কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কমান্ডার আব্দুর রউফ আর নেই

প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
কমান্ডার আব্দুর  রউফ আর নেই

নিজস্ব সংবাদদাতা, কিশোরগঞ্জ ও ভৈরব, ২৭ ফেব্রুয়ারি ॥ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার অন্যতম আসামি, মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ডার আব্দুর রউফ (৭৮) আর নেই। তিনি শুক্রবার ভোর ৫টায় বার্ধক্যজনিত কারণে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি... রাজিউন)। তিনি স্ত্রী, ৩ মেয়ে ও ১ ছেলে রেখে গেছেন। বাদ জুমা জেলার ভৈরব ঈদগাহ মাঠে প্রথম ও মহাখালী ডিওএইচএস জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে দ্বিতীয় জানাজা শেষে সামরিক কবরস্থানে তাঁর লাশ দাফন করা হয়েছে। তাঁর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, জেলা সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি এ্যাডভোকেট অশোক সরকার ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

আব্দুর রউফের লেখা মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক ও সমকালীন রাজনীতি বিষয়ে একাধিক গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি ১৯৩৩ সালের ১১ নবেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার ভৈরবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

রউফ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে এমএ পাস করার পর শিক্ষকতায় যোগ দেন। ১৯৬১ সালে বিএড পাস করার পর উপ-অধ্যক্ষ হিসেবে ঢাকার শাহীন স্কুলে যোগ দেন। ১৯৬২ সালে যোগ দেন পাকিস্তান নৌবাহিনীতে। সেখানে কর্মরত অবস্থায় স্বাধীন বাংলা আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত হন এবং ১৯৬৮ সালে একই কারণে গ্রেফতার হন। পরবর্তীতে তাঁকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্ত করা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে ১৪ মাস কারাগারে থাকার পর ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যুত্থানের ফলে মুক্তি পান। ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে তাঁর অবদান ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

স্বাধীনতার পর পুনরায় ১৯৭২ সালের আগস্ট মাসে তিনি বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে যোগদান করেন এবং নৌবাহিনী পুনর্গঠনে বিশেষ অবদান রাখেন। ১৯৭৩ সালে তিনি কমান্ডার পদে উন্নীত হন। বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার পর তৎকালীন সামরিক সরকার তাঁকে কারারুদ্ধ করেন।

প্রকাশিত : ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৮/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: