মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগ ওয়ানডে ফাইনালে পূর্বাঞ্চলের প্রতিপক্ষ উত্তরাঞ্চল

প্রকাশিত : ১০ এপ্রিল ২০১৫, ০১:৪০ এ. এম.

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ প্রথমবারের মতো আয়োজিত বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগের (বিসিএল) ওয়ানডে ফরমেটের ফাইনালে পূর্বাঞ্চলের প্রতিপক্ষ কোন দল? এ প্রশ্নের উত্তর মিলে গেছে। রবিবার পূর্বাঞ্চলের বিপক্ষে শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে খেলবে উত্তরাঞ্চল।

বৃহস্পতিবার লীগের লীগ পর্বের শেষ ম্যাচগুলো হয়। ম্যাচগুলোতে ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চলকে ৮৮ রানে হারায় বিসিবি উত্তরাঞ্চল। আর মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চলকে ৯৮ রানে হারিয়ে দেয় ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চল।

লীগে একটি ম্যাচেও জয়ের দেখা পায়নি এক ম্যাচ হাতে রেখেই লীগ থেকে বিদায় নেয়া মধ্যাঞ্চল! কী করুণ দশা দলটির। মধ্যাঞ্চল যেখানে এক ম্যাচ হাতে রেখেই বিদায় নিয়েছে, সেখানে উল্টো চিত্র পূর্বাঞ্চলের। এক ম্যাচ হাতে রেখেই ফাইনালে খেলা নিশ্চিত করে নিয়েছিল। শেষ খেলায় জিতে ৫ পয়েন্ট পেয়ে কোন ‘যুক্তি-তর্কে’র সুযোগ না দিয়ে সরাসরিই ফাইনালে খেলল পূর্বাঞ্চল। বাকি ছিল ফাইনালে পূর্বাঞ্চলের প্রতিপক্ষ পাওয়া। দক্ষিণাঞ্চল-উত্তরাঞ্চলের মধ্যে যে দল জিতবে, তারাই খেলবে ফাইনালে। তা আগেই জানা ছিল। উত্তরাঞ্চল দাপট দেখিয়েই ফাইনালে উঠল।

বৃহস্পতিবার সবার দৃষ্টি ছিল ফতুল্লার দিকেই। মিরপুরে পূর্বাঞ্চল-মধ্যাঞ্চল ম্যাচ ছিল। এ ম্যাচে ফল যাই হোক, পূর্বাঞ্চল ফাইনালে খেলবে, মধ্যাঞ্চল বিদায় নেবে; তাই এ ম্যাচের দিকে কারোরই দৃষ্টি ছিল না। কিন্তু ফতুল্লায় দৃষ্টি দিয়েও কোন লাভ হয়নি। উত্তরাঞ্চলের সামনে দক্ষিণাঞ্চল যে পাত্তাই পায়নি।

টস জিতে উত্তরাঞ্চল আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ৫০ ওভারে ৩২১ রানের এত বড় স্কোর গড়ে, যার সামনে অসহায় হয়ে পড়ে দক্ষিণাঞ্চল। নাঈম ইসলাম ৮০, মুশফিকুর রহীম ৭৮, সাব্বির রহমান রুম্মন ৬৬, মাহমুদুল হাসান ৪৮, নাসির হোসেন ৩৯ রান করেন। উত্তরাঞ্চলের নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যানরা সবাই রান পান। মাশরাফি, রুবেল, জিয়াউর ২টি করে উইকেট পান। এত বিশাল রানের জবাব দিতে নেমে ৪৪.১ ওভারে ২৩৩ রান করতে গিয়েই গুটিয়ে যায় দক্ষিণাঞ্চলের ইনিংস। তাইজুল, সানজামুল, ফরহাদ রেজা ২টি করে উইকেট নেন। উত্তরাঞ্চল জিতে ৫ পয়েন্ট নিয়েই ফাইনালে খেলে।

এ ম্যাচের চেয়ে বরং মিরপুরের ম্যাচেই আমেজ দেখা যায়। ফাইনালে ওঠার ক্ষেত্রে এ ম্যাচের ফল তেমন কার্যকর না হলেও ম্যাচটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। টস জিতে মধ্যাঞ্চল আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। পূর্বাঞ্চল ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ২১৮ রানের বেশি করতে পারেনি। তাসকিন ৩ উইকেট নেন। মনে করা হচ্ছিল, মধ্যাঞ্চলই জিতবে। কিন্তু আবুল হাসান রাজু (৩/২১) দুর্দান্ত বোলিং করে মধ্যাঞ্চলের ইনিংসে ধস নামানো শুরু করেন। তা থেকে আর রক্ষা পাননি মধ্যাঞ্চল ব্যাটসম্যানরা। শেষপর্যন্ত ৩৭.৩ ওভারে ১২০ রান করতেই অলআউট হয়ে যায় মধ্যাঞ্চল। লীগ পর্ব শেষে মধ্যাঞ্চল কোন পয়েন্ট না পেলেও দক্ষিণাঞ্চল ২ পয়েন্ট পায়। আর পূর্বাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চল ৫ পয়েন্ট করে নিয়ে ফাইনালে খেলবে।

প্রকাশিত : ১০ এপ্রিল ২০১৫, ০১:৪০ এ. এম.

১০/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: