাসের মধ্যে বায়ু বিদ্যুত সরবরাহ হবে বলে ফের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন আবাসিক প্রকৌশলী মোঃ নুরুল আমিন।

জানা গেছে, বিদ্যুত সমস্যায় কুতুবদিয়ার মানুষ হতাশা ভুগছে। বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি), বেসরকারী দুটি কোম্পানি প্যান এশিয়া পাওয়ার সার্ভিসেস (বায়ু বিদ্যুত) লিমিটেড ও গ্রীন হাউজিং এ্যান্ড এনার্জি লিমিটেড গত অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে বিদ্যুত সরবরাহের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে লাপাত্তা হয়ে গেছে। তাদের ঐ প্রতারণাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে দ্বীপজুড়ে। সমন্বয় ছাড়া নি¤œমানের মালামাল ব্যবহার করায় বায়ু বিদ্যুতের নিশ্চয়তা নিতে পারছে না বলে জানিয়েছেন পিডিবি কক্সবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান। শেষ পর্যন্ত ২০০ কিলোওয়াট শক্তিসম্পন্ন একটি জেনারেটর স্থাপন করেন তিনি। ৫০টি টারবাইন, ১০টি ইনভেটরের সাহায্যে দেড় হাজার কিলোওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন উইং ব্যাটারি চালিত বায়ু বিদ্যুত প্যান এশিয়া পাওয়ার সার্ভিসেস লিমিটেড ও ১শ’ কিলোওয়াট মিনিগ্রীড পাওয়ার স্টেশন সোলার চালিত গ্রীন হাউজিং এ্যান্ড এনার্জি লিমিটেড বিদ্যুতের কাজ করছে কুতুবদিয়ায়। বিদ্যুত সমস্যার কারণে যুগের পর যুগ অন্ধকারে থাকায় উন্নয়নে মারাত্মক পিছিয়ে রয়েছে সম্ভাবনাময় এ দ্বীপটি। বায়ু, সোলার ও জেনারেটর সিস্টেম বিদ্যুতের কথা বলে বার বার জাতীয় গ্রীডলাইনের বিদ্যুত সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে দ্বীপবাসীকে। তাই দ্বীপবাসী এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪

১৭/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: