মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নির্মাণ কাজের তদারকি ও সেফগার্ড না থাকায় প্রাণ গেল শ্রমিকের

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৫, ০১:১৩ এ. এম.
  • সাবেক রূপসী বাংলা হোটেলে দুর্ঘটনায় মন্ত্রীর বিস্ময়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নির্মাণকাজের তদারকি ও সেফ গার্ড না থাকায় প্রাণ দিতে হয়েছে সাবেক রূপসী বাংলা হোটেলের শ্রমিক আলতাফ হোসেনকে। মঙ্গলবার গভীর রাতের এ দুর্ঘটনায় আহত আরও দশজন ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসাধীন। তাদের দুজনের অবস্থাও আশঙ্কাজনক। উল্লেখ্য, রূপসী বাংলা হোটেলের সংস্কার চলছে। নতুন নাম হবে ইন্টারকন্টিনেন্টাল। ইন্টারকন্টিনেন্টালের মতো আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন হোটেলের নির্মাণকাজের সময় এ ধরনের উদাসীনতা, গাফিলতি ও অবহেলায় বিস্ময় প্রকাশ করেন বিমান মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন ও সচিব খোরশেদ আলমসহ হতাহতদের স্বজনরা।

বুধবার নিহত লাশের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা সহকর্মীরা ক্ষোভের সঙ্গে অভিযোগ করেনÑ এমন একটি দুর্ঘটনা ঘটতে পারে তেমন আশঙ্কা ছিল আগেই। ছাদের ঢালাই কাজের সময় নিচে যে ধরনের প্রটেকশন থাকা দরকার ছিলÑ সেটা ছিল না। সর্বক্ষণিক একজন ইঞ্জিনিয়ার ও সুপারভাইজার থাকা বাধ্যতামূলক হলেও সেটা মানা হয়নি। শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তা না দিয়েই নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান চারুতা ঝুঁকির মাঝেই কাজ করতে বাধ্য করে। এর দায়-দায়িত্ব চারুতাকেই নিতে হবে।

আহত শ্রমিক জাকিরুল জানান, দুর্ঘটনার সময় ভবনটিতে ৩০ থেকে ৩৫ শ্রমিক কাজ করছিল। কাজ করার সময় হঠাৎ সিঁড়ি ধসে তারা এর নিচে চাপা পড়ে। এ সময় অন্য শ্রমিকরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে।

বুধবার দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, হোটেলের সামনের উত্তরাংশে ঢালাইয়ের কাজ করার আগে লোহার খাঁচা তৈরি করা হয়েছিল। কিন্তু সেটাই রাতে হঠাৎ বিকট শব্দে ভেঙ্গে পড়ে। এতে বেশ কয়েক শ্রমিক আহত হন। তাৎক্ষণিক ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান। হাসপাতালে ১১ শ্রমিককে নেয়ার পর তাদের মধ্যে একজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। দুর্ঘটনার পর ভেঙ্গে পড়া লোহার শেডের নিচে রাতভর তল্লাশি চালায় ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধারকর্মীরা। সে সময় ভেতরে আর কেউ আটকে নেই বলে ঘোষণা দেন ফায়ার সার্ভিসের মিজানুর রহমান।

এদিকে নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান চারুতার পক্ষ থেকে হতাহতদের কোন চিকিৎসা সহায়তা না দেয়ায় আরও বিক্ষুব্ধ হয়েছে বাকি শ্রমিক। তবে খবর পেয়ে বুধবার সকালে দুর্ঘটনাস্থলে ছুটে যান বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। তিনি হতাহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন। এ দুর্ঘটনার কারণ ও হতাহতদের ক্ষতিপূরণ প্রদানের নির্দেশ দেন। এ সময় তিনি জনকণ্ঠকে বলেন, এ ধরনের নির্মাণকাজে শ্রমিকদের প্রাণহানির ঘটনায় ক্ষতিপূরণ প্রদানের সুনির্দিষ্ট আইন রয়েছে। সেই আলোকেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ তারকা হোটেল শেরাটনের চুক্তি শেষে রূপসী বাংলা নাম ধারণ করে। এরপর সেটার ব্যবস্থাপনার দায়ভার দেয়া হয় বিশ্বখ্যাত ইন্টারকন্টিনেন্টাল চেনের কাছে। নতুন চুক্তির আওতায় সংস্কারকাজের জন্য গতবছর ১ সেপ্টেম্বর বন্ধ করে দেয়া হয়। চারুতা নামের দেশীয় একটি প্রতিষ্ঠান বর্তমান সংস্কার কাজ করছে। ইতোমধ্যে ৪৮ বছরের পুরনো এই হোটেলটির নামকরণ করা হয়েছে ‘ইন্টারকন্টিনেন্টাল।’ ৪৮০ কোটি টাকার এ সংস্কারের কাজ শেষ হওয়ার সময়সীমা ছিল আগামী জানুয়ারি মাসে। সেটা সম্ভব না হওয়ায় এখন আগামী জুনের দিকে শেষ করা হবে জানিয়েছে চারুতা। কিন্তু হোটেলের নিজস্ব প্রকৌশলীরা জানান, কাজের যে গতি তাতে আগামী সেপ্টেম্বরের আগে কিছুতেই এটা উদ্বোধন করা সম্ভব হবে না।

প্রকাশিত : ১৭ ডিসেম্বর ২০১৫, ০১:১৩ এ. এম.

১৭/১২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: