কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

জিটিসিএলের আয় ব্যয়ে গরমিল, গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রশ্নই ওঠে না

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানির (জিটিসিএল) আয়-ব্যয়ে ব্যাপক গরমিল ধরা পড়েছে। কোম্পানির পরিচালনা ব্যয় থেকে অনেক বেশি অর্থ গ্রাহকের কাছ থেকে তুলে তা প্রফিট শেয়ার হিসেবে ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়েছে কোম্পানির কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। হিসাবের খাতায় নেই কোম্পানির বিলাসী বার্ষিক সাধারণ সভার (এজিএম) হিসাব।

বোর্ড অব ডিরেক্টরদের সেবায় বিপুল অর্থ ব্যয়ের হিসাবও ফাঁস হয়ে গেছে। বিগত ২০০৯ সালের ডিসেম্বর জিটিসিএলের হুইলিং চার্জ (গ্যাস সঞ্চালন ট্যারিফ) প্রতিঘনমিটারে দশমিক ২৯৫ টাকা থেকে পেট্রোবাংলা কোন্ ক্ষমতাবলে শূন্য দশমিক ২৫ টাকা বৃদ্ধি করে কেন দশমিক ৩২ টাকা নির্ধারণ করেছিল তারও উত্তর দিতে পারেনি ফ্রিস্টাইলে চলতে থাকা সরকারী এ কোম্পানি। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির শুনানির প্রথম দিনে সোমবার বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনে (বিইআরসি) এসব কোম্পানির হিসাব পর্যালোচনায় এ বিষয়গুলো বের হয়ে এসেছে।

সকল বেতন-বোনাস এবং চাকরির অন্যান্য সুবিধার বাইরে কোম্পানির প্রত্যেক কর্মচারী-কর্মকর্তা (এমডি বাদে) বছরে সমহারে চার লাখ টাকা করে কোম্পানির প্রফিট বোনাস পেয়েছেন। জনবল কাঠামোতে জিটিসিএলের ৯৫২ জনের পদ রয়েছে। অর্থাৎ প্রত্যেক কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরির সকল সুবিধার পাশাপাশি মাসে ৩৩ হাজার ৩৩৩ টাকা প্রফিট বোনাস পেয়ে থাকেন। দেশের প্রথম শ্রেণীর এক কর্মকর্তা-কর্মচারী চাকরিতে প্রবেশের সময় যে বেতন পান তা থেকে জিটিসিএলের একজন পিওন বা ড্রাইভার মাসে অন্তত ১৩ হাজার টাকা বেশি বোনাসই পেয়ে থাকেন। কমিশনের কারিগরি মূল্যায়ন কমিটি বলছে জিটিসিএলের নিরীক্ষিত হিসাবই বলছে প্রতিঘনমিটার গ্যাসের সঞ্চালন মাসুল ১৩ পয়সা হলেই কোম্পানি লাভজনক উপায়ে চলা সম্ভব। সেখানে বর্তমানে নেয়া হচ্ছে ৩২ পয়সা। মাসুল ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৪৬ দশমিক ৮৭ ভাগ অর্থাৎ আরও ১৫ পয়সা বাড়িয়ে ঘনমিটারে সঞ্চালন ব্যয় ৪৭ পয়সা নির্ধারণের প্রস্তাব করেছিল কোম্পানিটি।

এছাড়া ২০১৫-১৬ অর্থবছরে তা ১২৮ ভাগ বাড়িয়ে ৭৩ পয়সা এবং ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১৩৪ ভাগ বাড়িয়ে ৭৫ পয়সা করার আবেদন করেছে জিটিসিএল। গণশুনানিতে কোম্পানিটির নানা অনিয়ম ও অপব্যয়ের কথা উঠেছে। লাভের টাকায় কোম্পানিটির ব্যাংকের স্থায়ী আমানত (এফডিআর) প্রতিবছর বাড়ছে। বিগত ২০১৩-১৪ অর্থবছরে এফডিআরের পরিমাণ ৯৪৪ কোটি টাকা। এর আগের বছরে (২০১২-১৩) ছিল ৮১৮ কোটি টাকা।

প্রকাশিত : ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

০৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: