আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে যাচ্ছে পেট্রোলবোমায় পুড়িয়ে মারার মামলা

প্রকাশিত : ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

শংকর কুমার দে ॥ বিএনপি-জামায়াত জোটের টানা অবরোধ-হরতালের নামে পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়িয়ে মারা নাশকতার ঘটনায় দায়ের করা এক ডজন মামলা সন্ত্রাসবিরোধী আইনে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। বিচারে দোষী সাব্যস্ত হলে সর্বোচ্চ শাস্তি হচ্ছে মৃত্যুদ-। বিচার হবে ১৮০ দিনের মধ্যে। এ মামলার আসামিরা জামিন পাওয়ার অযোগ্য। এর মধ্যে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে একাধিক মামলায় হুকুমের আসামি করা হয়েছে। যেই এক ডজন মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য বিবেচনায় নেয়া হচ্ছে সেই মামলাগুলো হচ্ছে জনগণের অনুভূতিতে নাড়া দেয়া চাঞ্চল্যকর ঘটনা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে এ খবর জানা গেছে। সূত্র জানান, যে এক ডজন মামলার বিচার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য নির্বাচিত করা হচ্ছে তার মধ্যে এক নম্বর মামলাটি হচ্ছে, গত ২৩ জানুয়ারি গ্লোরী পরিবহনের একটি বাস ঢাকা থেকে নরসিংদী যাওয়ার পথে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর কাঠেরপুলের কাছে ছুড়ে মারা পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়েছেন ৩০ জন। অগ্নিদগ্ধদের মধ্যে একজন ঠিকাদার মারা গেছেন। দ্বিতীয় মামলাটি হচ্ছে, গত ৪ ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে কক্সবাজার থেকে ঢাকার পথে আইকন পরিবহনের একটি বাস কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম এলাকায় আসার পর ছুড়ে মারা হয় পেট্রোলবোমা। পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে দ্বগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই ৭ জন নিহত হন এবং দগ্ধ হয় ২৩ জন যাত্রী। তৃতীয় মামলাটি হচ্ছে, গত ১৫ জানুয়ারি রাতে বিজিবির পাহারায় ঢাকা আসার পথে রংপুরের মিঠাপুকুরে খলিল পরিবহনের একটি চলন্ত বাসে ছুড়ে মারা পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়ে ৫ জন নিহত এবং ২৩ জন আহত। চতুর্থ মামলাটি হচ্ছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টায় গাইবান্ধায় পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেটের পাহারায় চলমান নাফু পরিবহনের একটি বাসে পেট্রোলবোমা হামলায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে ৫ জন নিহত এবং আহত হয় আরও ৩০ জন। পঞ্চম মামলাটি হচ্ছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাত পৌনে ১১টায় ময়মনসিংহ শহরের টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশের সামনেই যাত্রীবাহী একটি বাসে পেট্রোলবোমা হামলায় তিন যাত্রী দগ্ধ হয়। ষষ্ঠ মামলাটি হচ্ছে, গত ১১ ফেব্রুয়ারিতে ফেনীতে পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে ৫ হাজার মুরগির বাচ্চা পুড়ে ছাই হয়ে যায়। একই দিনে ময়মনসিংহে পেট্রোলবোমায় ট্রাকের এক চালক দগ্ধ হওয়ার সময়ে হাতে-নাতে ধরা পড়েছে এক যুবদল নেতা। সপ্তম মামলাটি হচ্ছে, গত ৯ ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা-চট্রগ্রামের গজারিয়া উপজেলার জামালদি বাসস্ট্যান্ডে পেট্রোলবোমায় পুড়ে ছাই হয়ে গেছে শিশুদের ৩৮ হাজার পাঠ্য বই। একই দিনে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় কাভার্ডভ্যানে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে ১১ হাজার মুরগি পুড়িয়ে ছাই করে দেয়া হয়েছে। অষ্টম মামলাটি হচ্ছে, গত ৭ ফেব্রুয়ারিতে বরিশালের গৌরনদীতে পণ্যবাহী ট্রাকে পেট্রোলবোমায় দগ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন তিন জন। নবম মামলাটি হচ্ছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারিতে গাইবান্ধায় ঢাকাগামী বাসে পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে শিশুসহ ৪ জন নিহত ও দগ্ধ হয়েছেন ৩০ জন। দশম মামলাটি হচ্ছে, গত ৫ ফেব্রুয়ারিতে গাজীপুরের তুরাগ এক্সপ্রেসে আগুন দেয়া হয়। এগারো নম্বর ঘটনার মামলাটি হচ্ছে, গত ৩ ফেব্রুয়ারিতে লক্ষ্মীপুরে পেট্রোলবোমার আগুনে দগ্ধ এক চালকের মৃত্যু ঘটার ঘটনাটি। বারো নম্বরের ঘটনার মামলাটি হচ্ছে, গত ২ ফেব্রুয়ারিতে গাজীপুরে ট্রেনে পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়েছেন ৭ জন।

সূত্র জানান, প্রাথমিকভাবে এক ডজন মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচারের জন্য নির্বাচিত করা হলেও যাচাই-বাছাই করে আরও মামলা সংযোজন করা হতে পারে। টানা ৪১ দিনের অবরোধ-হরতালে ৮৭ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ৫৩ জন নিহত হয়েছে ছুড়ে মারা পেট্রোলবোমার আগুনে পুড়ে। পেট্রোলবোমার আগুনে ছুড়ে মারাসহ বোমাবাজি, ভাংচুরে, আগুনে পুড়েছে সহস্রাধিক যানবাহন। এ সব ঘটনায় দুই শতাধিক মামলা হয়েছে। এখনও বেশিরভাগ আসামি ধরাই পড়েনি।

সূত্র জানান, রাজধানীতে গত একচল্লিশ দিনের অবরোধ-হরতালে নাশকতা ঘটানোর সময়ে হাতে-নাতে ধরা পড়েছে ১০৬ জন। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলের নেতাকর্মীর সংখ্যা ৬৭ জন ও জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মী ৩৯ জন। ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেয়া হয়েছে ২৮ জনকে। এর মধ্যে বিএনপির ২৬ জন ও জামায়াত-শিবিরের ২ জন। রাজধানীর ৪৯ থানায় ১৬৭টি মামলা দায়ের করা হয়। এসব মামলার আসামিরা হচ্ছে, বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও জামায়াতÑশিবিরের নেতাকর্মী। সূত্র জানান, যাত্রাবাড়ীর বোমা হামলার পরে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি দেখিয়ে আরও ১৮ জন কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতার নামে মামলা দায়ের করে পুলিশ। এছাড়াও কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের ঘটনার পরে ২টি মামলাতেও খালেদা জিয়াকে হুকুমের আসামি করা হয়। কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের ঘটনার পর ঘটনাস্থলে গেছেন রেলমন্ত্রী র‌্যাব, পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা। ঘটনাস্থলে সভা করে তারা এ ঘটনায় দায়ী ও দোষীদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর অঙ্গীকার করেছেন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, যেসব সন্ত্রাসী ও নাশকতার মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে করার জন্য নির্বাচিত করা হবে তা জেলা পর্যায় থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। পুলিশের একজন উর্ধতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিএনপি-জামায়াত জোট গত ৫ জানুয়ারি থেকে দেশব্যাপী অবরোধ-হরতালের নামে পেট্রোলবোমার নাশকতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টি অব্যাহত রাখার মুখে শত শত নাশকতার ঘটনা ঘটেছে এবং এখনও ঘটছে। এসব মামলায় যেসব আসামি এখনও চিহ্নিত হয়নি তাদের শনাক্ত করে গ্রেফতারের চেষ্টা করছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। যেসব মামলাগুলো চাঞ্চল্যকর ও গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে সেসব মামলাগুলোকে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে বিচারের ব্যবস্থা করার জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার হলে সন্ত্রাসী ও দুর্বৃত্তদের মধ্যে ভয়ভীতি ও আতঙ্ক দেখা দিবে। অপরাধ করলে শাস্তি পেতে হবেÑ এ আশঙ্কা থেকে পেট্রোলবোমার সহিংস সন্ত্রাসী কর্মকা- কমে আসবে বলে মনে করেন পুলিশ কর্মকর্তা।

প্রকাশিত : ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৬/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: