আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

শিরোপা থেকে এক জয় দূরে বার্সিলোনা

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫
  • স্প্যানিশ লা লীগা, রোনাল্ডোর পেনাল্টি মিসের মাসুল রিয়ালের, বার্সিলোনা ২- রিয়াল সোসিয়েডাড, রিয়াল মাদ্রিদ ২-২ ভ্যালেন্সিয়া

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ স্প্যানিশ লা লীগার শিরোপা পুনরুদ্ধার থেকে আর মাত্র এক জয় দূরে বার্সিলোনা। শনিবার ন্যু-ক্যাম্পে ক্যাটালানরা ২-০ গোলে পরাজিত করে রিয়াল সোসিয়েডাডকে। পরের ম্যাচে সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে ভ্যালেন্সিয়ার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র করে রিয়াল মাদ্রিদ। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীরা পয়েন্ট খোয়ানোয় শিরোপার পথে এক পা দিয়ে রেখেছেন মেসি, নেইমার, সুয়ারেজরা। ১৭ মে লীগের পরের ম্যাচে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদকে হারাতে পারলেই এক ম্যাচ হাতে রেখে শিরোপার স্বাদ পাবে বার্সিলোনা।

নেইমার ও পেড্রোর গোলে আগের ম্যাচে বার্সা জয় পাওয়ায় শিরোপা রেসে থাকতে জয়ের বিকল্প ছিল না রিয়ালের। কিন্তু ঘরের মাঠে ব্যর্থতার পাশাপাশি দুর্ভাগ্যও ভর করে ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের। শুরুতেই দুই গোলে পিছিয়ে পড়া রিয়ালের একাধিক প্রচেষ্টা সাইডপোস্ট ও বারপোস্টে প্রতিহত হয়। এছাড়াও দলের সেরা তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো মিস করেন পেনাল্টি। হারের শঙ্কায় থাকা দলটি বিরতির পর পেপে ও ইস্কোর গোলে হারের লজ্জা থেকে পরিত্রাণ পায়। কিন্তু শিরোপা রেসে থাকতে জয়ের বিকল্প ছিল না। ম্যাচ শেষে তাই সি আর সেভেনের পেনাল্টি মিসের আফসোসেই পুড়তে হয়েছে কার্লো আনচেলোত্তির দলকে।

বর্তমানে ৩৬ ম্যাচ শেষে ৯০ পয়েন্ট ভা-ারে শীর্ষে থাকা বার্সার। সমান ম্যাচে ৮৬ পয়েন্ট রিয়ালের। এখন যে অবস্থা তাতে মেসি-নেইমাররা তাদের শেষ দুই ম্যাচে হোঁচট খেলেই শুধু সম্ভাবনা থাকবে রোনাল্ডো, বেল, রামোসদের। কিন্তু সেই সুযোগ দিতে নারাজ এনরিকের শিষ্যরা। পরের ম্যাচে এ্যাটলেটিকোকে হারিয়েই শিরোপা জয়ের উৎসবের প্রস্তুতি এখন ন্যু-ক্যাম্পের দলটির।

সোসিয়েডাডের বিরুদ্ধে শেষ তিনবারের দেখায় জয়বঞ্চিত ছিল বার্সা। অবশেষে সেই হতাশা কাটিয়ে দাপুটে জয় পেয়েছে ক্যাটালানরা। শুরু থেকেই আধিপত্য বিস্তার করে খেলতে থাকা স্বাগতিকরা প্রথমার্ধে গোল মিসের মহড়ায় মেতে ওঠেন। ম্যাচের অষ্টম মিনিটে মেসি, ১২ মিনিটে নেইমার, ২৮ মিনিটে জেরার্ড পিকে ও ৩৩ মিনিটে সুয়ারেজ সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন। যে কারণে প্রথম ৪৫ মিনিট গোলবঞ্চিত থেকে মাঠ ছাড়তে হয় বার্সাকে। বিরতির পর গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে লা লীগার ২২ বারের চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচের ৫১ মিনিটে মেসি-নেইমার জুটিতে কাক্সিক্ষত গোল পায় বার্সিলোনা। ডানদিক থেকে আর্জেন্টাইন অধিনায়কের দারুণ ক্রস সোসিয়েডাডের এক খেলোয়াড় হেড করে ফেরানোর চেষ্টা করেও পারেননি। বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে দারুণ হেডে লক্ষ্যভেদ করেন ব্রাজিলিয়ান অধিনায়ক নেইমার।

ম্যাচের ৮৫ মিনিটে দৃষ্টিনন্দন বাইসাইকেল কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পেড্রো। মেসির বাড়ানো বল প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে উপরে উঠে যায়। আর চলতি বলেই অসাধারণ গোলটি করেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার। শেষ পর্যন্ত দুই গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বার্সা।

শিরোপা লড়াইয়ে টিকে থাকতে অতিথি ভ্যালেন্সিয়ার দুর্গে শুরু থেকেই চড়াও হয়ে খেলতে থাকে রিয়াল। ম্যাচের ১৪ মিনিটে প্রথম দারুণ সুযোগ পায় রিয়াল। কিন্তু ডি বক্সের বাইরে থেকে গ্যারেথ বেলের দুর্দান্ত শট পোস্টে লেগে প্রতিহত হয়। চার মিনিট পর আবারও পোস্ট বাধা হয়ে দাঁড়ায় রিয়ালের সামনে। এবার ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর হেড প্রতিহত হয়। গোলবঞ্চিত রিয়াল পরের মিনিটেই গোল খেয়ে বসে। স্বদেশী মিডফিল্ডার জোশে গায়ারের ক্রসে ডান পায়ের শটে রিয়ালের জালে বল জড়ান ভ্যালেন্সিয়ার স্প্যানিশ স্ট্রাইকার পাসো আলকাসার। তিন মিনিট পর আরেকটি সুযোগ নষ্ট করেন সি আর সেভেন। উল্টো ২৬ মিনিটে আরও একটি গোল হজম করে স্বাগতিকরা। বার্নাব্যুর দর্শকদের হতভম্ব করে দানিয়েল পারেহোর ক্রসে হেড করে ভ্যালেন্সিয়াকে দুই গোলে এগিয়ে নেন ফুয়েগো মার্টিনেজ।

অপ্রত্যাশিতভাবে দুই গোলে পিছিয়ে পড়ার পর আক্রমণের ধার আরও বাড়িয়ে দেয় রিয়াল। কিন্তু ৪০ মিনিটে তৃতীয়বারের মতো তাদের আক্রমণ প্রতিহত হয় পোস্টে লেগে। এবার ভাগ্যবিড়ম্বনার শিকার জ্যাভিয়ের হার্নান্দেজ। রিয়ালের আক্রমণ ভাগের তিন তারকার সবার প্রচেষ্টা পোস্টে লাগার হতাশা আরও বাড়ে রোনাল্ডোর পেনাল্টি মিসে। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে ভ্যালেন্সিয়ার গায়া নিজেদের ডি বক্সের মধ্যে ওয়েলসের ফরোয়ার্ড বেলকে ফাউল করলে পেনাল্টি পায় রিয়াল। কিন্তু দলের প্রয়োজনীয় মুহূর্তে গোলরক্ষকের বাধাই এড়াতে পারেননি পর্তুগীজ তারকা। বিরতির পরও আক্রমণের ধার ধরে রাখে স্বাগতিকরা। অবশেষে ৫৬ মিনিটে জেমস রড্রিগুয়েজের কর্নারে হেড করে বল জালে পাঠিয়ে ম্যাচে ফেরার আশা জাগান পর্তুগীজ ডিফেন্ডার পেপে। ৮৪ মিনিটে ডি বক্সের অনেকটা বাইরে থেকে দ্রুতগতির আচমকা শটে বল জালে জড়িয়ে দলকে স্বস্তির সমতায় ফেরান মিডফিল্ডার ইস্কো। বাকি সময়ে আর গোল না পাওয়ায় হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় রিয়ালকে।

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫

১১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: