বুধবার ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৮ মে ২০২২ ঢাকা, বাংলাদেশ
প্রচ্ছদ
অনলাইন
আজকের পত্রিকা
সর্বশেষ

ফাস্ট লাইফ ফাস্ট ফুড

কলিং বেল বাজার সঙ্গে সঙ্গেই দরজা দৌড়ে দড়জা খুলে দেয় বিন্তু। দড়জায় দাঁড়িয়েই সজোরে নিশ্বাস ছেড়ে ঠায় দাঁড়িয়ে রইল রাহাত। দেখে মনে হয় নগরের সকল ক্লান্তি যেন ভর করেছে তার ওপর। ঘরে ঢুকেই ধপাস করে বসে পড়ল সোফার ওপর। রাত তখন ন’টার মতো বাজে। পাশের ঘর থেকে ছয় বছরের আরাফ দৌড়ে এসে একটি ছবি বাবকে দেখাল অতি উৎসাহ নিয়ে। কিন্তু তাতেও যেন ক্লান্তি বোধ দূর হচ্ছিল না রাহাতের। বিন্তুকে হাঁক ডেকে কিছু নাস্তা দেয়ার জন্য বলে রাহাত। কিন্তু প্রত্যুত্তরে রাহাত শুনতে পায় একবারে ফ্রেশ হয়ে রাতের খাবার খাওয়ার জন্য। এতে মেজাজ যেন আরও যায় রাহাতের। হাল্কা তর্ক-বিতর্কও শুরু হয়ে যায় দুজনের মধ্যে। বিন্তুর যুক্তি অফিস থেকে ফিরে এসে রাতের খাবার ছাড়া অন্যকিছু প্রস্তুত করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। রাহাত আবার বাইরের সব খাবার পছন্দ করে না। আবার রাতের খাবার পর্যন্ত অপেক্ষ করাও যেন সম্ভব নয়। এক রকম মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। যার রেশ সারা রাতেই থাকে। কেউ কারও সামনে ইজি হতে পারে না। এভাবেই পরদিন আবার অফিস আবার বাড়ি ফেরা। জীবনটা যেন রূপ নেয় যান্ত্রিকতায়। আবার এই যান্ত্রিকতায় না মিশেও যেন উপায় নেই। উন্নত বিশ্বের মানুষদের লাইফ স্টাইলের দিকে তাকালে দেখা যায় তারা প্রত্যেকেই কাজকে ভালবেসে যান্ত্রিকময় জীবনে অভ্যস্ত। অবশ্য ছুটির দিনগুলোতে তারা তাদের সারা সপ্তাহের অবসাদ ভুলে যাবার চেষ্ট করে। প্রতিযোগিতাময় বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আমাদেরও এর ব্যতিক্রম হওয়ার সুযোগ নেই। তবে একটা বড় ধরনের পার্থক্য বরাবরই লক্ষণীয়। উন্নত বিশ্বের যান্ত্রিক জীবন গুছিয়ে পরিচালনার বেশ কিছু সাপোর্টও তারা পেয়ে থাকে। যা আমদের দেশে পাওয়া যায় না। যে কারণে যান্ত্রিক জীবনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে। যেমনÑ যানবাহনের সহজলভ্যতা, কাজের ফাঁকে দ্রুত খাওয়া সেরে নেয়ার মতো খাবার, সন্তানকে টেক কেয়ার করার মতো বিশ্বস্ত ডে কেয়ার ইত্যাদি। তবে সবকিছু ছাপিয়ে দ্রুত স্বাস্থ্যসম্মত খাবার সেরে নেয়াটা যেন বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে জয়েন ফ্যামিলির ট্রেডিশন খুব একটা চোখে পড়ে না। বেশিরভাগই সিঙ্গেল ফ্যামিলি। এই ঢাকায় স্বামী-স্ত্রী এবং একটি কিংবা দুটি বাচ্চার পরিবারের সংখ্যাই বেশি। আবার এই সিঙ্গেল ফ্যামিলির মধ্যে স্বামী-স্ত্রী দুজনেই চাকরি করে এমন পরিসংখ্যান দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। একজনের চাকরির টাকায় যেন সংসারটা ভালভাবে সাজানো যায় না। তাছাড়া শিক্ষিত মেয়েরা আজকাল নিজেদের মেধাকে অলসভাবে পড়ে থাকতে দিতে নারাজ। এটা অবশ্যই সমাজ এবং দেশের জন্য ইতিবাচক দিক। তবে বিপত্তি ঘটে নিজ সংসারে। কারণ উন্নত বিশ্বে নিজের সংসারের ভার অনায়াসেই অন্যের ওপর দিয়ে কর্মক্ষেত্রে বেরিয়ে পড়া যায়। কিন্তু আমাদের দেশে সেই পরিবেশ এখনও গড়ে ওঠেনি। যুদ্ধটা যেন সকাল বেলা থেকেই শুরু হয়ে যায়। বাচ্চাকে স্কুলের জন্য তৈরি করা, নাস্তা বানানো, টিফিন তৈরি করা, নিজেদের খাবার প্রস্তুত করা যেন বিশাল এক কর্মযজ্ঞ। আবার রাতে এসে রাতের খাবারের ঝামেলা। যা রীতিমতো এক যন্ত্রদায়ক ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। তার মধ্যে বাচ্চার টেনশন তো আছেই। অথচ খাবার প্রস্তুতের এ ঝামেল থেকে যদি একটু নিস্তার পাওয়া যেত তাহলে কাজে একটু বেশি মনোযোগী হওয়া সম্ভব হতো। যা থেকে উন্নত বিশ্বের মানুষেরা অনেকটাই মুক্ত। যে কারণে তাদের কাজের গতিও বেশি। তবে আমাদের দেশেও কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান কর্মজীবী মানুষদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। তবে তা প্রয়োজনের তুলনায় কম। বর্তমান সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অনেক কিছুই এখন প্যাকেজ আইটেমের আওতায় চলে এসেছে। খাবার-দাবারেও এসেছে বৈচিত্র্যতা। চালু হয়েছে হোম ফুড ডেলিভারি সার্ভিস। তবে এখনও তা নিয়মিত হয়ে ওঠেনি। অথচ মানুষ কাজের চাপ কমানোর জন্য বিকল্প কিছু খুঁজছে। যেমন কোন প্রতিষ্ঠান যদি সকালের নাস্তার প্যাকেজ অফার করে এবং তা বাড়ি পর্যন্ত সময় মতো পৌঁছে দেয় তাহলে অনেকেই তা সানন্দে গ্রহণ করবে। দুপুরের খাবারের ক্ষেত্রে অফিসগুলোতে এখন ভিন্নতা দেখা যায়। অনেক ক্যাটারিং প্রতিষ্ঠান সুলভমূল্যে অফিস স্টাফদের জন্য দুপুরের খাবার সরবরাহ করে। এ চিত্র এখন প্রায় প্রতিটি অফিসেই দেখা যায়। খাবারটা যদি স্বাস্থ্যসম্মত হয় তাহলে বাড়ি থেকে খাবার বয়ে আনার ঝামেল পোহাতে হবে না। প্রাইভেট সেক্টরের অফিসগুলো কাজের সীমা-পরিসীমা নেই। দেখা যায় অনেক সময় কাজ শেষ করে বাড়ি ফিরতে রাত হয়ে যায়। তখন বাসায় ফিরে রান্না করতে ইচ্ছে হয় না। এ ঝামেলা থেকে মুক্ত করতে কিছু ক্যাটারিং প্রতি বেলার মানসম্মত খাবার বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে থাকে। ফলে ইচ্ছে হলেই যে কেউ এ ঝামেলা থেকে মুক্ত হতে পারবে। তবে যান্ত্রিকতার এ যুগে এ ধরনের প্রতিষ্ঠান আরও বেশি হওয়া প্রয়োজন। কল করা মাত্রই যদি হাতের কাছে পছন্দসই স্বাস্থ্যসম্মত খাবারটি পাওয়া যায় তাহলে অনেক সময় সেভ করা সম্ভব। যা অন্যান্য জরুরী কাজে লাগানো যায়। বেড়ে যাবে কর্ম উদ্দীপনা। হাতে হাত রেখে তাল মেলানো সম্ভব হবে উন্নত বিশ্বের সঙ্গে।

যাপিত ডেস্ক

শীর্ষ সংবাদ:
লুটপাটে নিঃস্ব গ্রাহক ॥ পি কে হালদারের থাবা         অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হোন অপচয় করা যাবে না         তামিমের সেঞ্চুরি- বাংলাদেশের দাপট         প্রকল্প কমিয়ে অর্থায়ন বাড়িয়ে উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন         জাতীয় সরকারের নামে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টি করতে দেয়া হবে না         চুরি, ছিনতাই করতে কক্সবাজার থেকে ঢাকা আসত ওরা         পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণের উপায় খুঁজছে সরকার         অর্থপাচারকারীরা কোন দেশে গিয়েই শান্তি পাবে না         সিলেটে কয়েক লাখ মানুষ পানিবন্দী         সড়ক যেন ধান শুকানোর চাতাল, প্রাণ গেল বাইক আরোহীর         অবশেষে তথ্য অধিকার আইনে তথ্য দিল পুলিশ         ভোলায় বেইলি ব্রিজ ভেঙ্গে ট্রাক অটোরিক্সা খালে         ১১ ডিজিটের নতুন নম্বরে বিপাকে গ্রাহক         কিউআর কোড দিয়ে ভুয়া নিয়োগপত্র দিত ওরা         জিআই সনদ পেলো বাগদা চিংড়ি         জনগণের অর্থ ব্যয়ে সাশ্রয়ী হতে হবে ॥ প্রধানমন্ত্রী         বাস্তব শিক্ষার সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সম্পৃক্ত করার আহ্বান শিক্ষা উপমন্ত্রীর         ডলারের দাম ১০২ টাকার বেশি         সিলেটে বন্যার আরও অবনতির আশঙ্কা         কানের ভেন্যুতে ‘মুজিব’-এর পোস্টার