মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নবতরঙ্গে ঢাকা থিয়েটার অপূর্ব কুমার কুন্ডু

প্রকাশিত : ৪ ডিসেম্বর ২০১৪

ঢাকা থিয়েটারের প্রাণ পুরুষ নাসিরউদ্দীন ইউসুফের গ্লোব থিয়েটারে প্রথম বাংলা নাটক মঞ্চায়ন, আত্ম বিস্মৃত বাংলা নাটকের আঙ্গিরীতির প্রথম পুনরুদ্ধার, আদীবাসীদের মূল জনস্রোতে সম্পৃক্ত করতে নাট্যোৎসব আয়োজনের প্রথম রূপকারসহ স্বাধীন বাংলাদেশের নাট্যযাত্রার পথ পরিক্রমায় বিভিন্ন কারণে প্রথম। গত ২৮ নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে গত ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির এক্সপেরিমেন্টাল হলে ঢাকা থিয়েটার আয়োজিত সেলিম আল দীন উৎসব ২০১৪-এ তিনি বরাবরের মতো প্রথম। প্রথম কারণ, নতুন প্রজন্ম নতুন থিয়েটার সেøাগানকে ধারণ করে গ্রুপ থিয়েটার নাট্যচর্চায় একটি গ্রুপের হয়ে পরাপর চারটি নাটকের প্রিমিয়ার শো এবং পাঁচজন তরুণ নির্দেশকের অভিষেক। এষা ইউসুফ। সেলিম আল দীনের ’৯৩ সালের রচনা যৈবতী কন্যার মন এবং ’৭৩ সালের রচনা গল্প নিয়ে গল্প রচনার দ্বৈত ঘটনাকে অদ্বৈত রূপে পরিবেশন করলেন উৎসবের প্রথম মঞ্চায়নে ‘গল্প নিয়ে গল্প’ শিরোনামে। প্রেয়সী অম্বাকে পেতে যেয়ে প্রেমিক সূর্যাই এর জীবনের ট্র্যাজেডি আর পলিকে পেতে যেয়ে বেলালের ট্র্যাজেডির সাদৃশ্য কিভাবে এক গল্পকারের গল্পের উপকরণ হয়ে উঠল এবং গল্প লিখতে বসে গল্পকার কিভাবে কিংকর্তব্যবিমূর হয়ে পড়ল তা নিয়েই গল্প নিয়ে গল্প। সার্কাস তথা অ্যাক্রোবেটিকের নাটকীয় দোলা, জাপানী আদলে নৃত্যের ভঙ্গিমায় যাপিত জীবনের উপস্থাপনে এষা ইউসুফ চমৎকার ইনিংস শুরু করলেও ম্যাচের সমাপ্তি ঘোষণা করলেন যেন ফিরতি বিমান ধরার তাড়াহুরায়। এষা ইউসুফকে মনে রাখতেই হবে পিতা নাসিরউদ্দীন ইউসুফের অমোঘ বার্তা, একটা মানুষ যতটুকু পরিশ্রম করবে ততটুকুই সে মূল্যায়িত হবে।

মূল্যায়নের প্রশ্নে যৌথ নির্দেশক ওয়াসিম আহমদ এবং সাজ্জাদ রাজীব উৎসবের দ্বিতীয় দিনে যে মঞ্চ সফল প্রয়োজনা অমৃত উপখ্যান, উপন্যাস থেকে অমৃত উপখ্যান নামেই দর্শকদের উপহার দিলেন সেখানে কার ভূমিকা কতটুকু তা নির্ধারণ সত্যিই কঠিন। ভিন্ন দুটি দেশের কিংবা জাতীয়-আঞ্চলিক বিভাজন হলে কাজের পৃথক মূল্যায়ন করা যেতে পারত। ফলে শিষ্যা কুট্টমিতার অত্যাচারে অতিষ্ঠ গুরু নটমুখের পরিণতি দেখে টেলিভিশন প্রযোজক ও লেখক হাসান অতি সতর্কাতায় যেভাবে না চেয়েও এলিজার পতন দ্রুত করল ঠিক তেমনিভাবে রোগের কারণ নির্নিত হলো বলেই রোগীর সুস্থতার জন্যে দৌড়াতে হবে, এমন দৌড় না দৌড়ানই ভাল। বরং এই প্রযোজনায় সব থেকে বড় প্রাপ্তি অভিনেত্রী-নির্দেশক শিমূল ইউসুফের উপস্থিতি। নাসিরউদ্দীন ইউসুফ, সেলিম আল দীন সমসাময়িক শিমূল ইউসুফ আজ যেভাবে ছেলে বয়সীদের নির্দেশনায় অভিনয় করে নিজের শক্তি- দক্ষতা এবং মহাত্বতাকে সবিনয় তুলে ধরলেন তার একমাত্র উদাহরণ দেয়া চলে চলচ্চিত্র অভিনেতা অমিতাভ বচ্চনের সঙ্গে যিনি ঐশ্বরিয়া-অভিষেকদের সঙ্গে অভিনয় করে চলেছেন সমান তালে। অভিনেত্রী দোলা কিংবা অভিনেতা আমানের চৌকষ অভিনয় বলে কথা না, এ প্রযোজনার প্রত্যেকের অভিনয় মনে করিয়ে দেয় তারা তৈরি হচ্ছে ঢাকা থিয়েটারের তেজদীপ্ত আবহে।

যান্ত্রিক আবহে যাপিতজীবন যখন শুষ্ক প্রায়, বিনোদন যেখানে দুর্লভ সেখানে উৎসবের তৃতীয় দিনে সেলিম আল দীনের একটি টিভি নাটককে নির্মল হাস্যরসাস্বাাধনে পরিবেশন করেন নির্দেশক রুবাইয়াৎ আহমেদ ইতি পত্রমিতা নামে। সঠিক ঠিকানায় প্রেমপত্র প্রেরিত হলেও বেঠিক ঠিকানায় যোগাযোগের কারনে লম্বু রিংকুর দুর্দশা, বেটে রিংকুর উচ্ছ্বাসা আর বাড়ির বিয়ের আসরে থেকে প্রেমের টানে পালিয়ে আসা পিংকুর প্রত্যাশার বিভ্রান্তি নিয়ে নাটক ইতি পত্রমিতা। বাংলার ঐতিহ্যবাহী সঙ পালার সঙ্গে ইতালির ডেল আর্তের ফিউশানে উপস্থাপিত নাট্যে মেকাপ খানিকটা কমতি থাকলেও বাড়তি পাওয়া নাটকের সংলাপ থেকে ব্যাগ শব্দ নিয়ে ব্যাগের সেট দিয়ে পুরো নাটকের সেট সরবরাহ করতে পারা। ব্রিটিশ গ্লোব থিয়েটার ফেরত ভাবানুবাদক রুবাইয়াৎ আহমেদ যেভাবে সূচনা সঙ্গীত সৃজন এবং পরিবেশন করে বাংলা নাটকের বরপুত্র এবং মঞ্চকুসুমের প্রতি নিমগ্ন চিত্তে শ্রদ্ধা পোষণ করলেন তা স্বভাবতই অনুসরণীয়। বিকশিত অভিনেত্রী সামিউন জাহান দোলা উৎসবের চতুর্থ এবং শেষ দিনে উৎসবের অর্থপূর্ণতা দিলেন উষাউৎসব নাটক নির্দেশনা-অভিনয়ের মধ্যে দিয়ে। গারো সম্প্রদায়ের মাইথোলজি অবলম্বনে হত্যার বিপরীতে প্রেম, অসুরের বিপরীতে সুর, বিভেদের বিপরীতে সুর-তাল-লয়ের হারমনি নিয়ে উষা উৎসব। উষা উৎসবের শেষ মুহূর্তে যে বিশালতার আয়োজন প্রয়োজন ছিল তার কমতি মেনে নেয়া যায় এই যুক্তিতে, টানা তিন দিন অপরাপর নাটকে অভিনয় (একদিন বাদে) তথা সংযুক্তির পর এইটুকু খামতি আপাত মেনে নেয়া গেল। মানা গেল না নাসিরউদ্দীন ইউসুফের নাটক শুরুর পূর্বের বক্তব্যে গারো সংস্কৃতি প্রসঙ্গ আরও একটু ডিটেলে না আসা। কারণ কমিউনিকেটর হিসেবে তিনি দুর্লভ। তথাপি জগ্লুল আহ্মেদ এবং কাইয়ুম চৌধুরীকে নিয়ে তাঁর মরমীয় ঘোষিত অবস্থান দর্শকদের চোখে জল এনেছে। উৎসবের উদ্বোধনে উদ্বোধক মাননীয় সংস্কৃতিমন্ত্রী এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর অত্যন্ত দায়িত্ব নিয়ে সঠিক কথাই বলেছিলেন, ‘নাটক মঞ্চায়নের অবকাঠামো যতটা বেড়েছে যোগ্য নাট্যকর্মী ততটা বাড়েনি।’ সেলিম আল দীন উৎসব ২০১৪ অবলোকন শেষে এটাই সান্ত¡নার, নবতরঙ্গে ঢাকা থিয়েটার। নতুন প্রজন্ম নতুন থিয়েটার, ভিত্তিভূমি যোগ্যতার।

প্রকাশিত : ৪ ডিসেম্বর ২০১৪

০৪/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: