রবিবার ৪ আশ্বিন ১৪২৭, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

বেনাপোল দিয়ে পণ্য আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আদায় কমে যাচ্ছে

স্টাফ রিপোর্টার, বেনাপোল ॥ বেনাপোল বন্দর দিয়ে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসের তুলনায় চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) ৩ লাখ ৭৬ মেট্রিক টন বেশি পণ্য আমদানি হয়েছে। চলতি অর্থবছরের ১০ মাসে আমদানি হয়েছে ১৪ লাখ ৪১ হাজার মেট্রিক টন। আর ২০১৬-১৭ অর্থবছরের ১০ মাসে আমদানি হয়েছিল ১০ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন। এসময় বেনাপোলে রাজস্ব আদায় কমেছে। প্রথম ১০ মাসে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৬৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সেখানে আদায় হয়েছে ৩৩৯ কোটি ৩ লাখ ২৯ হাজার টাকা। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৯ কোটি ৭৫ লাখ টাকা কম আদায় হয়েছে।

কাস্টম কর্তৃপক্ষ বলছেন, চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে উচ্চ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে গেছে। শুল্কমুক্ত পণ্য ও কম শুল্কযুক্ত পণ্য বেশি আমদানি হওয়ার কারণে আমদানির পরিমাণ বাড়লেও রাজস্ব আদায় হচ্ছেনা।

বেনাপোল কাস্টমস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের জুলাই মাসে আমদানি হয়েছে এক লাখ ৪ হাজার ৪৯৩ দশমিক ৬৪ মেট্রিক টন, আগস্টে আমদানি হয়েছে এক লাখ ২১ হাজার ১৩৫ দশমিক ৮৯ মেট্রিক টন, সেপ্টেম্বর মাসে আমদানি হয়েছে এক লাখ ২৫ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন, অক্টোবর মাসে আমদানি হয়েছে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৬০৮ দশমিক ৮৫ মেট্রিক টন, নবেম্বর মাসে ১ লাখ ৩৭ হাজার ৩০৪ দশমিক ৮৭ মেট্রিক টন, ডিসেম্বর মাসে এক লাখ ৩৭ হাজার ৩০৪ দশমিক ৮৪ মেট্রিক টন এবং জানুয়ারি মাসে আমদানি হয়েছে এক লাখ ৬২ হাজার ১১৪ দশমিক ৬১ মেট্রিক টন পণ্য। ফেরুয়ারি মাসে ১ লাখ ২৬ হাজার ১৪ মেট্রিক টন, মার্চ মাসে আমদানি হয়েছে ১ লাখ ২৭ হাজার ২৯ দশমিক ৬১ মেট্রিক টন, এপ্রিল মাসে আমদানি করা হয়েছে এক লাখ লাখ ১১ হাজার ৮৯৯ দশমিক ৯১ মেট্রিক টন পণ্য।

বেনাপোল সিএ্যান্ডএফ এজেন্ট এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, কম শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি হলে রাজস্ব কমবে এটা স্বাভাবিক। কাস্টমের জটিলতার কারণে মোটরপার্টসসহ শুল্কযুক্ত পণ্য আমদানি কমে গেছে। যে কারণে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব কমে যাচ্ছে।

যশোরের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান আল আমিন গ্রুপের পরিচালক আনিসুর রহমান খান হিরু জানান, দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোল। অথচ এই বন্দরের কোন উন্নয়ন নেই। তার ওপর কাস্টম চলতি বছর থেকে অতিরিক্ত শুল্কহার নির্ধারণ করেছে। যাতে বেশির ভাগ ব্যবসায়ী আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। আবার পণ্য এনে বন্দরে সময় ক্ষেপণেও ব্যবসায়ীরা ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। যশোর-বেনাপোল সড়ক ৩৮ কিলোমিটারের পুরোটাই ভাঙ্গা, এতে পণ্য পরিবহনে বেশি টাকা লাগছে ট্রাক ভাড়ায়। সব মিলিয়ে বেনাপোল ব্যবসায়ীদের জন্য অনুকূল পরিবেশ না থাকায় অনেক ব্যবসায়ী অন্য বন্দরে চলে যাচ্ছেন। যেকারণে এখানে রাজস্ব আদায় কমে গেছে।

এ বিষয়ে বেনাপোল কাস্টম হাউসের কমিশনার বেলাল হোসেন চৌধুরী জানান, আমাদের উচ্চ শুল্কযুক্ত পণ্যে আমদানি কমে গেছে। কম শুল্কযুক্ত পণ্য বেশি আসছে। এখন খাদ্যপণ্য বেশি আসছে। এতে শুল্ক খুবই কম। চালে মাত্র ২ শতাংশ শুল্ক। যে কারণে আমদানি বাড়লেও রাজস্ব আদায় কমেছে। এটা আগামী মাসগুলোতে ঠিক হয়ে যাবে।

শীর্ষ সংবাদ:
নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে কল কারখানা নয়         তিন বন্দর দিয়ে ভারতে আটকে থাকা পেঁয়াজ আসা শুরু         দুর্নীতির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান অব্যাহত রয়েছে ॥ কাদের         কওমি বড় হুজুর আল্লামা শফীকে চিরবিদায়         ওষুধ খাতের ব্যবসা রমরমা         করোনার নমুনা পরীক্ষা ১৮ লাখ ছাড়িয়েছে         করোনা সংক্রমণ বাড়ছে ॥ ফের লকডাউনে যাচ্ছে ইউরোপ         বিশেষ মহলের ইন্ধন-ভাসানচরে যাবে না রোহিঙ্গারা         তুলা উৎপাদনে গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার         দগ্ধ আরও দুজনের মৃত্যু, তিতাসের গ্রেফতার ৮ জন দুদিনের রিমান্ডে         শিক্ষার ক্ষতি পোষাতে বিশেষ প্রকল্প আগামী মাস থেকেই ॥ করোনায় সব লণ্ডভণ্ড         আর কোন জিকে শামীম নয় ॥ গণপূর্তের দৃশ্যপট পাল্টেছে         ব্যক্তিগত ও পারিবারিক দ্বন্দ্বই অধিকাংশ খুনের কারণ         এ্যাটর্নি জেনারেলের অবস্থার উন্নতি         বর্তমান সরকারের আমলে রেলপথে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে : রেলপথমন্ত্রী         ইউএনও ওয়াহিদা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বদলী, স্বামী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে         সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল পরিচালকের রুম ঘেরাও         চিরনিদ্রায় শায়িত হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফী         সবচেয়ে কঠিন সময় পার করছি ॥ মির্জা ফখরুল         করোনা ভাইরাস ॥ ভারতে একদিনে ১২৪৭ জনের মৃত্যু