মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

রাজধানীতে পুলিশসহ ৬ ছিনতাইকারী ও ৬ ডাকাত গ্রেফতার

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজধানীর পৃথক এলাকা থেকে ছিনতাইকালে এক পুলিশসহ ৬ ছিনতাইকারী ও ৬ ডাকাত গ্রেফতারের ঘটনা ঘটেছে। গ্রেফতারকৃত পুলিশ সদস্যসহ দুই ছিনতাইকারী গণপিটুনির শিকার হয়েছে। তাদের কাছে থেকে উদ্ধার হয়েছে ছিনতাই হওয়া লাখ টাকার মধ্যে সাড়ে ৭৩ হাজার টাকা। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে ৩ রাউন্ড তাজা বুলেটসহ ১টি বিদেশী রিভলবার এবং সন্ত্রাসী কাজে ব্যবহৃত ২টি মাইক্রোবাস ও একটি প্রাইভেটকার।

সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় উচ্চ আদালতের সামনে বাইসাইকেল থামিয়ে দুই আরোহীর কাছ থেকে প্রায় এক লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে তিন ছিনতাইকারী। এ সময় ছিনতাইয়ের কবলে পড়া দুই ব্যক্তির চিৎকারে জনতা ধাওয়া করে দুই ছিনতাইকারীকে আটক করে। আটক হওয়া দুই ছিনতাইকারীর কাছ থেকে সাড়ে ৭৩ হাজার টাকা উদ্ধার হয়। আটকের পর ব্যাপক গণধোলাই দেয় দুই ছিনতাইকারীকে। অপর ছিনতাইকারী পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। পরে পুলিশ দুই ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করে।

শাহবাগ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জানান, জনতা তাদের কাছে নূরে আলম ও মিজানুর রহমান দুই ছিনতাইকারীকে হস্তান্তর করে। নূর-ই-আলম পুলিশ কনস্টেবল। আর পালিয়ে যাওয়া অপর ছিনতাইকারী পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) এ সদ্য যোগ দেয়া কনস্টেবল খলিল। তাকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। গ্রেফতারকৃত মিজানুর রহমান পেশাদার ছিনতাইকারী। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে সাড়ে ৭৩ হাজার টাকা উদ্ধার হয়েছে।

ছিনতাইয়ের কবলে পড়া লিটন ও সানি জানান, তারা চকবাজারে ভাঙতি টাকার ব্যবসা করেন। সোমবার দুপুরে মতিঝিল থেকে টাকা ভাঙতি করে বাইসাইকেলযোগে চকবাজারের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে হাইকোর্ট গেইটের সামনে পৌঁছলে পুলিশ লেখা একটি মোটরসাইকেলে করে তিন ব্যক্তি তাদের সাইকেলের গতি রোধ করেন। এ সময় লিটনকে তোর নামে মামলা আছে বলে পুলিশ সদস্যরা তাকে মোটরসাইকেলে উঠার নির্দেশ দেয়। লিটন ও সানির চিৎকারে জনতা ধাওয়া করে দুইজন ছিণতাইকারীকে ধরে গণপিটুনি দেন।

গ্রেফতারকৃত দুই ছিনতাইকারীর বিরুদ্ধে রাজধানীর শাহবাগ মডেল থানায় দ্রুত বিচার আইনে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় পুলিশ সদস্যসহ গ্রেফতারকৃত দুইজনকে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের প্রস্তুতি চলছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ঢাকা মহানগর পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার আব্দুল বাতেন জনকণ্ঠকে জানান, গ্রেফতারকৃত পুলিশ কনস্টেবল পুলিশ সদর দফতরে কর্মরত ছিলেন। তাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনার পেছনে আরও কোন কারণ আছে কিনা সে বিষয়ে তদন্ত চলছে।

সোমবার ভোর ৪টার দিকে ডিবির অপর একটি দল রাজধানীর পূর্ব রামপুরা নিরিবিলি গলিতে অভিযান চালিয়ে রিয়াজ, মাসুদ, সাইফুল ইসলাম ও বিল্লাল হোসেন নামে চার ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করে। এদের সবার বয়স ২০ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত ১টি প্রাইভেটকার, ৩ রাউন্ড তাজা বুলেটসহ ১টি রিভলভার ও ২টি চাপাতি উদ্ধার হয়।

গ্রেফতারকৃত ছিনতাইকারীরা গত ৩০ সেপ্টেম্বর রাত পৌনে ১২টায় রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানাধীন ফ্যালকন টাওয়ারের সামনে থেকে যাত্রীবেশে একটি প্রাইভেটকার ছিনতাই করে। ছিনতাইকৃত প্রাইভেটকার দিয়েই তারা ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় গাড়ি ছিনতাই, পথচারীদের গাড়িতে উঠিয়ে নগদ টাকা, ক্রেডিট কার্ড ও স্বর্ণালঙ্কার ছিনতাই করার কথা স্বীকার করেছে।

এদিকে রবিবার রাত ১১টায় রাজধানীর মুগদা থানাধীন বাসার টাওয়ার এলাকায় ডিবির একটি দল অভিযান চালায়। অভিযানে ডাকাতির প্রস্ততিকালে গ্রেফতার হয় মোঃ আকতার, মোঃ আফতাব হোসেন, মোঃ হানিফ, মোঃ হেলাল মাতব্বর, মোঃ সুমন আলী আপেল ও মোঃ জুয়েল হোসেন। তাদের সবার বয়স ২৫ থেকে ৩৫ বছরের মধ্যে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হয় ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ২টি মাইক্রোবাস, ১টি চাপাতি , ১টি ছোরা ও ১টি চাকু। গ্রেফতারকৃতরা পেশাদার ডাকাত বলে ডিবি পুলিশ জানায়। ডিবির পশ্চিম বিভাগের উপকমিশনার শেখ নাজমুল আলমের নির্দেশনায় ও অতিরিক্ত উপকমিশনার আশিকুর রহমানের তত্ত্বাবধানে অভিযান দুটি পরিচালিত হয়।

প্রকাশিত : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪

১৬/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: