আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বাংলাদেশ-মাহমুদুল্লাহ বন্দনা চলছেই

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৫

মিথুন আশরাফ ॥ ইস্, মঙ্গলবার যদি মাহমুদুল্লাহ কিংবা রুবেলের জন্মদিন থাকত, তাহলে তো বাংলাদেশে আলোড়নই পড়ে যেত। কিভাবে জন্মদিন পালন করছেন, কী করছেন দিনটিতে; এ নিয়ে শোরগোল পড়ে যেত। অথচ মঙ্গলবার ছিল সাকিবের জন্মদিন। ২৯’এ পা রাখলেন দেশের সেরা এ অলরাউন্ডার। নেই তেমন কোন সাড়া!

এমনটি হওয়ার কারণ একটিই, বিশ্বকাপে সাকিবকে নিয়ে যে প্রত্যাশা ছিল; তা যে পূরণ করতে পারেননি। সাকিবকে নিয়ে সবারই প্রত্যাশা ছিল আকাশচুম্বি। বিশ্ব ক্রিকেটের কিংবদন্তিরাও বলেছিলেন, সাকিব বিশেষ কিছু একটা করবেন। কিন্তু সাকিব নীরবই থাকলেন। যেখানে সাকিব নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি, সেখানে কিন্তু মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ সব আলো নিজের দিকে নিয়ে ফেলেছেন। আর রুবেল হোসেন তো ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এমন খেলাই দেখালেন, সব আলো গিয়ে রুবেলের উপরও পড়তে লাগল। তাই এ মুহূর্তে সাকিবকে নিয়ে কোন আলোচনাই নেই।

আশ্চর্য্য একটি বিষয়ও ঘটছে, দেশে রুবেলকে নিয়ে সবার মুখে মুখে আলোচনা থাকলেও বিশ্ব ক্রিকেটে রুবেলকে নিয়ে নেই তেমন শোরগোল। শুধুই মাহমুদুল্লাহ বন্দনা চলছে। এর সঙ্গে বাংলাদেশ যে অসাধারণ খেলে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠল, তা নিয়েও বিশ্ব ক্রিকেটে আলোচনা তুঙ্গেই আছে।

মঙ্গলবার সিডনিতে আইসিসির পক্ষ থেকে অস্ট্রেলিয়ার সাবেক পেসার ব্রেট লি ও ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার মাইকেল ভন সাংবাদিক সম্মেলনে অংশ নিলেন। সেখানেই দুইজনই বাংলাদেশের প্রশংসা করলেন এবং বিশেষ করে তাদের কণ্ঠে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের প্রশংসা ঝড়ল। মাহমুদুল্লাহ যে আলোচনায় আসার মতোই কিছু করে দেখিয়েছেন। বিশ্বকাপে কুমার সাঙ্গাকারা টানা চার ম্যাচে চার শতক করেছেন। বাংলাদেশের মতো দলে খেলে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও টানা দুই ম্যাচে দুই শতক করেছেন। এমন নৈপুণ্যই মাহমুদুল্লাহকে বিশ্বক্রিকেটে নিজের অবস্থান মজবুত করেছে। তাই সাবেক কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের কণ্ঠে মাহমুদুল্লাহ বন্দনা থাকছেই।

বিশ্বকাপ থেকে ১৯ ফেব্রুয়ারি বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ। এর মাঝে শেষ হয়ে গেছে একটি সেমিফাইনাল ম্যাচও। হাতে আছে আর মাত্র ৫ দিন। এরপরই শেষ হয়ে যাবে ১১তম বিশ্বকাপ আসর। বাংলাদেশ ক্রিকেটাররাও এরই মধ্যে দেশের মাটিতে এসে পড়েছেন। তবে যে চিহ্ন বিশ্বকাপের ময়দানে রেখে এসেছেন মাশরাফি, সাকিব, মাহমুদুল্লাহ, মুশফিক, রুবেলরা তাই বার বার কিংবদন্তিদের মুখে মুখে থাকছে।

শুরুতে যে ৮ দলকে কোয়ার্টার ফাইনালের দল ধরা হয়েছিল, এর মধ্যে বাংলাদেশ ছিলই না। এমনকি অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটাররা বরাবরের মতোই বাংলাদেশ যে কিছুই করতে পারবেন না, সেই উচ্চবাচ্যও করেছিলেন। অথচ গ্রুপ পর্ব শেষ না হতেই দেখা গেছে বাংলাদেশই শেষ আটে স্থান করে নিয়েছে। তাও আবার ইংল্যান্ডকে বিদায় করে দিয়েই!

যারা বাংলাদেশকে কোনদিনই পছন্দ করেনি, সেই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে হারেনি বাংলাদেশ। পরিত্যক্ত হয়েছে ম্যাচ। আর ইংল্যান্ডকে দুর্দান্তভাবে হারিয়ে দিয়েছে। এখন কী আর বাংলাদেশকে নিয়ে উচ্চবাচ্য চলে!

এক ম্যাচ হাতে রেখেই ইংল্যান্ডকে হারাতেই বাংলাদেশ যেভাবে কোয়ার্টার ফাইনাল উঠে গেছে, তা প্রশংসার দাবিদারই। মাইকেল ভন তো সেদিনই টুইট করে দিয়েছিলেন, ‘শুভেচ্ছা বাংলাদেশকে। এই জয়ের দাবিদার তারাই (বাংলাদেশ)।’ আর নিজ দল ইংল্যান্ডকে নিয়ে টুইট করেছিলেন, ‘আমার রক্তক্ষরণ হচ্ছে।’ মঙ্গলবার যা বললেন তার সারমর্ম দাঁড়ায়, অসাধারণ খেলেছে বাংলাদেশ। বুঝিয়ে দিয়েছে তারা কতটা ভাল দল হয়েই বিশ্বকাপে খেলেছে।

শুরুতেই আফগানিস্তানকে ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। এরপর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি খেলতে পারেনি। বৃষ্টিতে পরিত্যক্ত হয় ম্যাচ। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অবশ্য ৯২ রানের বড় ব্যবধানে হার হয় বাংলাদেশের। তখনই কোয়ার্টার ফাইনালে উঠতে হলে এমন পরিস্থিতি দাঁড়িয়ে যায়, ইংল্যান্ডকে হারাতেই হবে। স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে হার হোক কিংবা জয়, ইংলিশদের বধ করতে হবে। শেষপর্যন্ত স্কটল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারানোর পর ইংল্যান্ডকেও ১৫ রানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো নকআউট পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে নেয় বাংলাদেশ। তাও আবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে যে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচটি খেলতে নামবে, তার আগেই কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যায় বাংলাদেশ! নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও তো অসাধারণ খেলেছে দল। হেরেছে ৩ উইকেটে ঠিক, তবে ম্যাচে যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলেছিল বাংলাদেশ; তাও প্রশংসা কুড়িয়েছে।

এ প্রতিদ্বন্দ্বিতা কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতকে মাঠের লড়াইয়ে নামার আগেই কাঁপিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু কোয়ার্টার ফাইনালে এসে আম্পায়াররাও যেন বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলল। শেষপর্যন্ত ভারতের কাছে ১০৯ রানে বড় ব্যবধানে হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছে বাংলাদেশ। তবে যে আলোড়ন তৈরি করেছে, তাই বিশ্বক্রিকেটে বাংলাদেশকে আলাদাভাবে স্থান দিয়েছে।

এখন যে বিশ্বকাপ থেকে বাংলাদেশ বিদায় নেয়ার পরও কিংবদন্তি ক্রিকেটারদের কণ্ঠে ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’ নামটি শোনা যাচ্ছে, সেটি দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখানোতেই মিলেছে। অসাধারণ খেলেছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদও। তাই তো সাকিবের নাম বিশ্বকাপের আগে যাদের মুখে মুখে ছিল, তারা এখন ‘মাহমুদুল্লাহ, মাহমুদুল্লাহ’ই করছেন। বিশ্বকাপ শেষের পথে। বাংলাদেশও বিশ্বকাপে নেই। এরপরও বাংলাদেশ আর মাহমুদুল্লাহ বন্দনাই যেন চলছে।

প্রকাশিত : ২৫ মার্চ ২০১৫

২৫/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: