আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ছোটকাগজ

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

বিজ্ঞানচিন্তা

সফিক ইসলাম সম্পাদিত ‘বিজ্ঞানচিন্তা’র ‘জগদীশচন্দ্র বসু সংখ্যা’ প্রকাশিত হয়েছে। সংখ্যাটির প্রাসঙ্গিকতা সম্পর্কে ‘সম্পাদকের কথা’ অধ্যায়ে সম্পাদক লিখেছেন- ‘বাংলাদেশে জগদীশচন্দ্র বসুর জন্ম বলে আমরা, বাংলাদেশের মানুষেরা খুব গর্ব অনুভব করি। কিন্তু যে বিজ্ঞানমনষ্কতার কথা তিনি ভেবেছিলেন, বিজ্ঞানচর্চার যে ধারা তিনি সৃষ্টি করেছিলেন, সেই ধারা বাংলাদেশে খুব বেশি দিন টিকে থাকেনি। ফলে বাংলাদেশে বিজ্ঞানচিন্তার প্রসার যেমন ঘটেনি, বিজ্ঞানচর্চাও খুব একটা এগোয়নি। বাঙালীর পরিচয় তাই আজও একটি বিজ্ঞানবিমুখ জাতি হিসেবে। এমনি পরিবেশে, দেড় শতাধিক বছর পরেও জগদীশ আমাদের জন্য অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক, প্রয়োজনীয়ও বটে। জগদীশ-বিষয়ক একটি বিশেষ সংখ্যা প্রকাশের চিন্তা সেই প্রয়োজন থেকেই।’ সংখ্যাটিতে প্রবন্ধ লিখেছেন- অজয় রায়, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, ফরহাদ মজহার, বরুণ কুমার চট্টোপাধ্যায় ও রূপা সরকার, মোঃ শাজাহান মিয়া, ড. বহ্নিশিখা চৌধুরী, রুনা চৌধুরী রায়, ঋতা বসু প্রমুখ। পুনঃপাঠ অধ্যায়ে সঙ্কলিত হয়েছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘জগদীশচন্দ্র বসু’, অবলা বসুর ‘জয়যাত্রা’, রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদীর ‘অধ্যাপক জগদীশের বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার’, রথীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আচার্য জগদীশচন্দ্র : আমার বাল্যস্মৃতি’, মেঘনাথ সাহার ‘জগদীশচন্দ্রের বিজ্ঞান সাধনা’, দেবেন্দ্রমোহন বসুর ‘জগদীশচন্দ্র বসু ও জড় এবং জীবের সাড়া’, রমেশচন্দ্র মজুমদারের ‘দার্জিলিংয়ে-জগদীশচন্দ্র বসুর সঙ্গে’, প্রমথনাথ বিশীর ‘আচার্য জগদীশচন্দ্রের বাংলা রচনা’, অবন্তীকুমার সান্যালের ‘রম্যাঁ রল্যাঁ ও জগদীশচন্দ্র বসু’ শিরোনামের সমৃদ্ধ লেখাগুলো। এছাড়া জগদীশচন্দ্র বসুর লেখা ‘অদৃশ্য আলোক’, ‘নির্ব্বাক জীবন’, ‘বিজ্ঞানে সাহিত্য’, ‘নিবেদন’, ‘দীক্ষা’, ছাত্রসমাজের প্রতি’, ‘নমুনা প্রবন্ধ’ এবং রবীন্দ্রনাথ, ‘ইলেক্ট্রিশিয়ান’ ও ‘নেচার’ পত্রিকার সম্পাদকদ্বয়, বাংলার লে. গবর্নর স্যার অ্যান্ড্রু ফ্রেজার, অ্যালডাস হাক্সলি, প-িত মতিলাল নেহেরু, এম আর জয়াকর, নিজাম-উল-মুলক মির্জা মো. ইসমাইল, রম্যাঁ রল্যাঁ, মহাত্মাগান্ধী প্রমুখ খ্যাতিমান ব্যক্তিদের প্রতি লেখা জগদীশচন্দ্রের পত্রাবলী সংখ্যাটিকে আরও বেশি সমৃদ্ধ করেছে। পরিশেষে সঙ্কলিত হয়েছে জগদীশচন্দ্রবসুর জীবন ও কর্ম, বৈজ্ঞানিক রচনা, বাংলা রচনা, আলোকচিত্রসহ লেখক পরিচিতি ও নির্ঘণ্ট।

বিজ্ঞানচিন্তা : জগদীশচন্দ্র বসু সংখ্যা; সম্পাদক : সফিক ইসলাম; প্রকাশকাল : অগ্রহায়ণ, ১৪২১ বঙ্গাব্দ, নবেম্বর, ২০১৪ খ্রিস্টাব্দ; প্রচ্ছদ : মামুন হোসাইন; অলঙ্করণ : আমির হোসেন; পৃষ্ঠা : ৩৫২; মূল্য : ৩০০ টাকা।

একবিংশ

কবিতা ও নন্দনভাবনার কাগজ ‘একবিংশ’ পত্রিকার সম্পাদক খোন্দকার আশরাফ হোসেন প্রয়াত হওয়ার পর এর হাল ধরেন তাঁর সহপাঠী কাজল বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাঁরই সম্পাদনায় পত্রিকাটির ২৮তম সংখ্যাটি প্রকাশিত হয়েছে। এ সংখ্যায় প্রবন্ধ লিখেছেন- তপোধীর ভট্টাচার্য, রামকৃষ্ণ ভট্টাচার্য, ওমর শামস, অঞ্জন সেন। অনূদিত প্রবন্ধে আছে- বিবেক চিবারের ‘মার্কসবাদ, উত্তর-উপনিবেশবাদী অধ্যয়ন এবং র‌্যাডিক্যাল তত্ত্বের করণীয়’ (অনুবাদ : কাজল বন্দ্যোপাধ্যায় ও আশিস আচার্য), পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ‘দ্বিতীয়বারের বাংলাভাগ’, এজাজ আহমদের ‘আশার সম্ভার : আমাদের কাল নিয়ে ভাবনা’ (অনুবাদ : গোলাম ফারুক খান)। কবিতা নিয়ে মুক্তগদ্য লিখেছেন- মলয় রায় চৌধুরী (কবিতার বিষ : নিঃসঙ্গতা ও একাকিত্ব), জিললুর রহমান (কবিতা, মিথ ও মোক্ষ), রাকা দাশগুপ্ত (কবিতার ক্লাইমেক্স)। কবিতা লিখেছেন- আফজালুল বাসার, আবু সাঈদ ওবায়দুল্লাহ, কামরুল হাসান, হাফিজ রশিদ খান, শিবলী মোকতাদির, আহমেদ স্বপন মাহমুদ, মুজিব ইরম, কামরুল ইসলাম, জহির হাসান, অরুণিমা নাসরীন, জফির সেতু, পলাশ দত্ত, কাবেরী গায়েনসহ আরো অনেকে। এছাড়া নাজিম ‘হিকমতের কবিতা’, ‘নারীবিশ্বের কবিতা’, ‘মিশরের কবিতা’ শিরোনামের লেখাগুলো অনুবাদ করেছেন যথাক্রমে দাউদ আল হাফিজ, আয়শা ঝর্না, শাহানা আকতার মহুয়া। গ্রন্থালোচনা করেছেন- ফারহান ইশরাক (কবিত্বের চোখ : অন্ধত্বের আয়না দর্শন), শামীম আহসান (একটি দ্বিধার গন্ধম), মিয়া রাসিদুজ্জামান (ইউরি বোরেভের নন্দনতত্ত্ব এবং বাংলা ভাষার নন্দনতত্ত্বের পঠন-পাঠন)।

একবিংশ; সম্পাদক : কাজল বন্দ্যোপাধ্যায়; প্রকাশকাল : অক্টোবর ২০১৪; প্রচ্ছদ : অনিন্দ্য রহমান; পৃষ্ঠা : ২৪২; মূল্য : ১০০ টাকা।

গদ্য আচার্য

প্রকাশিত : ৯ জানুয়ারী ২০১৫

০৯/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: