মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

‘পাবলিক প্লেস হবে ফ্রি ওয়াইফাই জোন’

প্রকাশিত : ১১ জুন ২০১৫, ০৫:১০ পি. এম.

অনলাইন রিপোর্টার ॥ আগামী দুই মাসের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণের আওতাধীন গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক প্লেস ফ্রি ওয়াইফাই জোনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র সাঈদ খোকন।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হওয়ায় জাসদের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাঈদ খোকন এ কথা জানান।

ঢাকা দক্ষিণের এ নবনির্বাচিত মেয়র বলেন, রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, লঞ্চ, রেল স্টেশনসহ বড় বড় পাবলিক প্লেস আগামী দুই মাসের মধ্যে ফ্রি ওয়াইফাই জোনের আওতায় আনা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় ঢাকা সিটি করপোরেশনের বড় বড় পাবলিক প্লেস ফ্রি ওয়াইফাই জোন করে দিতে রাজি হয়েছেন বলে জানান তিনি।

রমজানে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়া নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশে উৎসব উপলক্ষ্যে দ্রব্যমূল্যের দাম কমে। কিন্তু আমাদের এখানে কেন বাড়ে তা আমার বোধগম্য নয়।

ইতোমধ্যে পাইকারি ও খুচরা বাজার নিয়ে বৈঠক করে দর ঠিক করে দেওয়া হয়েছে। ব্যবসায়ীরা কথা দিয়েছেন, এবার রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়বে না। আশা করি, এ রমজানে দাম তো বাড়বেই না, বরং কিছু কিছু পণ্যের দাম কমবে। আমি নিজেও এবার বাজার তদারকি করবো, আশ্বস্ত করেন খোকন।

তিনি বলেন, হাজার সমস্যা সংবলিত একটি নগরে একজন মেয়রের পক্ষে সব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়, যতক্ষণ না সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। ভোটাররা ভোট দিয়ে আমাকে যে সম্মান দেখিয়েছেন, সে সম্মান রাখতে জীবন দিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। দলমত নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে ভালো নগর গড়তে চাই।

প্রত্যেকটি বাড়িতে বিনামূল্যে আবর্জনা ফেলার ব্যাগ দেওয়া হবে জানিয়ে সাঈদ খোকন বলেন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে আপনাদের সহযোগিতা চাই।

ঢাকা দক্ষিণের শতকরা ১০ ভাগ স্ট্রিটে লাইট জ্বলত না। ক্ষমতা নেওয়ার পর শব-ই-বরাতের আগেই ৯০ ভাগ স্ট্রিটের লাইট সচল করা হয়েছে। কোনো কারণে স্ট্রিট লাইট নষ্ট হলে তা সিটি করপোরেশনকে জানাতে অনুরোধ করেন তিনি।

বর্ষা মৌসুম শেষ হওয়ার পর সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মধ্যে সিটি এলাকার সব ভাঙা রাস্তা মেরামত করা হবে বলে জানান তিনি। এজন্য ৬ থেকে ৮ মাস সময় চান সাঈদ খোকন।

তিনি বলেন, রাস্তার কাজের ঠিকাদারদের অনেকেই কোনোরকম কাজ করে বিল উঠিয়ে নিয়ে যান। কাজ ভালো হলো কী হলো না, তা দেখেন না তারা। তাই পাড়া-মহল্লার সবাইকে এ কাজের তদারকি করার আহ্বান জানান তিনি। একই সঙ্গে কাজ নিয়ে অসন্তোষ থাকলে তা সরাসরি তাকে জানাতে অনুরোধ করেন খোকন।

অনলাইন রিপোর্টার ॥ আগামী দুই মাসের মধ্যে ঢাকা দক্ষিণের আওতাধীন গুরুত্বপূর্ণ পাবলিক প্লেস ফ্রি ওয়াইফাই জোনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র সাঈদ খোকন।

বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হওয়ায় জাসদের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সাঈদ খোকন এ কথা জানান।

ঢাকা দক্ষিণের এ নবনির্বাচিত মেয়র বলেন, রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, লঞ্চ, রেল স্টেশনসহ বড় বড় পাবলিক প্লেস আগামী দুই মাসের মধ্যে ফ্রি ওয়াইফাই জোনের আওতায় আনা হবে।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য বিষয়ক উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় ঢাকা সিটি করপোরেশনের বড় বড় পাবলিক প্লেস ফ্রি ওয়াইফাই জোন করে দিতে রাজি হয়েছেন বলে জানান তিনি।

রমজানে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়া নিয়ে হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশে উৎসব উপলক্ষ্যে দ্রব্যমূল্যের দাম কমে। কিন্তু আমাদের এখানে কেন বাড়ে তা আমার বোধগম্য নয়।

ইতোমধ্যে পাইকারি ও খুচরা বাজার নিয়ে বৈঠক করে দর ঠিক করে দেওয়া হয়েছে। ব্যবসায়ীরা কথা দিয়েছেন, এবার রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়বে না। আশা করি, এ রমজানে দাম তো বাড়বেই না, বরং কিছু কিছু পণ্যের দাম কমবে। আমি নিজেও এবার বাজার তদারকি করবো, আশ্বস্ত করেন খোকন।

তিনি বলেন, হাজার সমস্যা সংবলিত একটি নগরে একজন মেয়রের পক্ষে সব সমস্যা সমাধান করা সম্ভব নয়, যতক্ষণ না সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। ভোটাররা ভোট দিয়ে আমাকে যে সম্মান দেখিয়েছেন, সে সম্মান রাখতে জীবন দিয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। দলমত নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে ভালো নগর গড়তে চাই।

প্রত্যেকটি বাড়িতে বিনামূল্যে আবর্জনা ফেলার ব্যাগ দেওয়া হবে জানিয়ে সাঈদ খোকন বলেন, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে আপনাদের সহযোগিতা চাই।

ঢাকা দক্ষিণের শতকরা ১০ ভাগ স্ট্রিটে লাইট জ্বলত না। ক্ষমতা নেওয়ার পর শব-ই-বরাতের আগেই ৯০ ভাগ স্ট্রিটের লাইট সচল করা হয়েছে। কোনো কারণে স্ট্রিট লাইট নষ্ট হলে তা সিটি করপোরেশনকে জানাতে অনুরোধ করেন তিনি।

বর্ষা মৌসুম শেষ হওয়ার পর সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মধ্যে সিটি এলাকার সব ভাঙা রাস্তা মেরামত করা হবে বলে জানান তিনি। এজন্য ৬ থেকে ৮ মাস সময় চান সাঈদ খোকন।

তিনি বলেন, রাস্তার কাজের ঠিকাদারদের অনেকেই কোনোরকম কাজ করে বিল উঠিয়ে নিয়ে যান। কাজ ভালো হলো কী হলো না, তা দেখেন না তারা। তাই পাড়া-মহল্লার সবাইকে এ কাজের তদারকি করার আহ্বান জানান তিনি। একই সঙ্গে কাজ নিয়ে অসন্তোষ থাকলে তা সরাসরি তাকে জানাতে অনুরোধ করেন খোকন।

প্রকাশিত : ১১ জুন ২০১৫, ০৫:১০ পি. এম.

১১/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: