মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ার কে বলে ঝাপসা!

প্রকাশিত : ১৯ জুন ২০১৫
  • মাহবুব রেজা

একটি তৈলচিত্রের দাম বাংলাদেশের টাকায় প্রায় ২৯০ কোটি টাকা, ভাবা যায়! জীবিত শিল্পীদের মধ্যে জার্মান চিত্রশিল্পী গেরহার্ড রিখটার আর সবার চেয়ে এগিয়ে থাকলেন তাঁর তৈলচিত্রে মিলান ক্যাথেড্রাল স্কোয়ার দিয়ে। গত ১৪ মে এ শিল্পকর্মটি নিউইয়র্কের নিলামকারী প্রতিষ্ঠান সদবি’স বিক্রি করেছে ২ কোটি ৪৪ লাখ পাউন্ডে। এর আগেও গেরহার্ডের ‘এ্যাবসট্রাক্টস বিল্ড’ ছবিটি ২ কোটি ১৩ লাখ পাউন্ডে বিক্রি হয়েছিল। ১৫ বছর আগে লন্ডনে সদবি’স মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ার শিল্পকর্মটির দাম উঠেছিল ২৩ লাখ পাউন্ডÑ যা তখনকার দিনে রেকর্ড করেছিল। তখন নিলামকারী প্রতিষ্ঠান সদবি’স ছবিটি বিক্রি না করে রেখে দিয়েছিল। ১৫ বছর পর সদবি’স ছবিটি বিক্রি করে তার লাভ গুনল সুদে-আসলে। ৮১ বছর বয়স্ক রিখটারকে শিল্পবোদ্ধারা বিশ্বের জীবিত শিল্পীদের মধ্যে শ্রেষ্ঠশিল্পী হিসেবেও আখ্যায়িত করছেন। রিখটারের এই ছবিটিকে বিংশ শতকের শিল্পকলার একটি অনন্য নমুনাÑ এ রকম অভিধায় অভিষিক্ত করে বলা হচ্ছে এটি গত শতকের ফটো পেইন্টিং রীতির প্রতীক। মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ার তৈলচিত্রটি ডোম প্লাজ, মেইল্যান্ড নামেও সমধিক পরিচিত। প্রথমে এ ছবিটা দেখে যে কেউই ভাববেন, আরে! এ আবার কেমন তৈলচিত্র, ঝাপসা আর ঘোলাটে! কিন্তু ছবিটিতে ভাল করে দীর্ঘক্ষণ তাকিয়ে থাকতে থাকতে (চিত্রকর্ম দেখার এ এক অলিখিত নিয়ম) আপনার সেই ভ্রম কাটবে। অনেকক্ষণ দেখার পর আপনার সামনে তখন আস্তে আস্তে করে স্পষ্ট হতে শুরু করবে, ঝাপসা আলোকচিত্রের কায়দায় গেরহার্ড রিখটার এক অসাধারণ ফর্মে একটি পরিপাটি নগরের দৃশ্য এঁকেছেন। আবার কারও কারও কাছে ছবিটি শীত-সকালে জমাটবাঁধা পুকুরের নিস্তরঙ্গ পানির মতোও মনে হতে পারে। ছবিতে যেন প্রাণের কোন স্পন্দন নেই। পুরো ক্যানভ্যাসজুড়ে কেমন একটা ‘ফ্রিজ-ফ্রিজ’ ভাব। কিন্তু ছবিটি অভিনিবেশ সহকারে দেখলে তা ভুল বলে প্রমাণিত হবে। একটা ঝাপসা, ম্যাড়ম্যাড়ে আলোকচিত্রের আদলে তৈরি করা তৈলচিত্রের ভেতর যে জলজ্যান্ত নগরীর প্রাণভোমরাকে ফুটিয়ে তোলা যায়, সেটা রিখটার গেরহার্ড বেশ ভাল করেই দেখিয়ে দিয়েছেন।

দুই

মিলান ক্যাথিড্রাল স্কযারÑ গেরহার্ডের এই ছবিটি যখন সংবাদমাধ্যমে এলো, তা দেখে আমার মধ্যে এক অন্য ধরনের অনুভূতির তোলপাড় তুলল। আর আমার মনে হলো, আরে! এই ছবি আর ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড তো আমার বহু দিনের চেনা। মিলান ছেড়ে দেশে এসে থিতু হওয়ার আপ্রাণ চেষ্টা করছি। ভুলেই গিয়েছিলাম আমার প্রিয় মিলান শহর। আমার অতি পরিচিত শহর মিলান। জীবন-জীবিকার তাগিদে এই শহর আমাকে প্রায় ১০ বছর থাকার জায়গা করে দিয়েছিল। কাজ (বিদেশবাড়িতে ‘কাজ’ করাকে ‘কামলা’ দেয়া বলা হয়।) দিয়েছিল। কখনও কখনও এ শহর আমাকে বেকারও রেখেছিল নির্বিকারভাবে। মিলান সেন্ট্রাল স্টেশন থেকে খুব কাছের এক মহল্লায় (ইতালিতে মহল্লাকে বলে জোনা) আমি থাকতাম। দ্রুত মহল্লা পাল্টানোয় সুনাম ছিল বলে বেশ কয়েক মহল্লায় আমার থাকা হয়েছে, যার সবই মিলান সেন্ট্রাল স্টেশনের কাছাকাছি। শহরের প্রাণকেন্দ্রের কাছাকাছি, লোকজনের ভিড়ে, কলরবের স্রোতে থাকার মজাই আলাদা। আর উপশহরে সুবিধা হলো যখন খুশি বাস, মেট্রো, ট্রেন, ট্রাম সবকিছুতেই উঠে পড়া যায়। শহরের বাইরে গেলে বাসের জন্য অনেকক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়। যে কারণে শহর ছেড়ে কেউ খুব একটা বাইরে যেতে চায় না। শহরে কাজ থাকে। পয়সা থাকে। রঙিন আলোও থাকে।

মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ার ছবিটি আসলে যে এলাকায়, তার আশপাশে অনেক বিখ্যাত জাদুঘর, বাড়িঘর, অফিস-আদালত, চিত্রশালা, গ্যালারি, গির্জা, পালাৎসো, ব্যবসাকেন্দ্র, পিয়াজ্জা, ঐতিহাসিক স্থান, পর্যটনকেন্দ্রও আছে। তবে ক্যাথিড্রাল স্কয়ার বলতে সাধারণত যে জায়গাটুকুকে বোঝানো হয়, সেই এলাকার বহু পরিচিত নাম হলো দোমো। ইতালিয়ান ভাষায় উচ্চারিত হয় পিয়াজ্জা দেল দুমো (চ.তঅ উঊখ উটঙগঙ)।

সাধারণত ইতালিতে বসবাসরত বৈধ-অবৈধ বাঙালীদের বেশিরভাগই শহরে থাকেন বা থাকার চেষ্টা করেন। আমি যে মহল্লায় বেশি সময় ধরে থেকেছি, তার নাম ভিয়া ক্রেসপি। মিলানোতে গিয়ে আমি প্রথম ভিয়া (রাস্তার নাম ভিয়া) কার্লোফারিনির এক বাসায় উঠেছিলাম। ভিয়া ক্রেসপি স্টেশনের পাশেই। ক্রেসপির ঘরে শুয়ে আমি মিলান সেন্ট্রাল স্টেশন থেকে দূর-দূরান্তের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনের শব্দ শুনতে পেতাম। কাজকর্ম না থাকলে কিংবা বেকার থাকার কল্যাণে যখন হাতে অফুরন্ত সময় থাকত, তখন এখানে-সেখানে ঘুরে বেড়াতাম। মেট্রো-বাস-ট্রামের জন্য ৩০ ইউরোর মাসিক টিকেট (বিলিয়েত্তি মেনসিলে) থাকার কারণে সেটারও সদ্ব্যবহার করতাম উপর্যুপরি কিংবা যাচ্ছেতাই ভাবে। বেকারত্বের সেসব দিনে বিশেষ করে রাতের বেলা দোমো যেতাম। দোমো-র বিশাল বিশাল স্থাপনা দেখলেই চোখ জুড়িয়ে যায়। দোমো-র আশপাশে সারি সারি ভবন। বাণিজ্যিক কার্যালয়। ফ্যাশন প্যারেডও হয় দোমোতে। গান-বাজনা, বিপ্লবী সমাবেশও হয়। দোমোর সামনে অনেকখানি খোলা জায়গা। সেখানে পর্যটকদের ভিড় বছরজুড়ে। আমার বেশি ভাল লাগত খোলা জায়গায় একটা ঘোড়ার স্কাল্পচার। ঘোড়ার ওপরে সাহসী এক যোদ্ধা। দোমোর সিঁড়িতে বসে রাজ্যির দুশ্চিন্তা মাথায় নিয়ে আমি নির্বিকার তাকিয়ে থাকতাম সেই ঘোড়ার দিকে।

মাসখানেক বেকার থাকার পর একসময় পত্রিকা বিলি করার একটা কাজ পেলাম। বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা, ৩ ঘণ্টার কাজ। প্রতিঘণ্টা চার ইউরো। মেট্রো, সিটি দুটো নাম করা ট্যাবলয়েডের সান্ধ্য সংস্করণ বিলি করার কাজ। আর এসব পত্রিকা বিলির কাজ মেট্রো রুটেই হয়। সাধারণত অফিসফেরত মানুষ বিনে পয়সায় পত্রিকা নিয়ে মেট্রোতে ওঠে। তারপর পড়া শেষ হলে মেট্রো থেকে উঠে যাওয়ার সময় ডাস্টবিনে ফেলে দেয়। আমাকে দেয়া হলো মন্তে নেপোলিয়নে বলে এক অভিজাত এলাকায়। চারটা বাজার আগেই পত্রিকার বান্ডিল এসে পড়ত। পত্রিকার ছয় বান্ডিল (প্রতি বান্ডিলে একশ কপি) আমাকে বিলি করতে হতো। আমি করতাম কী, মেট্রোর মুখে যে সিঁড়ি তার দেয়ালে পত্রিকার বান্ডিলগুলো খুলে রাখতাম, আর হাতেও কিছু কপি রাখতাম। ইতালিয়ানদের মধ্যে অভিবাসীদের সঙ্গে কথা না বলে হাসি বিনিময় করে কথার পর্ব সেরে নেয়ার একটা দুর্লভ গুণ আছে।

সন্ধ্যা ৬টা বা সাড়ে ৬টার মধ্যে পত্রিকা বিলির কাজ শেষ হয়ে যেত। তারপর আধা ঘণ্টা সময় কোনমতে পার করে আমি দোমো চলে যেতাম। মন্তে নেপোলিয়ন থেকে দোমো হেঁটে যেতে সময় লাগে মিনিট পাঁচেক। কাজ শেষ হলে আমার অবধারিত গন্তব্য হয়ে পড়ত দোমো। দোমোর মূল ভবনের সামনে ধাপে ধাপে লম্বা সিঁড়ি। সিঁড়ি পেরুলে খোলা প্রান্তর, যেখানে শত শত মানুষ। শত শত কবুতর। আর কী আশ্চর্য! কবুতরগুলো দেখতে অবিকল আমাদের দেশের জালালি কবুতরের মতো। এসব কবুতর ঘুরে বেড়ায় নির্জন প্রান্তরের এখানে ওখানে। দোমো-তে ঘুরতে আসা পর্যটকরা এসব কবুতরকে গম খেতে দেয়। দোমোর খোলা প্রান্তরে জালালি কবুতরের মতো দেখতে এসব কবুতর দেখে প্রথমে আমি খুব অবাক হয়ে গিয়েছিলাম, ইতালিতেও জালালি কবুতর! পরে আরও অবাক হয়েছি এসব কবুতরদের গম খাওয়ার বিষয়টি নিয়ে। একটি সংঘবদ্ধ দল আছে, যাদের ছাড়া অন্যদের দোমোতে প্রবেশ প্রায় নিষিদ্ধ। পর্যটকরা এলে গম সাপ্লাই, বিক্রি এবং পর্যটকদের কবুতরকে গম খাওয়ানোর ছবি তোলার ব্যাপারটাও এরা বেশ কঠোরভাবে দেখভাল করে।

দোমোর আশপাশের বিশাল চত্বরকে কেউ কেউ মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ারও বলে থাকেন। এই ক্যাথিড্রাল স্কয়ারকে কেন্দ্র করে এর সামনে পেছনে অনেক সংস্কার করা হয়েছে মূলত পর্যটকদের মনোযোগ আকর্ষণ করার জন্য। এই সংস্কার বছরের পর বছর ধরে চলছে। ইতালির বাড়িঘর তৈরি হয় পুরনো ধাঁচে। দেখলে মনে হবে বাড়িটি বুঝি অনেক আগের। অনেক রাত অবধি দোমোর সিঁড়িতে বসে বসে রংবাহারি মানুষ দেখেছি। কারণে-অকারণে তাদের বিস্তর পয়সা খরচ করতে দেখেছি। জন-অরণ্য দেখেছি। দোমোর আশপাশে অনেক ছোট ছোট গলি-উপগলি এসে মিশেছে। সন্ধ্যার পর মানুষজন এসব অলিতে-গলিতে উপচে পড়ে। তখন ক্যাফে, বার, ডিসকোথেকে, রেস্তোরাঁয় ব্যস্ততা বেড়ে যায়।

পত্রিকা বিলি করে ২২ দিনে যা পেতাম, তা দিয়ে থাকা-খাওয়ার খরচ কোন রকমে চলে যেত। ফলে অভাব-অনটন লেগেই থাকত। সিগারেট আর কফি খেতে হতো গুনে গুনে। মিলান ক্যাথিড্রাল স্কয়ারের সিঁড়িতে বসে কিংবা এর আশপাশের অলি-গলিতে ঘুরতে ঘুরতে আমি প্রায়ই নিজেকে আবিষ্কার করতাম পুরনো ঢাকার অলি-গলিতে। আমার অনেক কর্মহীন দিবস, উদ্বাস্তু জীবন আর হতাশা-বেদনা-আশাহত হওয়ার রাজসাক্ষী দোমো। আমার স্মৃতিতে উজ্জ্বলতার কোন কমতি নেই এই স্কয়ারের। শিল্পরসিকরাা যতই গেরহার্ড রিখটারের তৈলচিত্রকে ঝাপসা দেখেন, তাতে আমার কিছু যায় আসে না।

ধঃযধরৎরফযধ১৫@ুধযড়ড়.পড়স

প্রকাশিত : ১৯ জুন ২০১৫

১৯/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: