রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ওয়াক্ফ এস্টেটের পুকুর অর্ধেক দামে ইজারা ॥ উত্তেজনা

প্রকাশিত : ৮ জানুয়ারী ২০১৫
  • পাবনায় মোখলেছুর রহমান

.নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ৭ জানুয়ারি ॥ চাটমোহর উপজেলার পাকপাড়া শাহ মোখলেছুর রহমান ওয়াক্ফ এস্টেটের ১৬ বিঘার দুটি পুকুর গোপনে অর্ধেক দামে ইজারা দেয়া হয়েছে। স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে নিয়মবহির্ভূত পুকুর দুটি ইজারা দেয়ায় প্রতিষ্ঠানের ৭-৮ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। এলাকাবাসী প্রতিবাদ করায় ইজারাদারের ভাই একাধিক সন্ত্রাসী মামলার আসামি সাবেক মোতাওয়াল্লি শাহ আলম তার বাহিনী দিয়ে সাধারণ মানুষের ওপর হামলাসহ গুরুতর আহত করেছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেও কোন প্রতিকার পাচ্ছেন না এলাকাবাসী। জানা গেছে, পাকপাড়া শাহ মোখলেছুর রহমান ওয়াক্ফ এস্টেটের ১৬ বিঘার দুটি পুকুর দু’বছরের জন্য ৮ লাখ টাকায় গোপনে ইজারা দেয়া হয়। বর্তমান মোতাওয়াল্লি বাঘলবাড়ি দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আব্দুস সামাদ আজাদী অতিগোপনে সাবেক মোতাওয়াল্লি শাহ আলমের ভাই জাহিদুল ইসলামের নামে ইজারা দেন। অর্ধেক দামে পুকুর দুটি ইজারা দেয়ায় এলাকাবাসী ওয়াক্ফ প্রশাসক ঢাকার কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। ওয়াক্ফ প্রশাসক পাবনা অফিসের হিসাবরক্ষককে তদন্তে পাঠায়। তদন্তকারী হিসাবরক্ষক মিথ্যা তদন্ত প্রতিবেদন পাঠালে অভিযোগকারীরা পুনর্তদন্তের আবেদন করেন। জেলা প্রশাসক পুনর্তদন্তের জন্য চাটমোহর উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) তদন্তের নির্দেশ দেন। অভিযোগকারীদের ২৭ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে শুনানির জন্য ডাকা হয়। শুনানিকালে সহকারী কমিশনার ৮ লাখ টাকার বিপরীতে ইজারা নিতে ইচ্ছুক আছেন কিনা জানতে চাইলে তাৎক্ষণিক ১২ লাখ টাকার ডাক ওঠে। ১২ লাখ টাকার ইজারা নিতে ইচ্ছুকরা জেলা প্রশাসক ও ওয়াক্ফ প্রশাসক বরাবর এ ব্যাপারে অঙ্গীকারনামা পাঠিয়ে ইজারার আবেদন করেন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর সঙ্গে ইজারাদারদের তীব্র উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে সাবেক মোতাওয়াল্লি শাহ আলম তার বাহিনী দিয়ে ৫ ডিসেম্বর ইজারার বিরোধিতাকারীদের ওপর হামলা চালিয়ে গুরুতর আহত করে। চাটমোহর থানার মামলা নং ০৪। উল্লেখ্য, শাহ আলম চাঁদাবাজি, মারপিট, এক মেয়ের ওপর এ্যাসিড নিক্ষেপসহ বেশ কয়েকটি মামলার আসামি। চাটমোহর উপজেলা প্রশাসন পুকুর ইজারা দিতে বর্তমানে সময়ক্ষেপণ করছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। ইতোমধ্যে শাহ আলম বাহিনী এস্টেটের পুকুরপাড় কেটে পানি বের করে দিয়েছে। গত ৪ মাস ধরে পুকুর দুটি পতিত রয়েছে। এলাকাবাসী অভিযোগ করেছে মোঃ গুলজার হোসেনকে ওয়াক্ফ এস্টেটের তিনবার সভাপতি বানিয়ে অনুগত কমিটি দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রতিষ্ঠানের সম্পদ লুটপাট চালানো হচ্ছে। প্রতিবাদীকারীরা বর্তমানে মারাত্মক নিরাপত্তাহীনতার মধ্যে দিন কাটাচ্ছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে। এ ব্যাপারে মোতাওয়াল্লি আব্দুস সামাদ আজাদীর সঙ্গে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

প্রকাশিত : ৮ জানুয়ারী ২০১৫

০৮/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: