কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সাজিদ সরকার

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫
  • এই সময়ে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বর্তমান সময়ে যে ক’জন তরুণ মেধাবী সঙ্গীত পরিচালক সঙ্গীত পরিচালনা নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন তাদের মধ্যে সাজিদ সরকার অন্যতম। অডিও এ্যালবাম ও চলচ্চিত্র দু’মাধ্যমেই ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। পাশাপাশি তাঁর নাটকের গানের কাজও করছেন। ইতোমধ্যে তার করা বেশকিছু নাটকের গান অনেক শ্রোতাপ্রিয়তা পেয়েছে। তবে ভবিষ্যতে তিনি চলচ্চিত্রের গানে বেশি মনোযোগ হতে চান।

সাজিদ সরকারের সঙ্গীত পরিচালনা শুরু ২০১০ সালে ‘শিহরণ’ এ্যালবামের মাধ্যমে। এ এ্যালবাম ন্যান্সির গাওয়া ‘শিহরণ’ শিরোনাম গানটি বেশ আলোচনায় আসে। ইতোমধ্যে তার সঙ্গীত পরিচালনায় পুরো এ্যালবাম রাফাতের ‘সুফিয়ানা’, তানজিল সরোয়ারের ‘মেঘবরণ’ রিলিজ হয়েছে। গত মাসে রিলিজ হয়েছে তাঁর সঙ্গীত পরিচালনায় ‘ছুয়ে দিলে মন’ চলচ্চিত্রে গানগুলো। পাশাপাশি চলচ্চিত্রের আবহ সঙ্গীতও তিনি করেছেন। চলচ্চিত্রটি গত মাসে মুক্তি পেয়েছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, এটি আমার স্বপ্নের একটা কাজ ছিল। এ কাজটা আমার ক্যারিয়ারের জন্য শুভ সূচনা হয়েছে। ইতোমধ্যে চলচ্চিত্রের গানগুলো ও আবহ সঙ্গীত প্রশংসিত হয়েছে। এছাড়া তিনি কয়েকটি সলো ও মিশ্র এ্যালবামের কাজ নিয়ে ব্যস্ত রয়েছেন। পাশাপাশি ‘এ্যাংরি বার্ড, কাপল, ইচ্ছে তাই, কন্ট্রোল অলটার ডিলিট ও এতটা ভালবাসি নাটকগুলোর গান ও আবহ সঙ্গীত করছেন। সঙ্গীত পরিচালনা বেসিকটা তিনি নিজেই শিখেছেন। তবে তিনি ২০১০ সালে জনপ্রিয় সঙ্গীত পরিচালক হাবিব ওয়াহিদের সঙ্গে সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ও কো-প্রডাকশনে বেশ কিছু এ্যালবামের কাজ করেছেন। তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হাবিবের ‘আহ্বান’ ন্যান্সির ‘রং’। আমি সঙ্গীত পরিচালনার বেসিক নিজে শিখেছি। তবে হাবিব ভাইয়ের কাছ থেকে প্রফেশনালি ও সঙ্গীত পরিচালনার নানা বিষয় শিখেছি। এছাড়াও তিনি ঝিলিক ও পড়শীসহ অনেকের এ্যালবামে কাজ করেছেন। তার ছোটবেলা থেকেই ছিল গানের প্রতি অপার ভাল লাগা। সাজিদ বলেন, শ্রোতাদের কথা মাথায় রেখে ভাল গান করতে চাই। বাংলাদেশের গান যেন দেশের বাইরে ও অনেক জনপ্রিয় হয় আমি সে লক্ষ্যে কাজ করতে চাই।

মুন্সীগঞ্জে আবদুল মতিনের একক সঙ্গীতসন্ধ্যা

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ মুন্সীগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার কক্ষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ব্যতিক্রমী সুরের আসর বসে। এতে একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন প্রবীণ গীতিকার, সুরকার কণ্ঠশিল্পী আবদুল মতিন। মুন্সীগঞ্জ সুরসন্ধ্যা আয়োজিত এই আসরে তিনি হারানো দিনের গানসহ কালজয়ী ২০টি গান পরিবেশন করেন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সিভিল সার্জন ডা. মো. শহিদুল ইসলাম। সংগঠনটির সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বলের সভাপতিত্বে সঙ্গীত শিল্পীকে নিয়ে আলোচনা করেন আর্শেদ উদ্দিন চৌধুরী, মতিউল ইসলাম হিরু, একেএম নাসিরুজ্জামান খান, শাহিন মো. আমানুল্লাহ, সালেহীন তুহিন, জাহাঙ্গীর আলম ঢালী, হামিদা খাতুন, আক্তারুজ্জামান আবুল, সাবেরা আক্তার ছবি, সাব্বির হোসাইন জাকির, হোসনে আরা ঝুমুর, বিউটি আক্তার প্রমুখ।

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

০৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: