ঢাকা, বাংলাদেশ   সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯

পরীক্ষামূলক

নিশ্চিহ্ন প্রায় পুরান ঢাকার নিলাম ঘর

সোয়া শ’ বছরের ঐতিহ্যে নির্মম কুঠারাঘাত

মোরসালিন মিজান

প্রকাশিত: ০০:৪৪, ৫ জুলাই ২০২২; আপডেট: ০১:৪০, ৫ জুলাই ২০২২

সোয়া শ’ বছরের ঐতিহ্যে নির্মম কুঠারাঘাত

ঐতিহ্যবাহী নিলাম ঘর

পুরান ঢাকার নিলাম ঘরসোয়া শবছরের পুরনো একটি ভবনমানে, প্রায় ১১৫ বছর আগের কথাতখন থেকে দাঁড়িয়ে আছেএটিকে সাধারণ স্থাপনা ভাবার কোন কারণ নেইনিঃসন্দেহে কালের সাক্ষীঐতিহ্যের অংশঅথচ সে ঐতিহ্যে নির্মম কুঠারাঘাত করা হয়েছেদ্বিতল ভবনের ওপরের তলা এখন প্রায় নিশ্চিহ্ন

হেমার শাবল ইত্যাদি দিয়ে পিটিয়ে গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছেখোদ ঢাকায় ঘটেছে এ ঘটনানা, কোন ভূমিদস্যুর কাজ নয়আইনজীবীদের একটি সংগঠন এ ঘটনা ঘটাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছেআরও ঘোরতর অভিযোগ এই যে, হাইকোর্টের নির্দেশনা সম্পূর্ণ অমান্য করে কাজটি করছেন তারাএ ঘটনায় ঢাকার ঐতিহ্য সচেতন মানুষেরা যারপরনাই বেদনাহতক্ষুব্ধপ্রতিবাদও অব্যাহত রেখেছেন তারাভবনের যেটুকু অবশিষ্ট আছে সেটুকুই সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তারা।   

যত দূর জানা যায়, ব্রিটিশ আমলে রায় সাহেব বাজার সংলগ্ন এলাকায় ভবনটি নির্মাণ করা হয়বর্তমান ঠিকানা ১৫, ১৫/১ কোর্ট হাউস স্ট্রিটঢাকা ডিসি অফিসের ঠিক পেছনে অবস্থিতইতিহাসবিদরা বলছেন, সেই কালে খাজনা দিতে ব্যর্থ হলে অনেকের সম্পত্তি নিলামে তোলা হতোনিলামে সম্পদ বিক্রির সমুদয় কাজ হতো অকশন হাউস বা নিলাম ঘরেপাকিস্তান আমল পর্যন্ত এ ঘরে নিলামে মালামাল বিক্রি হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা গবেষকরা। 

নিলাম ঘর ইউরোপীয় নব্য ধ্রুপদ নির্মাণশৈলীর অনন্য নিদর্শনসারিবদ্ধ খিলান ও করিন্থিয়ান কলাম ভবনটিকে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য দেয়বোধবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ এবং ঐতিহ্যপ্রেমীরা নিলাম ঘর নিয়ে ভীষণ কৌতূহলী ছিলেনবাইরের দেশ থেকে আসা পর্যটকরাও দীর্ঘ যানজট ঠেলে সেখানে ছুটে যেতেনমুগ্ধ হয়ে দেখতেন চুন সুরকি পলেস্তরায় নির্মিত ভবনভবনের নির্মাণশৈলী, কারুকাজ প্রাচীন ঢাকার স্থাপত্য রুচি সম্পর্কে ধারণা দিয়ে আসছিল দর্শনার্থীদের

জানা যাচ্ছে, বর্তমানে নিলাম ঘরটি অর্পিত সম্পত্তিসরকারের কাছ থেকে ১ বছরের জন্য লিজ নিয়ে এটি ব্যবহার করছে আইনজীবীদের সংগঠন ঢাকা আইনজীবী সমিতিমাত্র কিছুদিন আগে লিজ নিয়ে এখন হঠা করেই নিলাম ঘরটি ভাঙ্গা শুরু করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছেঅভিযোগকারীরা বলছেন, ঐতিহ্য বিনষ্ট করে এখানে নতুন বহুতল ভবন নির্মাণ করতে চায় আইনজীবী সমিতিঅনেক দিন ধরেই এমন অশুভ তপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছিলসর্বশেষ গত রবিবার তারা ভবন ধ্বংসের কাজ শুরু করে

পরদিন সোমবার বিকেলে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, সত্যি সত্যি ভবনের ওপরের তলা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছেওপরের দিক থেকে তোলা একাধিক ছবিতে যে অনন্য সাধারণ ভবনটি দেখা যেত এতদিন, সেটি এখন ধুলোবালির স্তূপ! ছবির সঙ্গে কোন মিল নেইভগ্নাংশ দেখে ভেতরটা হু হু করে ওঠেরাজধানী শহরে, শিক্ষিত সচেতন ব্যক্তিদের চোখের সামনে এমন ধ্বংসলীলা চালানো কী করে সম্ভব হলো? কে দেবে উত্তর? দায়িত্বশীল কাউকে পাওয়া গেল নাপরে জানা যায়, প্রথম দিনই নিলাম ঘর গিলে খাওয়ার প্রতিবাদে ভবনের সামনে সমবেত হয়েছিলেন আর্বান স্টাডি গ্রুপ নামের একটি সংগঠনতাদের প্রতিবাদের মুখে আপাতত ধ্বংসযজ্ঞ বন্ধ রয়েছে। 

পরে শাহবাগে গিয়ে দেখা যায়, আর্বান স্টাডি গ্রুপের সদস্য এবং সচেতন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করেছেনতাদের সঙ্গে কথা বলে ঐতিহ্যপ্রেমীদের ভেতরের কান্নাটা অনুধাবন করা যায়। 

প্রতিবাদে অংশ নেয়া তরুণ ফাইয়াজ বলছিলেন, ভবন ভাঙ্গা হচ্ছে খবর পেয়ে তক্ষণাত সেখানে ছুটে গিয়েছিলাম আমরাপ্রতিবাদও করেছিকিন্তু আমরা সংখ্যায় কম ছিলামআইনজীবীরা ছিলেন বেশি

ফাইয়াজের অভিযোগ, আইনজীবী হয়েও তারা চরম অন্যায় করেছেনতাদের একটি অংশ প্রতিবাদকারীদের ওপর চড়াও হয়েছেভবন ভাঙ্গার দৃশ্য ভিডিও করা হয়েছিলসেগুলো ডিলিট করতে বাধ্য করেছেন তারা। 

একই স্থানে কথা হয় গ্রুপের প্রধান নির্বাহী আর্কিটেক্ট তাইমুর ইসলামের সঙ্গেতিনি বলেন, সরকারের শর্ত অনুযায়ী, লিজ নিয়ে ভবনের কোন ক্ষতি করা যাবে নাসংস্কারের নামে স্থাপনার গায়ে হাত দেয়া যাবে নাভাঙ্গা তো দূরের কথাঅথচ তারা ভবনটি গুঁড়িয়ে দিচ্ছেন

আগের কিছু তথ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, আমাদের এক রিটের প্রেক্ষিতে মহামান্য হাইকোর্ট ঢাকার মোট ২২০০ ভবন ভাঙ্গার ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা জারি করেননিলাম ভবন সেগুলোর অন্যতমঅথচ হাইকোর্টের নির্দেশনা অমান্য করে আইনজীবীরাই ভবনটি ভাঙছেনএর চেয়ে ভয়াবহ আর কী হতে পারে

এ ভবন ভাঙ্গা বা ভবনের স্থানে নতুন স্থাপনা নির্মাণ সম্পূর্ণ অবৈধ জানিয়ে তিনি বলেন, সারা দুনিয়াতেই প্রাচীন ভবন ঐতিহ্য হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়এমন অসংখ্য প্রাচীন এবং বিখ্যাত ভবনের কথা আমরা জানিদেশেও এ ধরনের কিছু কাজ হচ্ছেনিলাম ঘরটিও রিস্টোরেশনের মাধ্যমে সংরক্ষণের দাবি জানান তিনিবলেন, ভবিষ্যত প্রজন্মকে আমাদের অতীত সম্পর্কে জানতে দিতে হবেতা না হলে সব উন্নয়ন ব্যর্থ হবেনিশ্চয়ই আমরা এভাবে ব্যর্থ হতে চাই না

ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২
ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার ২০২২