কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

গেল বছরে ছয় হাজার ৫৮২ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত : ১ জানুয়ারী ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ২০১৩ সালে সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সংখ্যা ছিল পাঁচ হাজার ১৬২ জন। ২০১৪ সালে তা বেড়ে ছয় হাজার ৫৮২ জনে দাঁড়িয়েছে, যা আগের বছরের তুলনায় ২৭ শতাংশ বেশি। নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)-এর সড়ক দুর্ঘটনার পরিসংখ্যান ও প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য উপস্থাপন করেন সংগঠনের চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন। তিনি বলেন, এ বছর মোট প্রকাশিত ঘটনার মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় দশ হাজার ৭৭০ জন আহত হয়েছেন। অথচ আগের বছর আহতের সংখ্যা ছিল আট হাজার ৯১৪ জন।

২০১৪ সালে উল্লেখযোগ্য সড়ক দুর্ঘটনা হলো নাটোরের বড়াইগ্রামে। যশোরে বরযাত্রীবাহী গাড়ির দুর্ঘটনায়ও বহু মানুষ নিহত হন। বিশিষ্ট সাংবাদিক জগলুল হায়দার চৌধুরী ২৯ নবেম্বর সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন। নৌ-পথে বড় ট্র্যাজেডি পিনাক-২ লঞ্চডুবি। এছাড়া রেলপথে সপ্তাহে কমলাপুরের দুর্ঘটনাটি উল্লেখযোগ্য। তবে বেশির ভাগ দুর্ঘটনা ঘটে মোটরসাইকেল, মহাসড়কে ছোট ছোট যানসহ বিভিন্ন মহাসড়কে ধীরগতির বাহন চলাচলের কারণে।

ব্ল্যাকস্পটে যে সব দুর্ঘটনা হতো সেগুলো মেরামত করায় মানিকগঞ্জ রোড, ঢাকা-চট্টগ্রাম রোডসহ বেশ কয়েকটি রোডে দুর্ঘটনা কমেছে। আগের বছর ব্ল্যাকস্পটের সংখ্যা ছিল ২০৯টি। ২০১৪ সালে তা কমে হয়েছে ১৪৪টি।

নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে বিভিন্ন পরামর্শ দেয়া হয় সংগঠনের পক্ষ থেকে। এর মধ্যে চালকের সচেতনতা ও তাদের দায়িত্বশীল করার জন্য উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দেয়া, এসএসসি পাস দরিদ্র ও বেকার যুবকদের ঋণ প্রদানের মাধ্যমে দক্ষ চালক হিসেবে গড়ে তোলা, দুর্ঘটনার জন্য দায়ী সব পক্ষকে আইনের আওতায় আনতে প্রয়োজনে নতুন ধারা সংযোজন, সব মহাসড়ক এবং প্রধান সড়কে একমুখী চলাচলের সিদ্ধান্ত নিয়ে দীর্ঘ ও উচ্চতাসম্পন্ন সড়ক বিভাজনকারী রোড ডিভাইডারের ব্যবস্থা করাসহ দুর্ঘটনায় করণীয় বিষয়গুলো সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের তিন যুগ্মমহাসচিব বেলায়েত হোসেন নান্টু, সাদেক হোসেন খান, লিটন, রিয়াজ উদ্দিন প্রমুখ।

প্রকাশিত : ১ জানুয়ারী ২০১৫

০১/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: