রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

১৫ লাখ পরীক্ষার্থীর প্রতি চরম অবজ্ঞা প্রদর্শন ॥ খালেদার অফিস ঘেরাও

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
১৫ লাখ পরীক্ষার্থীর প্রতি চরম  অবজ্ঞা প্রদর্শন ॥ খালেদার অফিস ঘেরাও
  • প্রতিবাদে প্রেসক্লাব, শহীদ মিনারসহ রাজধানীর বিভিন্ন স্থান ও সারাদেশে জেলা-উপজেলায় মানববন্ধন, প্রতীকী অনশন ও অবস্থান কর্মসূচী

বিভাষ বাড়ৈ ॥ ১৫ লাখ পরীক্ষার্থীর শিক্ষা জীবনকে উপেক্ষা করে আগামীকাল থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি পরীক্ষার মাঝে বিএনপি-জামায়াত জোটের ডাকা হরতাল অবরোধে বিক্ষুব্ধ পুরো দেশ। দেশজুড়ে নাশকতার মধ্যেই নতুন প্রজন্মের স্বার্থবিরোধী এ কর্মসূচী প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও করেছে বিক্ষুব্ধ পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। কর্মসূচীর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে খালেদা জিয়ার উদ্দেশে শিক্ষার্থীরা বলেছে, ‘আমাদের পেট্রোলবোমা মের না’, ‘এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা কর’। একই দাবিতে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে। আজকের মধ্যেই হরতাল-অবরোধ তুলে নেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন হয়েছে বিভিন্ন জেলা উপজেলায়। এদিকে পরীক্ষা হলে হরতাল-অবরোধের মধ্যে বিশেষ নিরাপত্তা দেয়া হবে বলে উদ্বিগ্ন পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকদের আশ্বস্ত করেছে পুলিশ ও বিজিবি। পরীক্ষার জন্য এখন প্রস্তুত শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডগুলো।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ লাখ লাখ শিক্ষার্থীর দিকে তাকিয়ে অন্তত পরীক্ষার দিনগুলোতে কর্মসূচী তুলে নিতে বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। বলেছেন, ‘আপনারা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করুন কোন আপত্তি নেই। কিন্তু অন্তত আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য পরীক্ষার দিনগুলোতে কর্মসূচী দেবেন না। তাদের দিকে একটু তাকান’। মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, পরীক্ষার জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রস্তুত থাকলেও বিএনপি-জামায়াতের নাশকতা চলতে থাকলে আজ যে কোন সময় পরীক্ষা ‘আপাতত’ স্থগিত করা হতে পারে। নাশকতায় কোন শিক্ষার্থী ক্ষতির ঝুঁকি এড়াতে চায় মন্ত্রণালয়। তবে টানা হরতাল-অবরোধ কর্মসূচী হওয়ায় পরীক্ষা পিছিয়ে নিলেও পুরো শিক্ষাপঞ্জি ওলটপালট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় শিক্ষক সমাজের সঙ্গে উদ্বিগ্ন সরকারের সংশ্লিষ্টরা। এর আগে ১৫ লাখ শিক্ষার্থী ও তাদের ৩০ লাখ উদ্বিগ্ন অভিভাবকের আকুল আবেদন, শিক্ষামন্ত্রী এমনকি শিক্ষকসমাজের অনুরোধের পরেও আজ থেকে ৭২ ঘণ্টার হরতাল দিয়ে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। বৃহস্পতিবার বিএনপির পক্ষ থেকে পরীক্ষার মাঝে হরতাল অবরোধ দেয়ার ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই হতবাগ হয়ে যায় পুরো দেশবাসী। দুশ্চিন্তায় হতবিহ্বল পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। তারা সকলে কয়েকদিন ধরেই এসএসসি পরীক্ষা চলাকালে হরতাল না দিতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের কাছে বারবার আহ্বান জানাচ্ছিলেন। একই দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাব, শহীদ মিনারসহ বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন, প্রতীকী অনশন ও অবস্থান কর্মসূচী পালন করছিলেন পরীক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্যরা। এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নির্বিঘেœ পরীক্ষার সুযোগ দেয়ার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকেও কয়েকদিন ধরে দফায় দফায় বিএনপির প্রতি আহ্বান জানানো হচ্ছিল। তবে সব আবেদন, অনুরোধকে উপেক্ষা করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট তাদের টানা অবরোধের মধ্যেই আজ থেকে ফের ঢাকাসহ সারাদেশে ৭২ ঘণ্টা হরতাল ডেকে বসে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সোমবার থেকে আদৌ এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে কি-না তা নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিএনপির ঘোষণার পর থেকে দেশজুড়ে হরতাল অবরোধ প্রত্যাহারের দাবি জোরালো হচ্ছে।

ঘেরাও খালেদা জিয়ার কার্যালয় ॥ শনিবার সকালেই হরতাল ও অবরোধ কর্মসূচী প্রত্যাহার করে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার দাবিতে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচী পালন করে বাড্ডা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের কয়েক শত ছাত্রী ও অভিভাবক। এ দাবিতে দেশের ১৫ লাখ শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে অন্তত আগামী এক মাস অবরোধ, হরতালের মতো ভয়াবহ কর্মসূচী না দিতে আহ্বান জানিয়েছেন তাঁরা। পরীক্ষার মধ্যেও অবরোধ ও হরতাল কর্মসূচী চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তে অটল থাকায় তারা খালেদা জিয়ার কার্যালয় ঘেরাওয়ে আসেন বলে জানান। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কয়েক শত শিক্ষার্থী খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে ৮৬ নম্বর সড়কে প্ল্যাকার্ড হাতে অবস্থান নেন।

শিক্ষার্থী নাবিলা, হাসনাহেনা, নীলমনি, সামিনা, মনিকা, আসিফা প্রমুখের হাতের প্ল্যাকার্ডে দেখা যায় ‘আমাদের বোমা মের না’, ‘আমাদের পেট্রোলবোমা মের না’, ‘এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার ব্যবস্থা কর’, ‘আমরা স্কুলে যেতে চাই, আমাদের পথ নিরাপদ কর’, ‘আমাদের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট কর না’ ইত্যাদি সেøাগান। ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্কুল গভর্নিং বোর্ড সভাপতি মুজিবুর রহমান বলেন, টানা হরতাল ও অবরোধে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। তারওপর সোমবার থেকে এসএসসি পরীক্ষা। এতে পরীক্ষার্থীরা উদ্বিগ্ন। তাই খালেদা জিয়াকে শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনা ও হরতাল প্রত্যাহারের অনুরোধ জানাতে এসেছি। প্রধান শিক্ষক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, বছরের একটি মাস অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু শিক্ষার্থীরা আতঙ্কে ঘর থেকে বের হতে পারছে না। বের হলেই শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা আহত হচ্ছে। আমরা সহিংস পরিবেশ পরিহারের আহ্বান জানাতে এসেছি। হরতাল-অবরোধে আমরা শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা সকলে উদ্বিগ্ন। আন্দোলন হোক তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই। কিন্তু তা হতে হবে শান্তিপূর্ণ। এসএসসি পরীক্ষার সময়টি হরতাল-অবরোধের আওতার বাইরে রাখতে হবে। এই দাবিতে আমরা রাজনৈতিক দলগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে শান্তিপূর্ণ এই কর্মসূচী পালন করছি। মানববন্ধনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থী রেবেকা সুলতানা বলেন, পেট্রোলবোমা আতঙ্কে আমরা স্কুলে যেতে পারি না। আমাদের বড় বোনেরা সোমবার থেকে এসএসসি পরীক্ষা দেবে কিভাবে? এভাবে বোমা মারলে আমরা স্কুলে যেতে পারব না। এর অবসান চাই। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আসা অভিভাবক ওমর ফারুক বলেন, ‘আমরা কোন কার্যালয় ঘেরাও করতে আসিনি। আমরা বলতে এসেছি আমাদের বাচ্চাদের শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ চাই।’

মানববন্ধন শেষে হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহারের দাবিতে খালেদা জিয়াকে স্মারকলিপি দিয়েছেন অভিভাবকরা। সাড়ে ১১টার দিকে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল এ্যান্ড কলেজ, বাড্ডা বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের অভিভাবকরা এ স্মারকলিপি দেন। ৫০ জন অভিভাবক গুলশানে বিএনপি চেয়ারপার্সনের কার্যালয়ে যান। এ সময় তাদের হাতে ছিল বিভিন্ন সেøাগান ও দাবি লেখা প্লাকার্ড ও ব্যানার। তারা চেয়ারপার্সনের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত এক সিএসএফ কর্মকর্তার মাধ্যমে স্মারকলিপিটি খালেদা জিয়ার কাছে পৌঁছে দেন।

স্মারকলিপিতে অভিভাবকরা এসএসসি ও দাখিল পরীক্ষা হরতাল-অবরোধ মুক্ত রাখার দাবি জানান। তারা ১৫ লাখ শিক্ষার্থীর ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে অন্তত আগামী এক মাসে এ ধরনের ভয়াবহ কোন কর্মসূচী না দেয়ার আহ্বান জানান। তারা স্মারকলিপিতে লেখেন, আমাদের সন্তানদের নিরাপত্তা আপনাদের হাতে। মানবিক কারণে এ হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহার করুন। এভাবে শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যত ধুলায় মিশিয়ে দেবেন না। মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার বাসিন্দা লাইলা আফরোজ লাকী বলেন, আমার মেয়ে এবার এসএসসি পরীক্ষা দেবে। আমি আমার মেয়ের নিরাপত্তা চাই। তার নির্বিঘেœ পরীক্ষা দেয়ার নাগরিক অধিকার রয়েছে।

এদিকে এসএসসি পরীক্ষা চলাকালে হরতাল অবরোধ প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকারী মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতি (বাসমাশিস)। জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এ দাবি জানায় সংগঠনটিন নেতৃবৃন্দ। মানববন্ধনে শিক্ষকরা বলেন, কয়েক লাখ শিক্ষক ও কর্মকর্তা এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। কিন্তু চলমান অবরোধের কারণে ১৪ লাখ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা ভয়ার্ত হৃদয়ে প্রহর গুনছেন। এ অবস্থায় জাতীয় স্বার্থে পরীক্ষার দিনগুলোতে অবরোধ প্রত্যাহারের জন্য সকল রাজনৈতিক দলের কাছে আহ্বান জানান শিক্ষক নেতারা। মানববন্ধনে রাজধানী ঢাকার অর্ধশতাধিক স্কুলের কয়েক শ’ শিক্ষক অংশ নেন এসএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার ব্যবস্থা না করলে খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার করে তাকে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ। সকালে জাতীয় জাদুঘরের সামনে আয়োজিত সমাবেশ ও পদযাত্রা কর্মসূচী থেকে তারা এই দাবি জানান। এ সময় তারা বলেন বিএনপি দেশকে নতুন করে অশ্চিয়তার দিকে ঠেলে দিচ্ছে মন্তব্য করে বলেন এটাকে রাজনীতি বলা যাবে না।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান, সদস্য এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যরা দেশের চলমান সহিংসতা বন্ধ করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের এসএসসি পরীক্ষায় নির্বিঘেœ অংশগ্রহণের জন্য বিএনপির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। শনিবার ইউজিসি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে তারা এই আহ্বান জানান।

পরীক্ষা হলে বিশেষ নিরাপত্তা পুলিশ ও বিজিবির ॥ অন্যদিকে পরীক্ষা উপলক্ষে সারাদেশে থাকছে কঠোর নিরাপত্তা। পরীক্ষার্থী, পরীক্ষাকেন্দ্র, সড়ক-মহাসড়ক ও পরীক্ষার্থীদের বহনকারী যানবাহনে প্রয়োজনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এস্কর্ট দেবে। বিশেষ নিরাপত্তা থাকছে পরীক্ষার্থীদের চলাচলকারী সড়ক-মহাসড়কে। এরপরও পরীক্ষার্থী বা তাঁদের অভিভাবক বা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তরফ সহায়তা চাওয়া হলে বাড়তি নিরাপত্তা দেয়া হবে। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব পাচ্ছে বিভাগীয় শহর ও মেট্রোপলিটন সিটিগুলো। পরীক্ষার্থী, পরীক্ষার কেন্দ্র, পরীক্ষার্থীদের চলাচলকারী সড়ক মহাসড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার ঘোষণা দিয়েছেন পুলিশ মহাপরিদর্শক একেএম শহীদুল হক।

শনিবার বেলা সাড়ে এগারোটায় গুলিস্তান পুলিশ সদর দফতরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ পুলিশ মহাপরিদর্শক বলেন, চলমান অবরোধের মধ্যে হরতালের ডাক দেয়ায় আগামী সোমবার থেকে শুরু হতে যাওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকসহ পরিবার পরিজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সরকার পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিলে পুলিশ সব ধরনের নিরাপত্তা দেবে। পরীক্ষা কেন্দ্র ছাড়াও পরীক্ষার্থীদের যাতায়াতের সড়ক মহাসড়কগুলোতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। যাতে কোন প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটতে পারে। পরীক্ষার্থীরা বা পরীক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকরাও চাইলে নিরাপত্তা দেয়া হবে। সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, চলমান অবরোধ হরতালে কোন প্রকার নাশকতামূলক কর্মকা-কে প্রশ্রয় দেয়া হবে। যে কোন মূল্যের নাশকতা প্রতিহত করা হবে। তিনিও নাশকতা প্রতিহত করতে সমাজের সকল স্তরের মানুষের সহযোগিতা কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে সারাদেশে ॥ রাজশাহী থেকে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার জানিয়েছেন, পরীক্ষার আগে অবরোধ হরতাল প্রত্যাহারের দাবিতে মাঠে নেমেছে রাজশাহীর শিক্ষক, ছাত্র অভিভাবক ও বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ। শনিবার সকালে পৃথকভাবে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ, সম্মিলিত নারী উদ্যেক্তা ও শিক্ষক অভিভাবকরা মানববন্ধন এবং বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত এসব কর্মসূচী থেকে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ। নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্টে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ ও সম্মিলিত নারী শিল্প উদ্যোক্তার যৌথ কর্মসূচী থেকে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে চরম উদ্বেগ প্রকাশ করে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়। রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামায়াত খান বলেন, দেশে আন্দেলন কর্মসূচীর নামে মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা করা হচ্ছে। এসএসসি পরীক্ষা নিয়ে দেশের লাখো শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন। কর্মসূচীতে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের উপদেষ্টা মোস্তাফিজুর রহমান খান আলম, সুপ্র রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি ও সাংবাদিক হাসান মিল্লাত, রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক মঞ্জুর হাসান মিঠু, চেম্বার পরিচালক সেকেন্দার আলী, সম্মিলিত নারী শিল্প উদ্যোক্তার সভাপতি সেলিনা খাতুন, জাতীয় শিক্ষক কর্মচারি ফ্রন্টের রাজশাহীর আহ্বায়ক অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। পরে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা একইস্থানে পৃথক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

স্টাফ রিপোর্টার সাতক্ষীরা থেকে জানান, এসএসসি পরীক্ষা হরতালের আওতামুক্ত রাখা ও চলমান সহিংসতা বন্ধের দাবিতে সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, সরকারী বালক উচ্চবিদ্যালয় ও সুশাসনের জন্য প্রচার অভিযান সুপ্র পৃথকভাবে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে। কর্মসূচীতে বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ আবদুল হামিদ, অপরেশ পাল, এ্যাড. আজাদ হোসেন বেলাল, এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, নিত্যানন্দ সরকার, কাজি, সাইদ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোশারফ হোসেন মশু, আবু বক্কার সিদ্দিকি, জোছনা দত্ত ও মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জ্বল প্রমুখ।

এসএসসি পরীক্ষার সময় হরতাল অবরোধ প্রত্যাহারের দাবিতে পাবনায় মানবন্ধন করেছে এসএসসি পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। পাবনা প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে মানববন্ধন করে বিভিন্ন স্কুলের পরীক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে পাবনা জেলা স্কুল, সেন্ট্রাল গার্লস স্কুল, সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এসএসসি পরীক্ষার্থীরা অংশ নেয়। শেরপুরে সন্ত্রাসমুক্ত, হরতাল-অবরোধ মুক্ত ও নকলমুক্ত পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষক, এসএসসি পরীক্ষার্থী ও অন্যান্য শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসী মানববন্ধনে অংশ নেন। এছাড়া একই সময়ে সরকারী ভিক্টোরিয়া একাডেমিসহ শহরের বিভিন্ন মাধ্যমিক শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান এলাকায় একই দাবিতে মানববন্ধন করে শিক্ষার্থীরা।

হরতাল-অবরোধমুক্ত ও নকলমুক্ত পরিবেশে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুপুরে শহরের মাধবপুর মহল্লায় শেরপুর সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে ওই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ওইসময় বিদ্যালয়ের শিক্ষক, এসএসসি পরীক্ষার্থী ও অন্যান্য শিক্ষার্থী এবং এলাকাবাসী মানববন্ধনে অংশ নেয়। এছাড়া একই সময়ে সরকারী ভিক্টোরিয়া একাডেমিসহ শহরের বিভিন্ন মাধ্যমিক শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান এলাকায় একই দাবিতে মানববন্ধন করে শিক্ষার্থীরা।

‘পুড়ছে মানুষ, পুড়ছে দেশ, জেগে ওঠো বাংলাদেশ’ সেøাগানকে সামনে রেখে খুলনায় নাশকতার বিরুদ্ধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর সার্কিট হাউসের সামনে থেকে বাংলাদেশ বেতার খুলনা পর্যন্ত দীর্ঘ এ মানববন্ধনে অংশ নেয় শত শত শিক্ষার্থী ও অভিভাবক।

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০১/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: