আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নিউজিল্যান্ডের নাটকীয় জয়

প্রকাশিত : ১ মার্চ ২০১৫
নিউজিল্যান্ডের নাটকীয় জয়

শাকিল আহমেদ মিরাজ ॥ আগের বড় ম্যাচগুলো যেখানে ছিল উত্তাপহীন, সেখানে এবারের বিশ্বকাপে প্রথম আগুন লড়াইয়ের জন্ম দিল দুই আয়োজক দেশ নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া। এমনিতে ম্যাচটি ঘিরে ক্রিকেটপ্রেমী মানুষের আগ্রহ ছিল তুঙ্গে, তাতে বাড়তি পারদ চড়িয়ে ১ উইকেটের নাটকীয় জয়ে পুল ‘এ’ থেকে সবার আগে শেষ আটে পৌঁছে গেল কিউইরা। অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে দু-দলের পেসারদের দাপটে লো-স্কোরিং লড়াইয়ে ছিল ক্রিকেটীয় যুদ্ধের বারুদ-গন্ধ! প্রথমে টস জিতে ব্যাটিং নেয়া অস্ট্রেলিয়াকে ৩২.২ ওভারে মাত্র ১৫১ রানে গুড়িয়ে দিলেন ট্রেন্ট বোল্ট (৫/২৭)-টিম সাউদিরা। জবাবে ২৩.১ ওভারে জয় পেলেও ৯ উইকেট হারিয়ে ‘থরহরিকম্প’ ব্রেন্ডন ম্যাককুলামদের! অল্প পুঁজি নিয়েও অবিশ্বাস্য নাটকীয়তার জন্ম দিয়ে ‘অনসাং হিরো’ অসি পেসার মিচেল স্টার্ক (৬/২৮)।

১ উইকেটে ফয়সালা হওয়া ম্যাচে প্রতিদ্বন্দ্বিতা থাকবে- এটা স্বাভাবিক। কিন্তু কাল ইডেন পার্কে উত্তাপ ছড়াল এক ভূতুরে ম্যাচ। শুরুতে ১২ ওভারে ১ উইকেটে ৮০ রান তুলে নেয়া অস্ট্রেলিয়া অলআউট হলো ১৫১ রানে। ১৫২ রানের টার্গেটে নেমে ব্যাট হাতে ঝড় তুললেন ব্রেন্ডন ম্যাককুলাম। স্বভাবসুলভ স্টাইলে কিউই অধিনায়ক যখন ২৪ বলে ৫০ রানের ঝড় তুলে ফিরলেন, মনে হচ্ছিল বড় জয় পেতে যাচ্ছে তার দল। সেই তাদেরই ৭৭/১ থেকে পরবর্তী ৭৫ রান তুলতে নেই আরও ৮ উইকেট! ভূতুরে নয় তো কী? দু-দল মিলে খেলল ৫৫.৩ ওভার, তাতে উইকেট পড়ল ১৯টি, ম্যাচে ফল এলো ১ উইকেটের ন্যূনতম ব্যবধানে। অকল্যান্ডের সুন্দর ছিমছাম ইডেন পার্কে যা খেলার খেললেন বোলাররা, নাটকীয়-ভূতুড়ে কা-ের জন্ম দিলেন সাউদি-স্টার্করা।

অস্ট্রেলিয়া হ্যাটট্রিকসহ সর্বাধিক চারবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। এবার ঘরের মাটিতে হট ফেবারিট তারা। অন্যদিকে সহ-আয়োজক নিউজিল্যান্ড ফেবারিটের তালিকায় উঠে এসেছে তাদের সম্প্রতি নৈপুণ্যের জন্য। গত দেড় বছরে ভারত, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, সর্বশেষ বিশ্বকাপের আগে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানকে নাস্তানাবুদ করে আলোচনায় কিউইরা। ভারত-পাকিস্তানের পর তাই এই ম্যাচটি ঘিরেই বইছিল উন্মাদনার উত্যুঙ্গ হাওয়া। শুরুতেই ১০ বলে ১৪ রান করে ঝড়ের ইঙ্গিত দেন এ্যারন ফিঞ্চ, তাকে পরিষ্কার বোল্ড করে বোলারদের শাসন ঘোষণা করেন কিউই পেসার টিম সাউদি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৪ রান করা ওয়ার্নারকেও ফেরান তিনি। তার আগে শেন ওয়াটসনকে তুলে নেন অভিজ্ঞ স্পিনার ড্যানিয়েল ভেট্টোরি। এরপরই শুরু বোল্ট তা-ব। ৮০/৩- থেমে মুহূর্তে ১০৬/৯-এ পরিণত হয় অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস! ভাগ্যিস সতীর্থ ব্যাটসম্যানদের সাজঘরে ফেরার মিছিলেও আট নম্বরে নামা ব্র্যাড হ্যাডিন ৪১ বলে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ৪৩ রানের ইনিংসটি খেলেছিলেন।

ইনজুরি কাটিয়ে বিশ্বকাপে প্রথম নামা অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক ১২, তরুণ তারকা স্টিভেন স্মিথ ৪, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ১ ও মিচেল মার্শ ০ রানে সাজঘরে ফেরেন। ১০ ওভারে ২৭ রান দিয়ে ৫ উইকেট তুলে নেন ম্যাচের নায়ক বোল্টÑ যার মধ্যে দলের ১৮ ও ২২তম ওভারেই দুটি করে! ভেট্টোরি ২ ও কোরি এ্যান্ডারসনের শিকার ১টি করে। ম্যাচের ভূতুরে কা-ের তখনও বাকি। মাত্র ৭.৪ ওভারে ২ উইকেটে ৭৮ রান তুলে নেয়ার পর মনে হচ্ছিল কিউইদের জন্য জয়টা কেবলই সময়ের বিষয়। ২৪ বলে ৫০ রানের পথে বিশ্বকাপের তৃতীয় দ্রুততম হাফ সেঞ্চুরি (২১ বলে) হাঁকিয়ে উন্মাতাল ম্যাককুলাম। পরের গল্পটা কেবলই স্টার্ক ও অসি বোলারদের। দলীয় নবম ওভারের প্রথম ও দ্বিতীয় বলে পরপর রস টেইলর (১) আর গ্রান্ট ইলিয়টকে (০) পরিষ্কার বোল্ড করার পর হ্যাটট্রি না পেলেও ৭৯ রানের মধ্যে শীর্ষ চার ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে দিয়ে কিউই শিবিরে বড় রকমের ঝাঁকুনি দেন স্টার্ক। তৃতীয় বলটি ঠেকিয়ে হয়ত অস্ট্রেলিয়ার জয়কেই ঠেকিয়ে দেন এ্যান্ডারসন। ৪২ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় মহামূল্যবান ২৬ রান করেন তিনি।

তবে কেন উইলিয়ামসনের কথা আলাদা করে না বললেই নয়। কেন তিনি দলটির ভবিষ্যতের কিংবদন্তি, তা আরও একবার প্রমাণ করেন কাল। স্টার্ক-তোপে সতীর্থতরা যখন চোখে সরষে ফুল দেখছিলেন তখন ৪২ বলে ৫ চার ও ১ ছক্কায় ৪৫ রানে অপরাজিত থেকে ঐতিহাসিক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। এরপরও নিজের ও ইনিংসের শেষ দুই ডেলিভারিতে এ্যাডাম মিলনে ও ট্রেন্ট বোল্টকে শূন্য রানে বোল্ড করে দলকে প্রায় জিতিয়ে দিতে যাচ্ছিলেন স্টার্ক! শেষ পর্যন্ত তার বোলিং ফিগার ৯-০-২৮-৬!

স্টার্ক ৬, তার আগে প্রতিপক্ষ বোল্ট ৫ ও এ্যান্ডারসন ১- ম্যাচে বাঁহাতি পেসারদের মোট শিকার ১২ উইকেট, যা ওয়ানডেতে রেকর্ড, আগে ছিল ৯টি। বিশ্বকাপে ১ উইকেটে জয়-পরাজয় নির্ধারিত হওয়া ষষ্ঠ ম্যাচ এটি। নিউজিল্যান্ডের এমন নাটকীয় জয় যেমন প্রথম, তেমনি এমন হার অস্ট্রেলিয়ারও প্রথম! ৮০/১ থেকে ১০৬/৯Ñ ২৬ রানের মধ্যে ৮ উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া, দেশটির ওয়ানডে ইতিহাসে এমন ব্যাটিং বিপর্যও যে এই প্রথম! টানা চার জয়ে শেষ আট নিশ্চিতের পথে কিউইরা এর আগে শ্রীলঙ্কাকে ৯৮ রানে, স্কটল্যান্ডকে ৩ ও ইংল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারায়।

প্রকাশিত : ১ মার্চ ২০১৫

০১/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: