আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ছয় মেয়র প্রার্থীর প্রতিশ্রুতি ॥ দুর্নীতি কমিয়ে নাগরিক সেবা নিশ্চিত করব

প্রকাশিত : ২১ এপ্রিল ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নির্বাচিত হলে দল ও মতের উর্ধে থেকে দায়িত্ব পালনসহ দুর্নীতি কমিয়ে সমন্বিত নাগরিক সেবা নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের ছয় মেয়র প্রার্থী। সকল নাগরিকসহ সরকারী সকল সংস্থাসমূহের সহযোগিতার কথাও বলেন মেয়র প্রার্থীরা। সোমবার রাজধানীতে আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় অংশ নিয়ে মেয়র প্রার্থীরা এসব কথা বলেন। বৈঠকে নগর বিশেষজ্ঞসহ বিভিন্ন সেক্টরের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

‘আমি যদি মেয়র হই’ শিরোনামের এ বেঠকে অংশ নেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ, উত্তরের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আনিসুল হক, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী তাবিথ আউয়াল, বিকল্পধারা সমর্থিত মাহী বদরুদ্দোজা চৌধুরী, বাম মোর্চা সমর্থিত প্রার্থী মোঃ জোনায়েদ আব্দুর রহিম সাকি, সিপিবির আবদুল্লাহ আল ক্বাফী ও দক্ষিণ থেকে আসেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী সাঈদ খোকন।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও নগর বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক নজরুল ইসলাম মেয়র প্রার্থীদের উদ্দেশে বলেন, প্রতি মুহূর্তে সাড়া দেবেন মানুষের যোগাযোগের। তথ্য সেন্টার রাখবেন। যাতে কেউ ফোন দিলে উত্তর পান।

নাগরিকদের ফোন ধরবেন, যাতে তারা প্রশ্ন ও অভিযোগের জবাব পান। তিনি বলেন, যত পারেন, ভোটারকে কেন্দ্রে নিয়ে আসুন। অন্তত ৬০ ভাগ মানুষকে কেন্দ্রে নিয়ে আসুন।

আনিসুল হক বলেন, প্রথমত, একটি ভাল নির্বাচন প্রয়োজন। নিরাপদ নগর, নারীর নিরাপত্তা, বর্জ্যমুক্ত শহরের কথা সবাই ভাবছি। সব ক্ষমতা একজনের হাতে থাকে না। একটি সমন্বিত যাত্রা প্রয়োজন। এলাকায় এলাকায় সমন্বিত কমিটি করতে হবে।

দক্ষিণের প্রার্থী সাঈদ খোকন বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে প্রথম দিনই ‘ঢাকা ডায়ালগ’ শিরোনামে ঢাকাবাসীকে নিয়ে আলোচনায় বসব। তাবিথ আউয়াল বলেন, যতই অস্বীকার করা হোক, অপরাধ হচ্ছে, সেগুলো বন্ধ করতে হবে। তিনি বলেন, কেন ব্যক্তিগত নিরাপত্তারক্ষীর সংখ্যা বাড়ছে? নিরাপত্তার এ অভাব দূর করা হবে। ঢাকা নিয়ে ১৫ বছর ধরে গবেষণার দাবি করে তাবিথ বলেন, ‘সমস্যা চিহ্নিত। এখন সমাধান করতে হবে। চিন্তায় পরিবর্তন আনতে হবে। গতানুগতিক চিন্তায় সেটা হবে না।

মেয়র হলে সমাজে অব্যাহতভাবে কন্যাশিশু নিপীড়নের প্রতিকার করার কথা বলেন মাহী বি চৌধুরী। তিনি বলেন, সবারই পরিকল্পনা অনেক সুন্দর। মেয়র কিন্তু একজনই হবেন। তাই সবাইকে নিয়েই কাজ করতে হবে। একটি ‘প্রজন্ম বাংলাদেশ’ ও ‘প্রজন্মের শহর’ গড়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

জোনায়েদ সাকি বলেন, নগরের নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রয়োজনে কঠোরতার সঙ্গে প্রশাসনকে ঢেলে সাজানোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

ক্বাফি রতন বলেন, মেয়র হিসেবে সুবিধা নেব না। নিজের সম্পদের হিসাব দেব। আত্মীয়দের কোন পদে জড়িত করব না। মেয়রের ভাতার বাইরে কোন আয় থাকবে না। ঘুষ, দুর্নীতি থেকে নিজেকে বিরত রাখব। ন্যায়পাল নিয়োগ থাকবে, মেয়রের বিরুদ্ধে সংক্ষুব্ধ নগরবাসীর অভিযোগের বিচার করবেন তিনি।

সম্ভাব্য মেয়রদের কাউন্সিলরদের সমন্বয়ে কাজ করতে পরামর্শ দেন স্থানীয় সরকার বিশেষজ্ঞ তোফায়েল আহমেদ। একঝাঁক তরুণের মেয়র পদপ্রার্থী হওয়ার ঘটনাকে ইতিবাচক বিষয় হিসেবে অভিহিত করেন অধ্যাপক সারওয়ার জাহান। মেয়রদের বিভিন্ন কাজের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন সুশাসন। এ জন্য দরকার স্বচ্ছভাবে কাজ করা, জবাবদিহি নিশ্চিত করা। প্রথম আলো আয়োজিত পত্রিকাটির কার্যালয়ে এ গোলটেবিলের আয়োজন করা হয়।

প্রকাশিত : ২১ এপ্রিল ২০১৫

২১/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: