মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জামিন পাননি মির্জা আব্বাস, হাইকোর্টে বিভক্ত রায়

প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নাশকতার দুই মামলায় ঢাকা দক্ষিণে বিএনপি সমর্থিত মেয়রপ্রার্থী মির্জা আব্বাসের জামিন আবেদনে বিভক্ত আদেশ দিয়েছে হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ। বুধবার বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়। বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মির্জা আব্বাসকে তিন সপ্তাহের জামিন দিলেও অপর বিচারপতি জামিন আবেদনটি খারিজ দিয়ে আব্বাসকে অবিলম্বে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন। এছাড়া দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা পৃথক এক মামলায় মির্জা আব্বাসের দায়ের করা জামিন আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছে হাইকোর্টের একই বেঞ্চ।

আদালতে মির্জা আব্বাসের পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার মাহবুব হোসেন ও এ জে মোহাম্মদ আলী। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। মোট তিন মামলায় আগাম জামিনের আবেদন নিয়ে সোমবার হাইকোর্টে আসেন মির্জা আব্বাস। বুধবারের আদেশের পর আসামিপক্ষ দাবি করেছে, জামিনের বিষয়টির নিষ্পত্তি না হওয়ায় আপাতত মির্জা আব্বাসকে গ্রেফতার করা যাবে না। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষ বলছে, তাঁকে গ্রেফতারে এখন আইনগত কোন বাধা নেই।

নিয়ম অনুযায়ী, বিষয়টি এখন প্রধান বিচারপতির কাছে যাবে। প্রধান বিচারপতি জামিন আবেদন নিষ্পত্তির জন্য অন্য একটি বেঞ্চ ঠিক করে দেবেন। ফলে মির্জা আব্বাসকে সে পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। উল্লেখ্য, মির্জা আব্বাস গত তিন মাস আত্মগোপনে থাকার পর জামিন চাইতে সোমবার প্রকাশ্যে আসেন।

আদেশের পর সুপ্রীমকোর্ট বারের সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেনের কক্ষে বিএনপির মহানগর আহ্বায়ক আব্বাস সাংবাদিকদের বলেন, জামিন না হওয়ায় এখন তাঁকে হয়রানি করা হতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা করছেন। তবে সবার কাছে দোয়া ও ভোট চেয়ে ঢাকা দক্ষিণের এই মেয়রপ্রার্থী বলেছেন, তিনি বাসায় যাবেন। নির্বাচনী প্রচারেও অংশ নেবেন।

আদেশের পর এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সাংবাদিকদের বলেন, এখন মির্জা আব্বাসকে গ্রেফতার করতে আইনগত কোন বাধা নেই। তিনি বলেন, আদালত জামিন বিষয়ে বিভক্ত আদেশ দিয়েছে, তাই এটি আদালতের আদেশ নয়। তৃতীয় বেঞ্চ যে আদেশ দেবে সেটিই চূড়ান্ত। ততদিন পর্যন্ত মির্জা আব্বাস গ্রেফতার হবেন কিনা, তা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর নির্ভর করবে। তিনি বলেন, পুলিশের দায়ের করা দুই মামলায় আদেশ না হওয়া পর্যন্ত তিনি আইনের দৃষ্টিতে পলাতক। তাই আমার মতে, তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন না।

অন্যদিকে, মির্জা আব্বাসের আইনজীবী ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন সাংবাদিকদের বলেন, আদালতে বিষয়টি নিষ্পত্তি হওয়ার আগ পর্যন্ত মির্জা আব্বাসকে পুলিশ গ্রেফতার বা হয়রানি করতে পারবে না।

এরমধ্যে ২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর পল্টন থানায় দায়ের করা মামলায় বাসে অগ্নিসংযোগ ও বিস্ফোরণের অভিযোগ রয়েছে। আর চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি মতিঝিল থানার মামলাটি করা হয়েছে বিস্ফোরক আইনে। এছাড়া প্লট বরাদ্দে দুর্নীতির অভিযোগে গত বছরের ৬ মার্চ শাহবাগ থানায় দুদকের দায়ের করা আরেক মামলার এজাহারে আব্বাসের নাম না থাকলেও গ্রেফতারের আশঙ্কায় জামিনের আবেদন করেন আব্বাস। ওই দিন দু’পক্ষের বক্তব্য শুনে নাশকতার দুই মামলায় আদেশের জন্য বুধবার দিন রাখে আদালত। আর অন্য মামলাটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দেয়ার কথা মৌখিকভাবে জানানো হয়।

প্রকাশিত : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

১৬/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: