রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

শিল্পীর ক্যানভাসে মানবতার কল্যাণ, সহিংসতার প্রতিবাদ

প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
শিল্পীর ক্যানভাসে মানবতার কল্যাণ, সহিংসতার প্রতিবাদ
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আসমানী জমিনে আবৃত ক্যানভাস। সেই চিত্রপটে দৃশ্যমান এক বালিকা। কোন এক সড়কে দাঁড়িয়ে আছে গোলাপী পোশাক পরিহিত নিষ্পাপ শিশুটি। তার চারপাশে ছড়িয়ে আছে অগ্নিনির্বাপক কিছু সিলিন্ডার। আর পেছনেই আগুনের লেলিহান শিখায় পুড়ছে বিকল্প বাস। বিশ্বজিৎ গোস্বামীর আঁকা এ ছবিটি এখন ঝুলছে ধানম-ির গ্যালারি চিত্রকের দেয়ালে। চলমান রাজনৈতিক সহিংসতার বিরুদ্ধে শিল্পীদের প্রতিবাদী প্রকাশের এমন আরও অনেক ছবি ঠাঁই পেয়েছে এ প্রদর্শনালয়টিতে। এখানে চলছে ‘মানবতার পক্ষে, সহিংসতার বিরুদ্ধে চিত্রকর্ম’ শীর্ষক প্রদর্শনী। চলমান রাজনৈতিক নৃশংসতার প্রতিবাদী প্রকাশের এ প্রদর্শনীতে অংশ নিয়েছেন দেশের নবীন-প্রবীণ, খ্যাতিমান ও বরেণ্য ৫০ শিল্পী। মানবহিতৈষী এসব চিত্রশিল্পীর পঞ্চাশটি চিত্রকর্ম দিয়ে সাজানো হয়েছে প্রদর্শনী। আর প্রদর্শিত ছবিগুলোর বিক্রিত অর্থের পুরোটাই দান করা হবে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক সন্ত্রাসের শিকার অগ্নিদগ্ধদের। যৌথভাবে প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে বৃত্তান্ত ’৭১ ফাউন্ডেশন ও গ্যালারি চিত্র।

মঙ্গলবার বসন্তের সন্ধ্যায় তিন দিনব্যাপী এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। মানবতার পক্ষে ও সহিংসতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদী এ প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশ্ববরেণ্য চিত্রশিল্পী শাহাবুদ্দিন আহমেদ ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ

মাহমুদ চৌধুরী। প্রদর্শনীর আয়োজন সম্পর্কে কথা বলেন, বৃত্তান্ত ’৭১ ফাউন্ডেশনের সভাপতি মুহাম্মদ তানভীর। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন চিত্রকের নির্বাহী পরিচালক চিত্রশিল্পী মোঃ মনিরুজ্জামান।

দেশের ক্রান্তিলগ্নে শিল্পীসমাজের তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন শাহাবুদ্দিন আহমেদ। প্রদর্শনীর উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতার আগে প্রদর্শনালয়ে কথা হয় তাঁর সঙ্গে। তিনি বলেন, চলমান রাজনৈতিক সহিংসতার প্রধান শিকার হচ্ছে খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। এটা হার মানিয়েছে অতীতের যে কোন পৈশাচিকতাকে। প্রতিদিনই মানুষ পুড়িয়ে মারার ঘটনা ঘটছে। ভয়ংকর পেট্রোলবোমার আঘাতে ঝলসে যাচ্ছে মানুষের শরীর। আর এমন দুঃসময়ে আমরা শিল্পীরা না ভাবলে কে ভাববে? আমাদের প্রত্যাশা মানবিক ও সুস্থ-সুন্দর জীবন। আর সেই চাওয়া থেকেই এ প্রতিবাদী শিল্পকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিল্পী হিসেবে রং-তুলির আশ্রয়ে ক্যানভাসে প্রকাশিত হয়েছে আমাদের প্রতিবাদ-প্রতিরোধের ভাষা।

পঞ্চাশ শিল্পীর সৃজনের বৈভবে বৈচিত্র্যময়তা পেয়েছে প্রদর্শনীটি। লাল-কালো-সাদা ও হলুদ রঙের আপন চিত্রপটটি সৃজন করেছেন সমরজিৎ রায় চৌধুরী। বিশাল ক্যানভাসে অনেকটা স্পেস সাদা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে সহিংসতা কিংবা নৃশংসতার চিত্র। প্রাণঘাতী আগুনের লেলিহান শিখার ভেতর দিয়ে দিয়ে মেলে ধরেছেন নারী-পুরুষ ও শিশুর অসহায় অবয়ব। তাদের পাশ থেকে যেন জেগে উঠেছে কালোরূপী হিংস্র দানব। ভয়ঙ্করভাবে মূর্তমান সেই দানবের হিংস্র থাবা। সহিংসতাবিরোধী এমন চিত্রকর্মের পাশাপাশি নদী, নিসর্গ, সবুজ-শ্যামল গ্রামবাংলা, পথশিশুর সঙ্গে পাখির সখ্যতা, মাতৃস্নেহসহ যাপিত জীবনের নানা বিষয় উঠে এসেছে প্রদর্শনীতে।

প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণকারী শিল্পীরা হলেনÑ সৈয়দ জাহাঙ্গীর, মুস্তাফা মনোয়ার, সমরজিৎ রায় চৌধুরী, হাশেম খান, রফিকুন নবী, মনিরুল ইসলাম, শাহাবুদ্দিন আহমেদ, শহীদ কবির, কালিদাস কর্মকার, হামিদুজ্জামান খান, আবদুস শাকুর শাহ, আল বারক আলভী, আবদুল মান্নান, বীরেন সোম, স্বপন চৌধুরী, নাঈমা হক, ফরিদা জামান, অলকেশ ঘোষ, নাসিমা আহমেদ নাদভি, রণজিৎ দাশ, মোহাম্মদ ইউনুস, জামাল আহমেদ, মোস্তাফিজুল হক, রুহুল আমিন কাজল, রোকেয়া সুলতানা, নাসরিন বেগম, তরুণ ঘোষ, শামসুদ্দোহা, রেজাউন নবী, নিসার হোসেন, ওয়াকিলুর রহমান, সৈয়দ হাসান মাহমুদ, শেখ আফজাল, শিশির ভট্টাচার্য, আতিয়া ইসলাম এ্যানি, খালিদ মাহমুদ মিঠু, কনক চাঁপা চাকমা, আহমেদ নাজির, মোহাম্মদ ইকবাল, জহির উদ্দীন, রুখসানা সাঈদা আখতার, সৈয়দ জাহিদ ইকবাল, রশিদ আমিন, আনিসুজ্জামান, কাজী সালাউদ্দীন আহমেদ, দ্রাবিড় সৈকত, শাহজাহান আহমেদ বিকাশ, ময়জুদ্দীন, আবদুস সাত্তার, বিশ্বজিৎ গোস্বামী, মোঃ কামালউদ্দীন ও মোঃ মনিরুজ্জামান। তিন দিনের এ প্রদর্শনী শেষ হবে বৃহস্পতিবার। সকাল ১০টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের খোলা থাকবে।

শিল্পকলা পদক পাচ্ছেন সাত গুণীজন ॥ শিল্পকলার বিভিন্ন শাখায় বিভিন্ন শাখায় অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ৭ গুণীজন পাচ্ছেন শিল্পকলা পদক ২০১৪। এদের মধ্যে নৃত্যকলায় ওস্তাদ বজলুর রহমান বাদল, কণ্ঠসঙ্গীতে প-িত অমরেশ রায় চৌধুরী, যন্ত্রসঙ্গীতে প-িত মদন গোপাল দাস, চারুকলায় সৈয়দ আবদুল্লাহ্ খালিদ, আবৃত্তিতে আশরাফুল আলম, নাটকলায় লাকী ইনাম ও আলোকচিত্রে ড. শহিদুল আলম। বৃহস্পতিবার প্রদান করা হবে এ পদক।

প্রকাশিত : ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৮/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: