কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

সম্পাদক সমীপে

প্রকাশিত : ৬ এপ্রিল ২০১৫
  • সিটি নির্বাচন শান্তি ফেরাবে কি?

নির্বাচন কমিশন ঢাকা উত্তর, ঢাকা দক্ষিণ ও চট্টগ্রাম এই তিন সিটি কর্পোরেশনের নির্বচনী তফসিল ঘোষণা করেছে। সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে। পোস্টার, ব্যানার ফেস্টুনে ছেঁয়ে গেছে গোটা এলাকা। তবে ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী তিন সিটি কর্পোরেশনে ভোটগ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে ২৮ এপ্রিল। মনোনয়নপত্র দাখিল ২৯ মার্চ। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই ১-২ এপ্রিল। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ধার্য করা হয়েছে ৯ এপ্রিল।

সরকার যখন তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কথা বলেছিলেন, তখন অনেকে মনে করেছিলেন ২০ দলীয় জোটের চলমান আন্দোলন ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে সরকার সিটি নির্বাচনকে কৌশল হিসেবে গ্রহণ করেছে। জনমনে প্রশ্ন ছিল সত্যিই কি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন হবে? তফসিল ঘোষণার পর আর এ বিষয়ে সন্দেহের কোন অবকাশ রইল না। অবশেষে বহুল প্রত্যাশিত ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণসহ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নির্বাচন অনুষ্ঠানকে যথেষ্ট উৎসবমুখর করা গেলে গণতন্ত্রবিরোধী শক্তি দুর্বল হতে বাধ্য। তাই বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক বা না করুক, সরকার ও নির্বাচন কমিশনের দায়িত্ব হবে সম্মিলিতভাবে একটি সুষ্ঠু, সুন্দর ও উৎসবমুখর নির্বাচন দেশের জনগণকে উপহার দেয়া। দেশের সর্বস্তরের জনগণের প্রত্যাশাও তাই। এমনিতে বর্তমান নির্বাচন কমিশনের ওপর বিএনপির আস্থা নেই বহু আগে থেকেই। দলমত নির্বিশেষে সবার আস্থা অর্জন করার জন্য নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই একটা সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন জাতিকে উপহার দিতে হবে। কমিশনের জন্য এটা একটা চ্যালেঞ্জ।

নজরুল ইসলাম লিখন

রূপগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ।

ভেজাল ওষুধ বন্ধ হোক

বর্তমানে বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুধ রফতানি করা হয় প্রায় ১০৬টি দেশে। দেশের মানুষের চাহিদা মিটিয়ে এত দেশে ওষুধ রফতানি করা হচ্ছে, যা দেশের অর্থনীতিতে এক বিরাট সাফল্য বলা চলে। রোগ নির্মূলের জন্য ওষুধই বেঁচে থাকার গুরুত্বপূর্ণ প্রক্রিয়া। কিন্তু এই ওষুধই এখন বেঁচে থাকার প্রয়াস নয় বরং মারণাস্ত্রে রূপ নিয়েছে। ওষুধের বাজারে এখন ভেজালের ছড়াছড়ি। উৎপাদন করা হচ্ছে নকল ওষুধ। মৃত্যু থেকে বাঁচানোর সহায়ক নয় বরং মৃত্যুর আরও সন্নিকটে পৌঁছে দিচ্ছে মানুষকে। কালো টাকায় সয়লাব তাঁদের পকেট যারা উৎপাদন করছে এই নকল ওষুধ। অসহায় জনগণ চায় না কোন পয়সা-কড়ি, একটু শান্তি চায়, এইটুকু দাবি করার অধিকার আমাদের আছে। যারা ভেজাল ওষুধ উৎপাদন এবং বাজারজাতকরণের সঙ্গে জড়িত আছেন আপনাদের বলছিÑ দয়া করে এই অপকর্মকা- থেকে বিরত থাকুন। ভেজাল ওষুধ উৎপাদনের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করে জড়িত ব্যক্তিদের কঠোর শাস্তি প্রয়োগে আইন করা সংগত।

ফারহা নূর

বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী।

হরতাল প্রসঙ্গে

ক্ষেত্রবিশেষ হরতাল-অবরোধ করার নিয়ম-কানুন থাকলেও হরতাল-অবরোধের নামে অন্যের চলাফেরার পথ আটকে রাখার কোন নিয়ম-কানুন নেই। অন্যের গাড়িতে-বাড়িতে বোমা মারা ও আগুন জ্বালিয়ে দেয়ার কোন বিধি বিদান নেই। অন্যকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে মারার কোন আইন-কানুন নেইÑ যারা ঐসব অপকর্ম করছে নিঃসন্দেহে তারা অমানুষ, বা মানুষরূপী শয়তান। তারা দেশ ও জনগণের শত্রু। তাই আসুন, শত্রুর মোকাবিলায় আমরা হাতে হাতে ধরে তাদের অপকর্মের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলি। নয়ত তাদের অপকর্মের পাপের ভাগী আমাদেরও হতে হবে, কারণ অন্যায় করা আর অন্যায় সহ্য সমান অপরাধ। আমরা তাদের অন্যায় আর সহ্য করতে পারছি না, তাই যারা ঐসব অন্যায় করছে, তাদের ঘৃণা জানাই।

মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম

দিপু প্রামাণিক

নবাবগঞ্জ, ঢাকা।

দালাল আটক চলুক

রাজধানীর আগারগাঁও পাসফোর্ট অফিসে র‌্যাববাহিনী কর্তৃক দালাল পাঁকড়াও অভিযান খুবই চমৎকার কাজ, ৩০ জন দালাল পাঁকড়াও করে ভ্রাম্যমাণ আদালত সাজা দিয়েছে। দেশের একজন সুনাগরিক হিসেবে ওই কার্যকলাপকে স্বাগত জানাচ্ছি। সঙ্গে সঙ্গে এ ধরনের শুদ্ধি বা পাঁকরাও অভিযান সকল সেক্টরে অব্যাহত রাখার অনুরোধ করছিÑ বিশেষ করে দেশের সকল সরকারী হাসপাতাল, জেলা সাপোর্ট অফিস, সকল জেলা উপজেলা ভূমি অফিস, বিদ্যুত অফিস, রেলস্টেশন লঞ্চটারমিনাল-থানা, আদালতপাড়া, সরকারী ব্যাংক অগ্রণী, সোনালী, কৃষি, জনতা, পূবালী, জেলগেট ও সচিবালয়, জনস্বার্থ জড়িত সকল সেক্টরে আপনাদের (র‌্যাব) পাঁকড়াও তাৎক্ষণিক সাজা প্রদান অভিযান দেশের মানুষকে বহুলাংশে স্বস্তি দেবে, যার পরিপ্রেক্ষিতে আপনাদের প্রতিষ্ঠানের সুনাম ক্রমশ বৃদ্ধি পাবে।

কাজী নুরুল আমিন

কলেজ রোড, শ্রীনগর, মুন্সীগঞ্জ।

বেতার কেন্দ্র চাই

বর্তমান যুগকে বলা হয় তথ্য প্রযুক্তির যুগ। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধকালে তৎকালীন কুষ্টিয়া জেলার মুজিবনগর ছিল বাংলাদেশের অস্থায়ী রাজধানী। মুক্তিযুদ্ধকালে যে জেলার অবদান সবচেয়ে বেশি অথচ সে জেলায় বাংলাদেশ বেতারের কেন্দ্র নেই, বিষয়টি ভাবতেই কষ্ট হয়। ভৌগোলিক অবস্থান বিবেচনা করলে কুষ্টিয়া জেলা খুলনা বিভাগের একেবারেই শেষপ্রান্তে অবস্থিত, খুলনা বেতারকেন্দ্রের অনুষ্ঠান এক রকম শোনা গেলেও রাজশাহী বেতারকেন্দ্র, ঢাকা ‘খ’, ‘গ’ বেতারকেন্দ্রের অনুষ্ঠান শোনা যায় একেবারেই অস্পষ্ট। এছাড়া বাংলাদেশের অন্যান্য বেতারকেন্দ্রের অনুষ্ঠান শোনা আকাশ-কুসুম কল্পনা ছাড়া আর কিছুই নয়। এ কারণে এ জেলায় বেতার কেন্দ্র স্থাপন করলে বৃহত্তর কুষ্টিয়া ও এর আশপাশের জেলা থেকে বহু প্রতিভা তৈরি হবে। সরকারও বিপুল পরিমাণে রাজস্ব অর্জন করতে পারবে। বর্তমান ডিজিটাল দুনিয়ায় বসবাস করেও আমরা এর সুবিধাপ্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত। আমরা বেতারের পরিপূর্ণ সুবিধা উপভোগ করতে চাই।

মোশতাক মেহেদী

হাউজিং এস্টেট, কুষ্টিয়া।

বৃক্ষরক্ষা হোক

পিরোজপুর জেলার কাউখালী-ঢাকা মহাসড়কের জয়কুল বিড়ালজুরীতে ১৯৮৫ সালের আগস্ট মাসে মোবাশ্বের ডিলার ৫টির বেশি তাল গাছ নিজ হতে রাস্তার দুই পাশে রোপণ করে গিয়াছেন। বর্তমানে তিনি জীবিত নাই। জন স্বার্থে গাছগুলো ৩ গ্রামের মানুষ উপভোগ করছে যেমন তাল ফল হিসেবে, গাছের শুকনো পাতা জ্বালানি হিসেবে এবং কাঁচাপাতা সাধারণ কৃষকের ঘরের ছাউনিতে ব্যবহার হচ্ছে। আর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তো আছেই। বাবুই পাখি বাসা বাঁধছে নিরাপদ আশ্রয় ভেবে। গাছ আমাদের জীবন বাঁচায়, গাছকে বাঁচিয়ে রাখুন। কিন্তু রাতের আঁধারে কে বা কারা বেশ কয়েকটি গাছ কেটে নিয়েছে। তাই আমি জনস্বার্থের কথা ভেবে ওই তালগাছগুলো রক্ষার জন্য প্রশাসনের সহায়তা কাম্য।

রহুল আমিন (দুলাল)

কাউখালী, পিরোজপুর।

প্রকাশিত : ৬ এপ্রিল ২০১৫

০৬/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: