আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কুয়েতে বাংলাদেশ ট্রেড ফেয়ার এপ্রিলে

প্রকাশিত : ১৫ মার্চ ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ২৩ এপ্রিল কুয়েতে দ্বিতীয়বারে মতো অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ট্রেড ফেয়ার। তিন দিনব্যাপী এ মেলা অনুষ্ঠিত হবে কুয়েতের মিশরেফ শহরের ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড ফেয়ার গ্রাউন্ডে। মেলায় বাংলাদেশের ১০০টি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণের কথা রয়েছে।

শনিবার রাজধানীর বিজয়নগরে হোটেল-৭১ এ কুয়েত-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত ‘মিট দ্য প্রেস’ অনুষ্ঠানে চেম্বারের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

চেম্বারের সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল মতিন ভূঁইয়া লিখিত বক্তব্যে বলেন, মেলা শুরু হওয়ার প্রথম বছরে ২০১০-২০১১ অর্থবছরে কুয়েতে বাংলাদেশের রফতানি ছিল ১৫ বিলিয়ন ডলার আর আমদানি ছিল ১ বিলিয়ন ডলারের বেশি। কুয়েত থেকে জ্বালানি তেল ও পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থ আমদানি করা হয়। মাত্র কয়েক বছরের ব্যবধানে ২০১৩-২০১৪ সালে কুয়েতে বাংলাদেশের রফতানি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৫ মিলিয়ন ডলার, যা বর্তমান সরকার ও আমাদের মেলা আয়োজনের সফলতা। আমরা কুয়েতে বাংলাদেশী ব্রান্ড তৈরি করতে চাই।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে অনেক প্রতিষ্ঠান তাদের স্টল বুকিং দিয়েছে। এবারের মেলায় জনশক্তি রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান, ওষুধ শিল্প, সিরামিক, পাটজাত পণ্য ও হ্যান্ডিক্রাফটস, ফুড প্রোডাক্টস, গার্মেন্টস শিল্প, চামড়াজাত শিল্প, লেদার গুডস, রিয়েল এস্টেট, পর্যটনসহ আরও বেশ কিছু সেক্টরের প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করবে। বুকিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা শেষ সময় ২০ মার্চ, কোন প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করতে চাইলে এর মধ্যেই বুকিং প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, মেলার উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এছাড়াও কুয়েতের বাণিজ্যমন্ত্রী, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও দুই দেশের রাষ্ট্রদূতের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।

কুয়েত-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট হাবিবুর রহমান বলেন, এই মেলার মাধ্যমে আমরা আমদের দেশীয় পণ্যের বাজার সম্প্রসারণ করতে চাই। কুয়েতে বাংলাদেশী পণ্যের অনেক চাহিদা রয়েছে। গার্মেন্টস পণ্য সরাসরি কুয়েতে রফতানি হয় না, বিভিন্ন দেশ ঘুরে তা কুয়েতের বাজারে প্রবেশ করে। আবার ওষুধের দাম ওখানে অনেক বেশি। বিগত বছরে প্রথমবারের মতো মেলা আয়োজনের সফলতা অনেক। গত মেলা আয়োজনের মাধ্যমে কুয়েতে বাণিজ্য সম্প্রসারণে অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পেরেছি। আশা করছি এবারের মেলা আয়োজনের মাধ্যমে দুই দেশের বাণিজ্য আরও বেশি সম্প্রসারিত হবে।

হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, হরতাল-অবরোধের কারণে মেলার নির্ধারিত সময় একবার পেছাতে হয়েছে। এতে দেশের বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। হরতাল-অবরোধে যাতে মেলা বাধাগ্রস্ত না হয় তাই হরতাল-অবরোধ প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছি। মিট দ্য প্রেসে উপস্থিত ছিলেন বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলার উপদেষ্টা মীর মোতাহের হোসেন, কুয়েত-বাংলাদেশ চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট জাহিদুর রহমান, মোঃ মহসীন, অর্থ-সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ প্রমুখ। মেলার মিডিয়া পার্টনার হিসেবে আছে এটিএন বাংলা।

প্রকাশিত : ১৫ মার্চ ২০১৫

১৫/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: