কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ধূমপান একটি বদ অভ্যাস

প্রকাশিত : ৪ এপ্রিল ২০১৫

বাংলাতে একটা প্রবাদ আছে, ‘বিয়ে করলে হয় সংসার আর বিড়ি (তামাকজাতপণ্য অর্থাৎ ধূমপান) খাইলে হয় ক্যান্সার।’ অবশ্য যাঁরা ধূমপান করেন না অর্থাৎ খান না তাঁরাও আজকাল ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন। ধূমপায়ীদের পরোক্ষ প্রভাবটা পড়ে অধূমপায়ীদের ওপর। ক্যান্সার ছাড়াও যক্ষ্মা, হুপিং কাশির মতো মারাত্মক রোগসমূহ ধূমপানের কারণেই সাধারণত হয়ে থাকে। মানুষ এসব জেনেও প্রতিনিয়ত বিষপান করছে।

এক জরিপে জানা যায়, বাংলাদেশের প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে শতকরা ৪৫ ভাগ মানুষ পাবলিক প্লেসে ধূমপানের শিকার হচ্ছে। এর মধ্যে শতকরা ৬৯ ভাগ পুরুষ আর শতকরা ২০ দশমিক ৮ ভাগ নারী। হোটেল বা রেস্তরাঁগুলোতে পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয় শতকরা ২৭ দশমিক ছয় ভাগ মানুষ। এছাড়া কর্মক্ষেত্রে আবদ্ধ পরিবেশে শতকরা ৬৩ ভাগ মানুষ পরোক্ষ ধূমপানের শিকার হয়।

বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা বলেন, পরোক্ষ ধূমপানের কারণে গর্ভবতী মায়েদের গর্ভের সন্তানের ওজন কমে যায়। দুর্বল ফুসফুস নিয়ে শিশু জন্মের ঝুঁকি থাকে। এছাড়া গর্ভজাত শিশুর হঠাৎ মৃত্যুও হতে পারে।

বাংলাদেশ সরকার তামাক ও তামাকজাতদ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০০৫ (সংশোধিত-২০১৩) অনুযায়ী পাবলিক প্লেস অর্থাৎ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সরকারি-আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত অফিস, গ্রন্থাগার, লিফট আচ্ছাদিত কর্মক্ষেত্র, হাসপাতাল ও ক্লিনিক ভবন, আদালত ভবন, বিমান-নৌ-রেল-সমুদ্রবন্দর ভবন, বাস ট্রার্মিনাল ভবন, প্রেক্ষাগৃহ, প্রর্দশনী কেন্দ্র, থিয়েটার হল, বিপণিবিতান ভবন, রেস্টুরেন্ট, পাবলিক টয়লেট, যাত্রী ছাউনী, শিশু পার্ক, মেলা, সরকারী প্রজ্ঞাপন দ্বারা নির্ধারিত স্থান এবং পাবলিক প্লেস বলতে মোটরগাড়ি, বাস, রেল, জাহাজ, লঞ্চসহ সব প্রকার যান্ত্রিক যানবাহন, উড়োজাহাজ এবং সরকারের গেজেট প্রকাশের মাধ্যমে নির্দিষ্ট বা অন্য যে কোন যানবাহনে ধূমপান শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

তামাক চাষ শুধু খাদ্য নিরাপত্তার জন্যই হুমকি নয়, এই বিষাক্ত বৃক্ষ চাষ, উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং বিপণন সর্বক্ষেত্রেই ক্ষতিগ্রস্ত করছে সংশ্লিষ্ট মানুষদের। এছাড়াও রাসায়নিক দ্রব্যের প্রভাবে জনগণ, বনভূমি, উদ্ভিদ, পানি, জলজ ও স্থলজপ্রাণী, পরিবেশ মারত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। তামাক চাষীরা এবং তাদের পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে। তাই সরকারের উচিত এই মুহূর্তে তামাক চাষের ওপর নিয়ন্ত্রণ আরও বৃদ্ধি করা।

আবুল খায়ের ভূঁইয়া

হাজীপাড়া, ঢাকা

শযধুধৎ১৫নযঁরুধ@মসধরষ.পড়স

প্রকাশিত : ৪ এপ্রিল ২০১৫

০৪/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: