মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সাংবাদিকদের ওপর হামলাকারী ছাত্রলীগ কর্মীদের গ্রেফতার দাবি

প্রকাশিত : ১৩ মার্চ ২০১৫
  • সিইউজের সমাবেশ

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে ১৪ দলের সমাবেশ চলাকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলা, ক্যামেরা, মাইক্রোফোন ভাংচুর এবং পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাধাদানকারী ছাত্রলীগের উচ্ছৃঙ্খল কর্মীদের আগামী রবিবারের মধ্যে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে)। বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে আয়োজিত সমাবেশ থেকে এ দাবি জানান নেতৃবৃন্দ। অন্যথায় কঠোর আন্দোলন কর্মসূচী ঘোষণা দেয়া হবে বলে ঘোষণা দেন নেতারা।

সিইউজে সভাপতি এজাজ ইউসুফীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সমাবেশে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ার বলেন, ১৪ দলের সমাবেশে নেতৃবৃন্দ সাংবাদিকদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন। সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে ছাত্রলীগ নামধারী দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে। তাদের হাত থেকে নারী সাংবাদিকরাও রক্ষা পাননি। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর বর্বর এই হামলা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। আওয়ামী লীগ এবং ১৪ দল হামলাকারীদের চিহ্নিত করে যদি ব্যবস্থা না নেয় তাহলে সাংবাদিকরা তাদের বিরুদ্ধে কলম ধরতে বাধ্য হবে। সমাবেশে বিএফইউজের সহ-সভাপতি আবু তাহের মুহাম্মদ অভিযোগ করেন, আমরাও এক সময় ছাত্রলীগ করেছি। কিন্তু আজকে আমরা যে ছাত্রলীগকে দেখছি তা দেখে লজ্জা হয়। ছাত্রলীগ নামধারী যে দুর্বৃত্তরা সাংবাদিকদের ওপর হামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে দলগত এবং প্রশাসনিকভাবে অবশ্যই ব্যবস্থা নিতে হবে।

সিইউজের সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস অভিযোগ করেন, সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের নিজেই দুঃখ প্রকাশ করে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আওয়ামী লীগ নেতাদের নির্দেশ দিয়ে যান। অথচ সেসব দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে দলগত ও প্রশাসনিকভাবে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ইতোমধ্যে ওই ঘটনায় সাংবাদিক ইউনিয়নের পক্ষ থেকে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। পুলিশকে ঘটনার ছবিসহ ভিডিও ক্লিপ দেয়া হয়েছে। কিন্তু পুলিশ দুর্বৃত্তদের গ্রেফতারে ব্যর্থ হয়েছে।চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী বলেন, পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সাংবাদিকদের ওপর হামলা চট্টগ্রামের সাংবাদিক সমাজ কোনভাবেই মেনে নেবে না। চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের মধ্যে কোন বিভেদ নেই। বিভেদের সুযোগ নিয়ে সাগর-রুনি হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িতদের এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি প্রশাসন। কিন্তু চট্টগ্রামে সেই সুযোগ দেয়া হবে না। সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক ম. শামসুল ইসলামের সঞ্চালনায় সমাবেশে কর্মসূচীতে অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-আপারেটিভ হাউজিং সোসাইটি চেয়ারম্যান মাঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত, সিইউজের সাবেক সভাপতি শহীদউল আলম, মোস্তাক আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক সবুর শুভ, টিভি জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, সিইউজের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নিরূপম দাশগুপ্ত, সিইউজে টিভি ইউনিটের ডেপুটি চীফ অনিন্দ টিটো, টিভি ক্যামেরা জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এনামুল হক ও দুর্র্বৃত্তদের হামলায় আহত সাংবাদিক লতিফা আনসারী রুনা। সমাবেশ শেষে সাংবাদিক হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।

উল্লেখ্য, বুধবার বিকেলে চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে ১৪ দলের সমাবেশ চলাকালে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে ছাত্রলীগ নামধারী দুর্বৃত্তদের হামলায় এশিয়ান টিভির সিনিয়র রিপোর্টার লতিফা আনসারী রুনা, চ্যানেল ২৪-এর রিপোর্টার জামশেদুল করিম, ক্যামেরাপার্সন শফিক আহমেদ সাজিব, সময় টিভির রিপোর্টার পার্থ প্রতিম বিশ্বাস, ক্যামেরাম্যান আশরাফুল আলম মামুন, ৭১ টিভির ক্যামেরাপার্সন বাবুন পাল, গাজী টিভির রিপোর্টার নাজমূল আহসান, ক্যামেরাপার্সন বাসু দেব, ইন্ডিপেনডেন্ট টিভির মো. আলমগীর, চ্যানেল আইয়ের ক্যামেরাপার্সন শামসুল আলম বাবু আহত হন। এ সময় ক্যামেরা, মাইক্রোফোন ভাংচুর এবং মোবাইলসহ নগদ টাকা তাদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া হয়। এ ঘটনায় রাতে অজ্ঞাতনামা ১০/১২ সন্ত্রাসীকে আসামি করে সিইউজের পক্ষ থেকে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

প্রকাশিত : ১৩ মার্চ ২০১৫

১৩/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: