মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২২.৮ °C
 
২৯ মে ২০১৭, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৪, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
সর্বশেষ

মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রমাণ পাওয়া গেছে ‘দ্য রেইন ট্রি’তে

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৭, ০৩:৫৫ পি. এম.
মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রমাণ পাওয়া গেছে ‘দ্য রেইন ট্রি’তে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ বনানীর ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় হোটেলটিতে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে বলে জানিয়েছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত কমিটির প্রধান নজরুল ইসলাম।

নজরুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে আমাদের প্রতীয়মান হয়েছে ‘দ্য রেইন ট্রি’ হোটেলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে। যে কক্ষ দুটিতে ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগ উঠেছে সেই কক্ষ দুটি আজ বন্ধ ছিল। তবে আমরা বাইরে থেকে দেখেছি। হোটেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। আমরা আমাদের প্রতিবেদনে সব কিছু উল্লেখ করব।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে হোটেলটি পরিদর্শনে আসেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের তদন্ত কমিটির প্রধান নজরুল ইসলাম ও সদস্য শরীফ উদ্দিন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে হোটেলটি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন নজরুল ইসলাম।

তিনি বলেন, বনানীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় একটি তথ্য অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটির কার্যপরিধির একটা অংশ হিসেবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন, সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলা, যে কক্ষে ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগ তা আমরা পরিদর্শন করেছি, সিসিটিভি ক্যামেরা কোনটা কোথায় তা আমরা দেখেছি। সিকিউরিটি, ম্যানেজমেন্ট ও যারা খাবার পরিবেশন করেছেন এরকম ৮-৯ জন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছি।

নজরুল বলেন, ভিকটিম ও অভিযুক্তরা এখানে এসেছিলেন। এখানে বুকিং দেয়া, কখন আসছিলেন, তা শুনেছি। হোটেল কর্তৃপক্ষ বলেছেন, তারা (অভিযুক্তরা) এখানে সাড়ে ৩টার দিকে এসেছিলেন। জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে অভিযুক্তরা গেস্টসহ এসেছিলেন বলে আমরা পূর্ণ বিবরণ পেয়েছি।

সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সম্পর্কে কোনো তথ্য পেয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হোটেলে কর্তৃপক্ষ ২৮ দিনের বেশি সময়ের কোনো সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ রাখেন না বলে আমাদের জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, দুটি রুম তারা বুকিং দিয়েছেন। হোটেল কর্তৃপক্ষ তাদের মতো করে বলছেন যে, তারা হোটেলে ওই রাতে অস্বাভাবিক কিছু দেখেননি। আমরা সবটা পাওয়ার পর ও ভিকটিমদের সঙ্গে কথা বলার পর প্রতিবেদন দাখিল করব। নির্ধারিত ১৫ দিনের মধ্যেই প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

পরিদর্শন শেষে আপনাদের প্রাথমিক পর্যবেক্ষণ কি জানতে চাইলে মানবাধিকার কমিশনের এ কর্মকর্তা বলেন, অনেক এজেন্সি তদন্ত করছে। শক্তিশালী মিডিয়ার কারণে অনেক তথ্য আমরা জেনেছি। প্রাথমিকভাবে আমাদের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে এখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। তবে এ বিষয়টি চূড়ান্তভাবে বলতে গেলে আমাদের আরও অনেকের সঙ্গে কথা বলা দরকার।

হোটেলে মদ্যপানের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে তারা পানীয় পরিবেশন করেছেন বলে দাবি করেছেন। তবে আমাদের বিস্তারিত মদের বিষয়ে কিছু বলেননি। ধর্ষণের ঘটনা যে কক্ষে ঘটেছে তা আমরা বাইরে থেকে পরিদর্শন করেছি।

প্রসঙ্গত, গত ২৮ মার্চ দ্য রেইন ট্রি হোটেলে জন্মদিনের পার্টিতে ডেকে ধর্ষণের ঘটনায় গত ৬ মে ধর্ষণের শিকার বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী বনানী থানায় মামলা করেন। এই হোটেলে ধর্ষণের ঘটনার গুরুত্ব বিবেচনায় স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে মানবাধিকার কমিশন অভিযোগ আমলে নেয়। দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি নিশ্চিত করতে কমিশনের চেয়ারম্যান পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেন। কমিটি ১৫ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবে।

কমিটির সদস্যরা হলেন কমিশনের সার্বক্ষণিক সদস্য মো. নজরুল ইসলাম, অবৈতনিক সদস্য নুরুন নাহার ওসমানী, এনামুল হক চৌধুরী, পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) মো. শরীফ উদ্দীন ও সহকারী পরিচালক (অভিযোগ ও তদন্ত) এম রবিউল ইসলাম।

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৭, ০৩:৫৫ পি. এম.

১৩/০৫/২০১৭ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

জাতীয়



শীর্ষ সংবাদ: