কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সাড়া নেই হরতালে, বোমাহামলা চলছেই

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ অবরোধের মধ্যে বিএনপি জামায়াত জোটের ৩৬ ঘণ্টা হরতালে জনগণের সাড়া না মিললেও জঙ্গীরূপে বোমা হামলা চলছেই। রবিবার রাজধানীসহ সারাদেশে দেখা গেছে নামকাওয়াস্তে হরতালের চেহারা। তবে অব্যাহত নাশকতার কারণে দেশজুড়ে ব্যাপক ক্ষোভের পরেও সাধারণ মানুষের ওপর পেট্রোল বোমা হামলা করেছে হরতাল-অবরোধকারীরা। হামলা করা হয়েছে রাজশাহী, কুমিল্লা, দিনাজপুর, নাটোর, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া, সিরাজগঞ্জ, সাভারসহ বিভিন্ন জেলায়। জনতা-পুলিশের হাতে পেট্রোল বোমা ও নাশকতায় ব্যবহৃত অন্যান্য অস্ত্রসহ হাতেনাতে ধরা খেয়েছে অন্তত ১৫ শিবির, ছাত্রদল, যুবদল নেতা। কয়েকটি স্থানে বোমাসহ হাতেনাতে ধরা পড়ার পর শিবির- ছাত্রদল ক্যাডারদের গণধোলাই দিয়েছেন বিক্ষুব্ধ জনতা। এদিকে নাশকতার বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানে সারাদেশে গ্রেফতার হয়েছে দুই শতাধিক অপরাধী।

বিএনপি-জামায়াত জোটের টানা অবরোধের ২২তম দিনে রবিবার সকাল ছয়টা থেকে ৩৬ ঘণ্টার হরতাল শুরু হয়েছে। চলবে আজ সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত। তবে দেশব্যাপী এ হরতালে রবিবার সকাল থেকেই প্রত্যাখ্যান করেছে জনগণ। অব্যাহত নাশকতার কারণে আতঙ্কে মহাসড়কগুলোতে যান চলাচল কম হলেও দেশের অন্যান্য সড়কের চিত্র ছিল স্বাভাবিক। কর্মচঞ্চল রাজধানী ঢাকায় জীবনযাত্রা দেখে মনে মানুষ বলছে, হরতাল শুধু নামে, কাজে নয়। সকাল থেকেই রাজধানীবাসী স্বাভাবিক দিনের মতোই কর্মস্থলে যাওয়ার জন্য বেরিয়েছেন। গণপরিবহনগুলোও চলছে স্বাভাবিকভাবেই। রাজধানীতে কর্মস্থলগামী মানুষকে তেমন একটা দুর্ভোগে পড়তে হয়নি। রাজধানীর সরকারী তিতুমীর কলেজের ছাত্র বিকাশ ও পরিতোষ দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবনের সামনে দাঁড়িয়ে বলছিলেন, হরতালের কারণে একটু সকাল সকাল বের হয়েছি। কিন্তু রাস্তার অবস্থা দেখে মনে হচ্ছে একটু দেরিতে বের হলেও কোনো সমস্যা ছিল না। যান চলাচল স্বাভাবিক থাকায় আজ কোন ধরনের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে না। তারা দু’জনেই বলছিলেন, হরতাল অবরোধের নামে যেভাবে আগুন দেয়া হচ্ছে তাতে মানুষের মনে ভয় ঢুকে গেছে। সবার মধ্যে একটা আতঙ্ক বিরাজ করছে যে কখন কী হয়। রাস্তায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বের হতে হয়েছে। যারা মানুষ পোড়াচ্ছে তাদের তো চিন্তা নেই। তারা তো ঘর থেকেই বের হন না। রাজধানীতে গণপরিবহনসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলছে স্বাভাবিকভাবেই। গাবতলী, মহাখালী ও সায়দাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে দূরপাল্লার বাস ছেড়ে না গেলেও ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির ঘোষণা অনুযায়ী ঢাকার আশপাশ এলাকায় বাস চলাচল করেছে। সদরঘাট থেকে সকাল থেকেই সব লঞ্চ সময়মতো ছেড়ে গেছে। কমলাপুরে ট্রেন চলাচলও স্বাভাবিক ছিল। এদিকে রাজধানীর কারওরান বাজারে সকাল পৌনে ১০টার দিকে বিহঙ্গ পরিবহনের একটি বাসে ককটেল ছুড়েছে হরতালকারীরা। এতে অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, বিহঙ্গ পরিবহনের বাসটি কাওরান বাজারে ইত্তেফাক অফিসের সামনে এলে রাস্তার অন্যপাশ থেকে তিন-চারটি ককটেল ছোড়া হয়।

ককটেলের আঘাতে গাড়ির কাচ ভেঙে হাত কেটেছে মোঃ শওকত (৩৫) নামের এক যাত্রীর। ভয়ে বাস থেকে নামতে গিয়ে আহত হয়েছেন আরও চারজন। রাজধানীর লালমাটিয়া এলাকা থেকে দুই শিবিরকর্মী ও এক শ্রমিকদলের নেতাসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে মোহাম্মদপুর থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- শিবিরকর্মী হাসিব, ইসরাফিল ও মোহাম্মদপুর শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক আলী কায়সার পিন্টু। পুলিশ জানায়, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হরতালে নাশকতা সৃষ্টির উদ্দেশে বেশ কয়েকজন শিবিরকর্মী জামায়াতের ব্যানারসহ লালমাটিয়া এলাকায় জড়ো হয়। এ সময় মোহাম্মদপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বুলবুল ঘটনাস্থল থেকে দুই শিবিরকর্মীকে ব্যানারসহ গ্রেফতার করেন। এ বিষয়ে মোহাম্মদপুর থানায় তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। সাড়ে ১১টার দিকে মোহাম্মদপুর বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে হরতালে নাশকতা সৃষ্টির অভিযোগে শ্রমিক দলের নেতা পিন্টুকে গ্রেফতার করা হয়।

রাজধানীর বাইরে চট্টগ্রাম অফিস থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানিয়েছেন, নগরীতে বাসে বোমা নিক্ষেপকারী এক শিবির ক্যাডারকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে সাধারণ মানুষ। দুপুরে তিনপুলের মাথা এলাকায় জনরোষের মুখে পড়ে এই নাশকতাকারী। সাব্বির হোসেন নকিব (২০) নামের এক যুবককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদিকে, হরতাল অবরোধে নাশকতা ঠেকাতে সর্বোচ্চ তৎপর রয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। গত শনিবার রাতে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে বিএনপি ও জামায়াতের ১১ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সিএমপির কোতোয়ালি থানা পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা পৌনে ১টার দিকে রিয়াজুদ্দিন বাজার থেকে কয়েক যুবক এসে তিনপুলের মাথা এলাকার টাওয়ার ইন হোটেলের সামনে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। তারা বাস লক্ষ্য করে ও ঐ স্থানে মোট তিনটি বোমা ছোড়ে। কিন্তু পালিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় লোকজন ‘ধর ধর’ চিৎকার করে এগিয়ে আসে। একপর্যায়ে ধাওয়া দিয়ে ধরে ফেলে শিবির ক্যাডার সাব্বির হোসেন নকিবকে। এরপর ক্ষুব্ধ সাধারণ লোকজন গণধোলাই দিয়ে এ শিবির ক্যাডারকে পুলিশে হস্তান্তর করে। কোতোয়ালি থানা সূত্রে জানা যায়, গণধোলাইয়ের শিকার শিবির ক্যাডার নকিব কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার বড়ইতলী গ্রামের বেলাল হোসাইন মাস্টারের পুত্র। সে আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ প্রথমবর্ষের ছাত্র। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থাসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় নাশকতাকারীদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শনিবার রাতে সীতাকুন্ড এবং সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া উপজেলায় অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় ১১ জনকে। আটকদের মধ্যে ৫ জন বিএনপি এবং ৬ জন জামায়াত-শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তাদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ও নাশকতার অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে ছাত্র শিবিরের চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি ২৪ মামলার আসামি তারেক হোসাইনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার দুপুরে নগরীর শাহ আমানত সেতু এলাকায় ধাওয়া করে শিবিরের এ নেতাকে গ্রেফতার করা হয়। সাম্প্রতিক সময়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া এবং চট্টগ্রাম নগরীতে সংঘটিত বিভিন্ন নাশকতা ও সহিংসতার ঘটনায় তারেক হোসাইনের নেতৃত্ব রয়েছে। তাকে পুলিশ খুঁজছিল। পালিয়ে যাওয়া তিনজনকে ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে। হরতালে চট্টগ্রামে জনজীবন ছিল সম্পূর্ণ স্বাভাবিক। সড়কে সাধারণ কর্মদিবসের মতই যানবাহন চলাচল করেছে। সব ধরনের অফিস ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান খোলা ছিল। শিল্পাঞ্চলগুলোতেও কর্মচাঞ্চল্য ছিল স্বাভাবিক। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দূরপাল্লার যাত্রীবাহী বাস চলাচল সীমিত থাকলেও অন্যান্য সকল যানবাহন চলাচল করেছে। পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানগুলো চলে স্বাভাবিক কর্মদিবসের মতই। বন্দর অভ্যন্তরে পণ্য উঠানামা যেমন স্বাভাবিক ছিল তেমনিভাবে পণ্য ডেলিভারিও হয়েছে।

রাজশাহীতে যানবাহনে হামলা ও পেট্রোল বোমা মেরে একটি বাস ও ট্রাক পোড়ানোর ঘটনায় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু ও সিটি মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলসহ বিএনপি-জামায়াতের ৮৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। শনিবার দিবাগত রাত ২টার দিকে পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আশরাফুজ্জামান বাদী হয়ে মতিহার থানায় মামলাটি দায়ের করেন। রাজশাহী কলেজ ছাত্র শিবিরের সভাপতি সারোয়ার আলম সিদ্দিকীকে প্রধান আসামি করে এ মামলায় ৪৫ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। মামলায় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী সিটি মেয়র ও দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে। এদিকে হরতালের আগের রাতে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় পেট্রোল বোমা হামলায় চালের ট্রাক উল্টে আগুন ছড়িয়ে ১০টি চামড়ার আড়ত পুড়ে গেছে। পুঠিয়া থানার পরিদর্শক হাফিজুর রহমান হাফিজ জানান, শনিবার রাত ৯টার দিকে বেলপুকুর রেল ক্রসিং এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষে ১২ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। রবিবার সকাল ১১টার দিকে সরাইল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় এ সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল হক, সংবাদকর্মী শফিকুর রহমান রয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল ১১টার দিকে হরতালের সমর্থনে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহীদ মিনার এলাকায় এলে পুলিশকে লক্ষ্য করে মিছিলকারীরা ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়। একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়।

নাটোরে পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারার পর নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে পড়ে গেছে ট্রাক। এতে ট্রাকের চালকসহ তিনজন আহত হয়েছেন। শনিবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে। আহত ব্যক্তিরা হলেন ট্রাকের চালক নজরুল ইসলাম, চালকের সহকারী জাহাঙ্গীর আলম ও পেঁয়াজ ব্যবসায়ী শাহীন আলম।

বরিশালে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে আগুন ধরিয়ে দেয় হরতালকারীরা। তবে কোনো যাত্রী আহত হননি। রংপুরের মিঠাপুকুরে চলন্ত বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে শিশুসহ ছয় জনকে পুড়িয়ে মারার অভিযোগে রবিবার পর্যন্ত পুলিশ ৩৬ জনকে গ্রেফতার করেছে। ১৩ জানুয়ারি রাতে মিঠাপুকুরের বাতাসন ফতেপুর এলাকায় খলিল এন্টারপ্রাইজের বাসে পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারা হলে ছয়জন অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যান।

ফেনীতে সাতটি পেট্রোল বোমা ও একটি ককটেলসহ বোমা আজিম নামে যুবদলের এক কর্মীকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। তাকে শহরের পানি উন্নয়ন বোর্ড এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী শহরের পশ্চিম ডাক্তার পাড়ার আড্ডাবাড়িতে তাকে নিয়ে অভিযান চালায়। এ সময় টিএনটি টাওয়ারের নিচের একটি কক্ষ থেকে ব্যাগের ভেতর রক্ষিত সাতটি পেট্রোল বোমা ও একটি ককটেল উদ্ধার করহয়। গ্রেফতারকৃত আজিমের বিরুদ্ধে হরতাল অবরোধে গাড়ি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও ছিনতাইসহ একাধিক মামলা রয়েছে। ঝালকাঠিতে লঞ্চে পেট্রোল বোমা হামলার ঘটনায় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপূরসহ আট জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সাভারে মহাসড়কে চলাচলের সময় ৫টি গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। এ সময় বাস-প্রাইভেটকারের ছয়জন যাত্রী আহত হন। সকাল ৯টার দিকে সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে সাভারের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন।

কুমিল্লার দৌলতপুরে শিবির পরিচালিত একটি মেস থেকে নাশকতার কাজে ব্যবহৃত উপকরণসহ শিবিরের ৪ কর্মীকে আটক করেছে গায়েন্দা পুলিশ।

দৌলতপুরে ছায়াবিতান এফ রহমান হাউজ নামে এক মেসে এ অভিযান চালায় ডিবি পুলিশ। এ সময় ২০টি জর্দার খালি কৌটা, ৫টি লাল টেপ, ৫০০ গ্রাম পাথরের ছোট ছোট টুকরা, ৭ পিস পাইপের টুকরা, ৩টি হকিস্টিক, শিবিরের রিপোর্ট বই, চাঁদা আদায়ের রশিদ, জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার ছবি সম্বলিত শাহাদৎ বার্ষিকী লেখা পোস্টার, শিবিরের লিফলেট ও ব্যানার উদ্ধার করা হয়। ঘটনায় কোতোয়ালি মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করা হয়েছে। চৌদ্দগ্রাম উপজেলার হায়দারপুল এলাকায় একটি কাভার্ডভ্যানে আগুন দিয়েছে অবরোধকারীরা। এ সময় ৬টি বাস ও ট্রাক ভাঙচুর করে তারা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলায় বোমা তৈরির সময় নয়ন (২৬) নামে বিএনপির এক কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। এ সময় তার কাছ থেকে চারটি পেট্রোল বোমা ও পাঁচটি ককটেল উদ্ধার করা হয়। আটক বিএনপি কর্মী নয়ন ভোলাহাটের মুসরিভূজা সোনারপাড়া গ্রামের ফজলুল হকের ছেলে। এলাকাবাসী ও ভোলাহাট থানা পুলিশ জানায়, রবিবার সকালে ভোলাহাট উপজেলার দলদলী ইউনিয়ন পরিষদের একটি পুরানো ভবনে হাত বোমা তৈরি করা হচ্ছে, এমন খবর পেয়ে ভোলাহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। এ সময় বোমাসহ নয়নকে আটক করা হয়। ভোলাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দেওয়ান কৌশিক আহম্মেদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নয়ন ভোলাহাট উপজেলার দলদলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দুরুল হোদা খুনের অন্যতম পলাতক আসামি।

নাশকতামূলক কর্মকা-ের আশঙ্কায় মানিকগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আওলাদ হোসেনকে (৩০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আওলাদ নাশকতাসহ একাধিক মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি। নোয়াখালীতে নাশকতার অভিযোগে বিএনপি ও জামায়াতের ২৮ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। দিনাজপুরে নাশকতা এড়াতে দিনাজপুর জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের ১২ কর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গাইবান্ধায় বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের ১৭ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে যৌথবাহিনীর সদস্যরা। সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিয়ালকোলে এলজিইডি অফিস সংলগ্ন অ্যালবাট্রস সিএনজি স্টেশনে ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে।

মেহেরপুর সদর ও গাংনী থানা পুলিশ পৃথক অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও জামায়াতের ৪ কর্মী-সমর্থককে আটক করেছে। যশোরে বিএনপি-জামায়াতের ৮ নেতাকর্মীসহ ৪৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ। হরতালের আগে শনিবার রাতব্যাপী জেলার ৮টি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। সাতক্ষীরার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিএনপি-জামায়াতের ১২ কর্মীসহ ৪২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

নওগাঁয় ররিবার ভোররাতে শহরের পার-নওগাঁয় ঢাকাগামী বাস টার্মিনালে বন্ধ রাখা ৩টি বিলাসবহুল কোচ আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে হরতালকারীরা। ৩টি কোচের মধ্যে একটি পুড়ে ছাড়খার হয়ে গেছে। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেল টিআর ট্রাভেলস্ বাসের হেলপার শাহিন (২৫)। কুড়িগ্রামে নাশকতা কর্মকা-ে জড়িত থাকার অভিযোগ পুলিশ বিশেষ অভিযান চালিয়ে ৬ জামায়াত-শিবির ও ২ বিএনপি কর্মীকে গ্রেফতার করেছে। এদিকে দক্ষিণাঞ্চলের লঞ্চ যাত্রীদের মধ্যে এখন পেট্রোল বোমার আতঙ্ক বিরাজ করছে। গত ১৮ জানুয়ারি ঢাকা-বরিশাল ও ঢাকা-পটুয়াখালী রুটে চলাচলকারী সুন্দরবন-৬ ও পারাবত এবং ২৪ জানুয়ারি টিপু খান নামের দোতলা লঞ্চে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করায় এ আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। তারা এখন লঞ্চে উঠতে ভয় পাচ্ছেন। প্রতিদিন এ নৌরুটে হাজার হাজার যাত্রী যাতায়াত করেন। বিএনপি-জামায়াতের অবরোধে পেট্রোল বোমা আতঙ্কের কারণে লঞ্চগুলোতে এখন যাত্রী কমে গেছে। ব্যবসায়ীরা মালামাল পরিবহন করতে পারছেন না। ধস নেমেছে এ ব্যবসায়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকা-পটুয়াখালীগামী একটি দোতলা লঞ্চের সুপারভাইজার বলেন, এভাবে হরতাল আর অবরোধের নামে সহিংসতা চলতে থাকলে মালিক পক্ষ লোকসান কমাতে যে কোন সময় লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দিতে পারেন।

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫

২৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: