মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

মোদির ঢাকা সফরে ‘কাউন্টার টেরর এগ্রিমেন্ট’ হবে

প্রকাশিত : ২ জুন ২০১৫

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন ঢাকা সফরে নারী ও শিশু পাচার রোধে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। এছাড়া জালনোট প্রতিরোধ ও সন্ত্রাস দমনে দুই দেশের মধ্যে ‘কাউন্টার টেরর এগ্রিমেন্টও’ সম্পাদিত হবে। ভারতের পক্ষে ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এনআইএ) এবং বাংলাদেশের পক্ষে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করবে। এর ফলে জালনোট সংক্রান্ত যাবতীয় কাগজপত্র বিনিময় করবে দুই দেশের গোয়েন্দারা। একই সঙ্গে সন্ত্রাস দমনের তথ্যও বিনিময়ের মধ্যদিয়ে পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়টি প্রাধান্য পাবে এই চুক্তিতে। এর সঙ্গে দুই দেশের উপকূলবর্তী এলাকায় অপরাধ দমনেরও চূড়ান্ত পরিকল্পনা গ্রহণ করবেন দুই দেশের কর্মকর্তারা।

পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের প্রত্যক্ষ মদদে ছাপানো ভারতীয় জালনোট আকাশপথে করাচী ও দুবাই হয়ে সরাসরি ঢাকায় পাঠানো হয়। পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পিআইএ) ও কাতার এয়ারলাইন্সের বিমানে ‘ডিপ্লোমেটিক ট্যাগ’ লাগানো ব্যাগে তা আসে ঢাকায়। এরপর আইএসআই তাদের স্থানীয় এজেন্ট এবং জামায়াত-উল-মুজাহিদীন জঙ্গীদের সাহায্যে তা মালদহ-মুর্শিদাবাদ সীমান্ত দিয়ে ছড়িয়ে দেয় ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে।

জঙ্গী সংগঠন জেএমবি দুই দেশের সীমান্তবর্তী এলাকার যুবকদের জিহাদে নিযুক্ত করার জন্য ‘রিক্রুটমেন্ট ড্রাইভ’ শুরু করেছে। মূলত ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গী সংগঠনে নিয়োগ করার জন্যই জামায়াত-উল-মুজাহিদীনের এই তৎপরতা। ভারতীয় গোয়েন্দারা জেনেছে, গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে আইএস জঙ্গীদের একটি প্রতিনিধি দল গোপনে চট্টগ্রামে এসেছিল। সেখানে জামায়াত-উল-মুজাহিদীন ও অপর জঙ্গী সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সঙ্গে বৈঠক করে। সেখানে সিদ্ধান্ত হয়, বাংলাদেশ ও ভারতের জিহাদী মনোভাবাপন্ন যুবকদের মগজ ধোলাই করে ভেড়াতে হবে আইএস শিবিরে। মোদির ঢাকা সফরে এ বিষয়গুলোও আলোচনায় থাকবে বলে জানা গেছে।

প্রকাশিত : ২ জুন ২০১৫

০২/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: