মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি

প্রকাশিত : ২১ জানুয়ারী ২০১৫
  • বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়

দ্বিতীয় অধ্যায়

স্বাধীন বাংলাদেশ

সৃজনশীল প্রশ্ন :

১। আলজেরিয়ার স্বাধীনতা সম্পর্কিত একটি আর্টিকেল পড়তে গিয়ে রিপা জানতে পারে, আলজেরিয়ার স্বাধীনতাযুদ্ধে প্রায় ৮ বছর আগে শুরু হয়েছিল। এ যুদ্ধে আলজেরিয়ান ন্যাশনাল ফ্রন্ট নেতৃত্ব দেয়। এ ফ্রন্ট যুদ্ধ পরিচালনার জন্য পার্শ¦বর্তী রাষ্ট্র মিশরের কায়রোতে একটি অন্তর্বর্তীকালীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে। ওই সরকারের মূল দায়িত্ব ছিল কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে আলজেরিয়ার স্বাধীনতার প্রতি বিশ্বমত বা জনসমর্থন সৃষ্টি।

ক) ‘অপারেশন সার্চলাইট’ কখন শুরু হয়?

খ) জেনারেল এরশাদ কীভাবে শাসন ক্ষমতা লাভ করেন?

গ) আলজেরিয়ার অন্তর্বর্তীকারীল সরকারের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ বাংলাদেশের সরকারের গঠন বর্ণনা কর।

ঘ) উদ্দীপকে সরকারের ভূমিকা ও বাংলাদেশের গঠিত সরকারের ভূমিকা কি একই প্রকৃতির ছিল? যুক্তিসহ মূল্যায়ন কর।

সম্ভাব্য উত্তর :

ক) ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ অপারেশন সাচ লাইট শুরু হয়।

খ) ১৯৮১ সালের ৩০ মে জিয়াউর রহমান একদল সামরিক কর্মকর্তার হাতে নির্মমভাবে নিহত হওয়ার পর সংবিধান অনুযায়ী উপ-রাষ্ট্রপতি আবদুস সাত্তার অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এ সময় সেনাবাহিনীর চিফ অব স্টাফ ছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। বিচারপতি সাত্তারের দুর্বল নেতৃত্ব, রাজনৈতিক অস্থিরতা, সীমাহীন দুর্নীতি, দলীয় কোন্দল, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি, অর্থনৈতিক সংকটের কারণ দেখিয়ে ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সামরিক আইন জারি করে রাষ্ট্রের সার্বিক দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

গ) আলজেরিয়ার স্বাধীনতাযুদেধ নেতৃত্বদানকারী আলজেরিয়ান ন্যাশনাল লিবারেশন ফ্রন্ট স্বাধীনতাযুদ্ধ পরিচালনার জন্যে পার্শ্ববর্তী রাষ্ট্র মিশরের কায়রোতে এ অন্তর্বর্তীকালীন সরকার প্রতিষ্ঠা করে। আলজেরিয়ার এ অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের সাথে বাংলাদেশের মুজিব নগরের সাদৃশ্য রয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধ সঠিকভাবে পরিচালনা, সুসংহত করা এবং মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বিশ্বে জনমত সৃষ্টি করার লক্ষ্যে ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল মুজিবনগরে অস্থায়ী সরকার গঠন করা হয়। এদিনে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত হয় বাংলাদেশের স্বাধীনতার আদেশ; মুজিবনগর সরকার ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল শপথ গ্রহণ করে। মুজিবনগর স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের গঠন ছিল নিম্নরূপ:

১. রাষ্ট্রপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

২. উপ-রাষ্ট্রপতি : সৈয়দ নজরুল ইসলাম (বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি)

৩. প্রধানমন্ত্রী : তাজউদ্দীন আহমদ

৪. অর্থমন্ত্রী : এম. মনসুর আলী

৫. স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ,পুনর্বাসনমন্ত্রী: এএইচএম কামরুজ্জামান

৬. পররাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রী : খন্দকার মোশতাক আহমেদ। এছাড়া এ সরকারকে উপদেশ ও পরামর্শ প্রদানের জন্যে ৬ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করা হয়।

ঘ) আলজেরিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন সরকাররের মূল দায়িত্ব ছিল স্বাধীনতাযুদ্ধ পরিচালনা এবং কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে আলজেরিয়ার স্বাধীনতার প্রতি বিশ্ব জনমত সৃষ্টি করা। বাংলাদেশের মুজিবনগর স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারেরও ভূমিকা একই রকম ছিল। নিচে এ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।

১৯৭০-৭১ সালের নির্বাচনে বিজয়ী জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য দ্বারা মুজিবনগর সরকার গঠন করা হয়। মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা এবং বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্ব জনমত গঠন করা ছিল এ সরকারের প্রধান উদ্দেশ্য। মুজিবনগর সরকার বিশ্বের বিভিন্ন দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (কলকাতা, দিল্লি , লন্ডন, ওয়াশিংটন, নিউইয়র্ক, স্টকহোম) বাংলাদেশ সরকারের মিশন স্থাপন করে এবং এ সরাকারের পক্ষে প্রচারণা ও সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করে। মুজিবনগর সরকার মুক্তিযুদ্ধকে সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য সমগ্র বাংলাদেশকে ১১টি সেক্টরে বিভক্ত করে। এছাড়া বেশ কিছু সাব- সেক্টর এবং তিনটি ব্রিগেড ফোর্স গঠিত হয়।

এসব বাহিনীতে পাকিস্তান সেনাবাহনীতে কর্মরত বাঙালি সেনা কর্মকর্তা, সেনা সদস্য, পুলিশ, ইপিআর, নৌ ও বিমান বাহিনীর সদস্যগণ এবং প্রতিটি সেক্টরেই নিয়মিত সেনা, গেরিলা ও সাধারণ যোদ্ধা ছিল। এরা মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিফৌজ নামে পরিচিত ছিল। এসব বাহিনীতে দেশের ছাত্র, যুবক, নারী, কৃষক, রাজনৈতিক দলের কর্মী-সমর্থক, শ্রমিকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ অংশ নিয়েছিল। ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাগণ মুজিবনগর সরকারের নেতৃত্বে দেশকে পাকিস্তানিদের দখলমুক্ত করার জন্য রণক্ষেত্রে যুদ্ধ করেছেন।

সুতরাং উপরোক্ত আলোচনার প্রেক্ষিতে বলা যায় যে, আলজেরিয়ার আন্তর্বর্তীকালীন সরকারের ভূমিকা ও বাংলাদেশের গঠিত মুজিবনগর সরকারের ভূমিকা একই প্রকৃতির ছিল।

বহুনির্বাচনী প্রশ্ন:

১. মুজিবনগর সরকারের ত্রাণ ও পুনর্বাসনমন্ত্রী কে ছিলেন?

ক) এম. মনসুর আলী খ) তাজউদ্দীন আহমদ

গ) খন্দকার মোশতাক আহমেদ ঘ) এ.এইচ. এম কামরুজ্জামান

২. ইয়াহিয়া খানের জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করাটা কোন প্রকৃতির সিদ্ধান্ত ছিল?

ক) ষড়যন্ত্রমূলক খ) যৌক্তিক

গ) আলোচনাপ্রসূত ঘ) স্বৈরাচারী

৩.

উপরের? চিহ্নিত বক্সে কার নাম বসবে?

ক) এম এ জি ওসমানী খ) হোসেন সোহরাওয়ার্দী

গ) মোজাফফর আহমদ ঘ) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

৪. মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক গান, কবিতা, নাটক ও অন্যান্য অনুষ্ঠান যুদ্ধক্ষেত্রে যোদ্ধাদের-

র) সাহস জুগিয়েছে

রর) শত্রুর বিরুদ্ধে দুর্দমনীয় করেছে

ররর) মনোবল ভেঙ্গে দিয়েছে।

নিচের কোনটি সঠিক?

প্রকাশিত : ২১ জানুয়ারী ২০১৫

২১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: