মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

তিন বছরে ৬০০ কোটি ডলার ঋণ দেবে এডিবি

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) বাংলাদেশকে আগামী ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত তিন বছরে ৬০০ কোটি ডলার ঋণ দেবে।

ম্যানিলাভিত্তিক ঋণদাতা সংস্থাটি কান্ট্রি স্ট্র্যাটেজি প্রোগ্রাম (সিএসপি) নামের একটি কৌশলপত্রের মাধ্যমে এ অর্থ দিতে চায় বলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বর্তমানে ২০১১-১৫ সাল পর্যন্ত এডিবির কান্ট্রি পার্টনারশিপ স্ট্র্যাটেজিতে পাঁচ বছরের জন্য ৪৫২ কোটি ১০ লাখ ডলার ঋণ কার্যক্রম চলমান রয়েছে। সে হিসাবে বছরে গড়ে ৯০ কোটি ৪২ লাখ ডলার করে ঋণ দিচ্ছে তারা। নতুন এ কৌশলে বাংলাদেশের বিদ্যুত খাতের উন্নয়ন, আঞ্চলিক বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও কানেক্টিভিটিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

নতুন ঋণের বিষয়ে জানতে চাইলে ইআরডির যুগ্ম সচিব সাইফুদ্দিন আহমেদ বলেন, এডিবি আগামী তিন বছরের ছয় বিলিয়ন ডলারের ঋণ প্রস্তাব ইআরডিতে পাঠিয়েছে। এ বিষয়ে এডিবির সঙ্গে কয়েকটি বৈঠকও অনুষ্ঠিত হয়েছে। আরও বৈঠক রয়েছে। এসব বৈঠকে কোন খাতে কত বরাদ্দ দেয়া হবে, তা ঠিক করা হবে।

ঢাকায় নিযুক্ত এডিবির বহির্সম্পর্ক বিভাগের প্রধান গোবিন্দ বার বলেন, এডিবি বাংলাদেশের উন্নয়ন ও মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার লক্ষ্য অর্জনে নিবিড়ভাবে সম্পৃক্ত থাকতে চায়। তাই এডিবি গত সিএসপির তুলনায় এবার সহযোগিতা আগের যে কোনো সময়ের তুলনায় বাড়াতে চায়। নতুন এ কৌশলে বাংলাদেশের বিদ্যুত খাতের উন্নয়ন, আঞ্চলিক বাণিজ্য সম্প্রসারণ ও কানেক্টিভিটিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

এডিবি ওই প্রস্তাবে কয়েকটি প্রকল্পে নির্দিষ্ট সময়ে অর্থায়নে আগ্রহ দেখিয়েছে। এর মধ্যে জ্বালানি সক্ষমতা, সরবরাহ বৃদ্ধি, নবায়নযোগ্য জ্বালানি এবং আঞ্চলিক বিদ্যুত গ্রিড স্থাপন এবং আঞ্চলিক রেল ও সড়ক যোগাযোগ স্থাপনের প্রকল্পগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে।

দক্ষিণ এশিয়া উপ-আঞ্চলিক অর্থনৈতিক সহযোগিতা (সাসেক) সংযোগ স্থাপন কর্মসূচীর আওতায় মোট পাঁচ প্রকল্পে এডিবি ঋণ দিতে চায়।

২০১৬ সালে সাসেক রেল সংযোগ বিনিয়োগ কর্মসূচীর আওতায় দোহাজারী থেকে কক্সবাজার রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প, একই বছর রেলওয়ে খাত উন্নয়ন কর্মসূচীতেও অর্থায়নের আগ্রহ রয়েছে এডিবির। ২০১৭ সালে অর্থায়ন করতে চায় সাসেক সড়ক কানেকটিভিটি প্রোগ্রাম-২ এর আওতায় হাটিকুমরুল-রংপুর-বুড়িমারী চার লেন প্রকল্পে।

ঢাকা-চট্টগ্রামের ২৩০ কিলোমিটার রেলপথ দ্বৈত গেজে উন্নীত করতে এডিবির ঋণ পাওয়া যাবে ২০১৮ সালে। এ দ্বৈত গেজ ধীরাশ্রম আইসিডি, চট্টগ্রাম বন্দর এবং চট্টগ্রামে নতুন রেল কারখানার সঙ্গে যুক্ত হবে।

উত্তর ভারত থেকে বিদ্যুত আনতে আন্তঃগ্রিড সংযোগ প্রকল্প স্থাপনে এডিবির ঋণ পাওয়া যাবে ২০১৭ সালে। এ গ্রিডের মাধ্যমে ভারত থেকে দুই হাজার মেগাওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুত আমদানি করা যাবে। এই প্রকল্পসহ আগামী তিন বছরে বিদ্যুত-জ্বালানি খাতের মোট ১০টি প্রকল্পে অর্থায়ন করবে এডিবি। ২০১৭ সালে বিদ্যুতের আরও দুটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে দাতা সংস্থাটির অর্থ পাওয়া যাবে। এর মধ্যে রয়েছে খুলনা ৭৫০-৮৫০ মেগাওয়াট এলএনজিভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প এবং মহেশখালী ৬০০ থেকে ৭০০ মেগাওয়াটের দুটি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত প্রকল্প। ২০১৬ সালে দ্বিতীয় বিদ্যুত ব্যবস্থার সম্প্রসারণ এবং বিদ্যুতায়ন উন্নয়ন, প্রাকৃতিক গ্যাস উন্নয়ন ও বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নে কারিগরি সহায়তা দেবে সংস্থাটি। নতুন কৌশলের শেষ বছরে বিদ্যুত ও জ্বালানি খাতের আরও চার প্রকল্পে অর্থায়ন করবে এডিবি। এর মধ্যে তিনটি প্রকল্পই হলো নবায়নযোগ্য জ্বালানি মাধ্যমে বিদ্যুত উৎপাদন প্রকল্প।

প্রকাশিত : ২৫ জুন ২০১৫

২৫/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: