মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সৈয়দ বদরুদ্দীন নাট্যোৎসব- দ্বিতীয় দিনে দুটি ভারতীয় নাটক

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চৈত্রের মেঘলা বিকেল। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার প্রধান ফটকে শোভা পাচ্ছে ফুলে ফুলে সুসজ্জিত পদাতিক নাট্যসংসদের আজীবন সভাপতি ভাষা সৈনিক প্রয়াত সৈয়দ বদরুদ্দীন হোসাইনের প্রতিকৃতি। মাইকে ভেসে আসছে দেশজ গানের সুর। নাট্যশালা চত্বরে গিয়ে দেখা যায় শিল্পীরা দেশীয় বাদ্যযন্ত্রের সাহায্যে গাইছেন ‘যেইখানে সাঁই বারামখানা’, ‘থাকতে যদি না পাই তোমায়’, ‘বন্ধু তোর লাগিয়া রে’, ‘বাড়ির পাশে মধুমতি’সহ বাঙালীর শিকড়ের গান। পুরো নাট্যশালায় ছিল জন্মদিদের উৎসবের আমেজ। ‘মুক্ত করো মানবতা’ সেøাগানে পদাতিক নাট্যসংসদ আয়োজিত সৈয়দ বদরুদ্দীন হোসাইন স্মৃতি নাট্যোৎসবের বুধবার ছিল দ্বিতীয় দিন। নাট্যশালার দুটি মিলনায়তে এদিন সন্ধ্যায় ভারতের দুটি নাট্যদলের নাটক মঞ্চস্থ হয়। প্রধান মিলনায়তনে রঙ্গকর্মী নাট্যদলের প্রযোজনায় মঞ্চস্থ হয় নাটক ‘রোজানা’। নাটকটিতে ভারতের প্রখ্যাত অভিনেত্রী উষা গাঙ্গুলীর একক অভিনয়ে মুগ্ধ হয় দর্শক। তাঁর অভিনয়শৈলী পিনপতন নীরবতায় দর্শক উপভোগ করে। হিন্দী ভাষার এ নাটকটির নির্দেশনাও তাঁর নিজের। এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে একই সময়ে মঞ্চস্থ হয় কলকাতার অপর দল অনীকের প্রযোজনায় নাটক ‘একুশের গল্প’। নাটকটি রচনা করেছেন অমলেশ চক্রবর্তী এবং নির্দেশনা দিয়েছেন মলয় বিশ্বাস। যার শুরুটা হলো মেসোপটেমিয়ায় পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন সভ্যতার ধ্বংসের মধ্যদিয়ে। অমানবিক এক যুদ্ধ চাপিয়ে ইরাকে হত্যা করা হলো নারী, শিশুসহ লাখ লাখ মানুষকে- শুধুমাত্র তেলের দখল নেয়ার জন্য। ধর্মের নামে গুজরাটে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালিয়ে হাজার হাজার মানুষকে কুরবানি দেয়া হলো শুধুমাত্র নির্বাচনে জেতার জন্য। একুশ শতক, যে শতক দেখছে পৃথিবীতে বর্ণে বর্ণে, ধর্মে ধর্মে হানাহানি। এক ধর্ম অপর এক ধর্মকে, এক জাতিরাষ্ট্র অপর এক জাতিরাষ্ট্রকে, প্রতিবেশী প্রতিবেশীকে, ভাই ভাইকে ঘৃণা করে। শুধু ঘৃণা-দ্বেষ-হিংসা! যে শতকে ঘৃণা ছাড়া বোধহয় স্বাধীনতাও বাঁচে না। তাই স্বাধীনতা বিপন্ন করার ব্যবসাই এখন সবচেয়ে জমজমাট, লাভজনক। একুশ শতক- বিচ্ছিন্ন হওয়ার শতক। যৌথ পরিবার ভাঙতে ভাঙতে এখন পরিবারের সংজ্ঞাই গেছে বদলে। নিজের নিজের চৌহদ্দিতে শুধু ব্যক্তিগত অহমিকাকে পূরণ করতে গিয়ে সমাজ ও পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে মানুষ। একুশ! একুশের যৌবন! একুশের যন্ত্রণা! এখন আর কবি লেখেন না- এ পৃথিবীর বুকে একুশ আসুক নেমে। এই পচাগলা পৃথিবীটা ভেঙেচুরে যাচ্ছে- এখন যৌবন আর নতুন পৃথিবী গড়ার স্বপ্ন দেখে না। স্বপ্ন দেখে শুধু আত্মপ্রতিষ্ঠার। এই আত্মসর্বস্বতার আবহাওয়ার পরিবেশেই তারা হয়ে উঠেছে ছন্নছাড়া, একাকী, বোহেমিয়ান, চূড়ান্ত ক্যারিয়ারিস্ট, আত্মকেন্দ্রিক এবং আত্মধ্বংসকারী। সবটাই যেন বিভ্রমের যোগফল। বিপন্ন, আশান্ত, রক্তাক্ত এই সময় আর ক্ষতবিক্ষত যৌবনকে ঘিরেই ‘ঐতিহ্য’ ও ‘আধুনিক’ এর সংঘাতে গড়ে ওঠা নাটক।

জাতীয় নাট্যশালার প্রধান মিলনায়তনে আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় মঞ্চায়ন হবে ভারতের নাট্যসংগঠন অনীকের প্রযোজনায় নাটক ‘চিকিৎসা’ এবং এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হলে মঞ্চায়ন হবে রঙ্গকর্মীর প্রযোজনায় নাটক ‘অন্তরযাত্রা’।

শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পী পুরস্কার ও কারুমেলা শুরু হচ্ছে কাল ॥ কারুশিল্পে জাতীয় ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও উজ্জীবন এবং শিল্পীদের সৃজনশীলতায় নবীন মাত্রা সঞ্চারের লক্ষে জাতীয় কারুশিল্প পরিষদ ও বেঙ্গল ফাউন্ডেশন প্রতিবছর কারুশিল্প মেলা আয়োজন ও শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পীদের পুরস্কার প্রদান করে থাকে। শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে ২০১৪ সালের শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পী পুরস্কার ও কারুমেলা তাঁকে উৎসর্গ করা হয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার ধানম-ির বেঙ্গল শিল্পালয় প্রাঙ্গণে বিকেল ৪টায় চারজন শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পীকে পুরস্কার প্রদান ও পাঁচ দিনব্যাপী কারুমেলার উদ্বোধন করবেন শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সহধর্মিনী বেগম জাহানারা আবেদিন ও কথাশিল্পী সেলিনা হোসেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন ১৯৯৯ সালে শিলু আবেদ শ্রেষ্ঠ কারুশিল্পী পুরস্কার বিজয়ী জামালপুরের কাঁথাশিল্পী রাশেদা বেগম। কারুমেলা চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত এবং প্রতিদিন বেলা ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত।

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫

০৯/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: