মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

রাশিয়ায় নিষিদ্ধ ৮৯ ইইউ নেতা

প্রকাশিত : ১ জুন ২০১৫
  • পশ্চিমাদের সঙ্গে বিরোধ আরও তীব্র রূপ নিল

মস্কো ৮৯ জন ইউরোপীয় রাজনীতিক, কর্মকর্তা ও সামরিক নেতার ওপর রাশিয়ায় ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। রুশ পদক্ষেপের ফলে ইউক্রেন সংঘাতে মস্কোর ভূমিকা নিয়ে পাশ্চাত্যের সঙ্গে রাশিয়ার বিরোধ আরও তীব্র রূপ নিল। খবর বিবিসি ও ইয়াহু নিউজ অনলাইনের।

ইইউ বলেছে, ঐ নিষেধাজ্ঞা সম্পূর্ণভাবেই স্বেচ্ছাচারী ও অযৌক্তিক এবং সেজন্য কোন ব্যাখ্যা দেয়া হয়নি।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নিষেধাজ্ঞা আরোপিত ব্যক্তিদের নামের তালিকা সঙ্কলিত করে চলতি সপ্তাহে মস্কোয় ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক প্রতিনিধি দলের হাতে তুলে দেয়। এতে রাশিয়ার কট্টর সমালোচক এবং সামরিক ও গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তাদের মধ্যে ইইউ কাউন্সিলের জেনারেল সেক্রেটারি উভে করসেপিয়াস এবং সাবেক ব্রিটিশ উপ-প্রধানমন্ত্রী নিক ক্লেগও রয়েছেন। মার্কিন নাগরিকদের জন্যও অনুরূপ এক তালিকা রয়েছে বলে মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা রুশ মিডিয়াকে জানান। রাশিয়া ২০১৪ সালের মার্চে ক্রিমিয়া দখলের পর ইইউ বেশ কিছু সংখ্যক রুশ ও ইউক্রেনীয় নাগরিক ও সংগঠনের ওপর অর্থনৈতিক ও ভিসা নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে এবং তাদের সম্পদ আটক করে। মস্কো ইউক্রেনে সরকারী বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াইরত রুশপন্থী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সমর্থন করছে এমন পশ্চিমা অভিযোগ অস্বীকার করে থাকে। সেখানে লড়াইয়ে ৬ হাজার ২শ’ ব্যক্তি নিহত হয়। ইইউর এক মুখপাত্র জানান, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে রাশিয়া ইইউর কিছু সংখ্যক রাজনীতিককে রাশিয়ায় প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। ইইউ জানায় যে, সংস্থাটি নিষেধাজ্ঞা আরোপিত ব্যক্তিদের নামের তালিকা বারবার চেয়েছিল, কিন্তু ইতোপূর্বে কোন কিছু জানানো হয়নি। ইইউর এক মুখপাত্র শনিবার জানান যে, ৮৯ জনের নামের তালিকা এখন রুশ কর্তৃপক্ষ দিয়েছে। আমরা এ সিদ্ধান্তের আইনগত ভিত্তি মানদ- ও প্রক্রিয়া সম্পর্কে অন্য কোন কিছু জানতে পারিনি। তিনি আরও বলেন, আমরা এ পদক্ষেপকে বিশেষত আরও ব্যাখ্যা ও স্বচ্ছতার অনুপস্থিতিতে সম্পূর্ণভাবেই স্বেচ্ছাচারী ও অযৌক্তিক বলে মনে করি। ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপের কোন যুক্তি নেই।

তিনি বলেন, যদি রাশিয়ার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে ইইউর ওপর চাপ প্রয়োগ করা মস্কোর উদ্দেশ্য হয়, তবে সেই চাপ দেয়ার পথ এটি নয়। সুইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মারগট ওয়ালস্ট্রোম বলেন, মস্কোর পদক্ষেপ রাশিয়ার কার্যকলাপ নিয়ে বিশ্বাসবোধ বাড়াতে অবদান রাখবে না।

রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, রুশ নিষেধাজ্ঞা রাশিয়ার ওপর ইইউর নিষেধাজ্ঞা আরোপেরই ফল। ওই কর্মকর্তা রুশ বার্তা সংস্থা ‘তাস’কে বলেন, ওইসব ব্যক্তির নাম তালিকাভুক্ত করার কারণ বোঝা সহজ। এটি হলো জার্মানির নেতৃত্বে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কয়েকটি রাষ্ট্রের রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের জবাব। রুশ তালিকাতে ফরাসি দার্শনিক বার্নার্দ হেনরি ফেডির নামও রয়েছে। তিনি রুশ নেতা ভøাদিমির পুতিনের কড়া সমালোচক।

ব্রিটিশ গোয়েন্দা প্রধানরাও রুশ ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্যস্থল বলে মনে হয়। এতে এমআই ফাইভের ডিরেক্টর জেনারেল এ্যান্ডু পারকার ও এমআইসিক্সের সাবেক প্রধান স্যার জন সয়ারসের নাম রয়েছে বলে ফাঁস হওয়া তালিকাটিতে দেখা যায়।

প্রকাশিত : ১ জুন ২০১৫

০১/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: