কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

স্বাধীনতাবিরোধীদের পৃষ্ঠপোষক বিএনপির সঙ্গে কোন আলোচনা নয় ॥ নাসিম

প্রকাশিত : ১২ জানুয়ারী ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, মানিকগঞ্জ, ১১ জানুয়ারি ॥ আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম আগামী নির্বাচনের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়ে বলেছেন, যুদ্ধাপরাধী ও স্বাধীনতাবিরোধীদের পৃষ্ঠপোষক বিএনপির সঙ্গে কোন আলোচনা নয়, সংবিধান অনুয়ায়ী এদেশে নির্বাচন হবে ২০১৯ সালে। জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে বিএনপি যতই হুমকি-ধমকি দিক, কোন লাভ হবে না। অবিলম্বে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া ধ্বংসের পথ পরিহার না করলে জনগণই তাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবে।

রবিবার সন্ধ্যায় মানিকগঞ্জে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে রাতে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে ইসরাফিল হোসেন এবং সাধারণ সম্পাদক পদে আফছার সরকারের নাম ঘোষণা করা হয়।

মানিকগঞ্জের বিজয়মেলা মাঠে মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওয়াহেদ উদ্দিন আহমেদ মধুর সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, দফতর সম্পাদক এ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান এমপি, মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য নাঈমুর রহমান দুুর্জয়, মানিকগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য মমতাজ বেগম, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মহিউদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল হুদা সেলিম। সম্মেলন উদ্বোধন করেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সংলাপ ও নির্বাচন কোনটিই ২০১৯ সালের আগে হবে না। এ পর্যন্ত বিএনপিকে অপেক্ষা করতে হবে। তিনি বলেন, বিএনপির আন্দোলনে এখন আর কেউ সাড়া দেয় না। আন্দোলনের নামে ককটেল, বোমা বিস্ফোরণ আর যানবাহনে অগ্নিসংযোগ করার কারণেই তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার মারা গেছে। এটাকে আর জীবিত করা যাবে না। ২০১৯ সালের নির্বাচনও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে হবে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গ্রামেগঞ্জে সর্বত্র চিকিৎসাসেবা পৌঁছে দিয়েছে। দরিদ্র জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে সরকার কাজ করছে। ১৪ দলের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক মোহাম্মদ নাসিম আরও বলেন, গত নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপির চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে আলোচনার জন্য আহ্বান করেছিলেন। কিন্তু বেগম জিয়া সেই আহ্বানে সাড়া না দিয়ে দেশজুড়ে জ্বালাও-পোড়াও করে মানুষ হত্যা করেছেন। যে নির্বাচনকে বিশ্ব স্বীকৃতি দিয়েছে সেই নির্বাচনকে তিনি মানছেন না। তিনি সংলাপের জন্য এখন আন্দোলন করছেন। তিনি বলেন, যারা বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে অশ্লীল বক্তব্য দেয় তাদের সঙ্গে কোন সংলাপ হতে পারে না। তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন না হলে বাংলাদেশে জঙ্গীবাদ প্রতিষ্ঠা হতো। তিনি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, এমন কিছু করবেন না যাতে আওয়ামী লীগ কিংবা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নাম হয়। বঙ্গবন্ধুকে হারিয়ে একবার দেশের ওপর দিয়ে ঝড়ঝাপটা গেছে। শেখ হাসিনাকে হারালে দেশ জঙ্গীবাদের রাষ্ট্র হবে। তাই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।

প্রকাশিত : ১২ জানুয়ারী ২০১৫

১২/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: