কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সলিউশন বক্স

প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৫
  • গাজী আলিম আল রাজী
  • ই-মেইল solution.janakantha@gmail.com

সমস্যা : উইন্ডোজ এক্সপি অপারেটিং সিস্টেমের হার্ডডিস্ক ড্রাইভের লেটার ( C, D, E, F ইত্যাদি) পরিবর্তন করতে চাই। সঙ্গে টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ করা জানালে খুশি হব।

মুহাম্মদ নাঈমুল হাছান, অভয়নগর, যশোর

সলিউসন : হার্ডডিস্ক ড্রাইভের লেটার পরিবর্তন করা যায় সহজে। উইন্ডোজ এক্সপি অপারেটিং সিস্টেমের হার্ডডিস্ক ড্রাইভের লেটার পরিবর্তন করা যায় সহজেই। এ জন্য Start®Settings®Control Panel®Administrative Tools-এ ডাবল ক্লিক করতে হবে। এবার Computer Management-এ ডাবল ক্লিক করতে হবে। কম্পিউটার ম্যানেজমেন্ট উইন্ডোর বাম পাসের প্যানেলে Disk Management-এ ক্লিক করুন। এবার ডান দিকের প্যানেলে বিভিন্ন ড্রাইভ দেখা যাবে। এর মধ্য থেকে যে ড্রাইভটির লেটার পরিবর্তন করতে চান সে ড্রাইভটির ওপর মাউসের ডান বাটন ক্লিক করে Change Drive Letter and Paths--এ ক্লিক করুন। এবার Change Drive Letter and Paths-এ ক্লিক করলে একটি বক্স প্রদর্শিত হবে। বক্সের ডান দিকে আপনার পছন্দমতো লেটার সিলেক্ট করে Ok বাটনে ক্লিক করে বের হয়ে আসুন। এখন দেখুন আপনার হার্ডডিস্ক ড্রাইভের লেটারটি পরিবর্তন হয়েছে।

টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ করা অনেক সহজ। কমপিউটার ব্যবহারকারী যখনই ডেস্কটপের কোন আইকনের ওপর মাউস পয়েন্টার নিয়ে আসেন, তখন একটি টুলটিপ ডিসপ্লে হয়। এ টুলটিপে আইকন সংক্রান্ত তথ্য প্রদর্শিত হয়। আপনি যদি কম্পিউটার ব্যবহারে অভ্যস্ত হন, তাহলে এক পর্যায়ে এ টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ করতে চাইবেন এটাই স্বাভাবিক। নিচে বর্ণিত রেজিস্ট্রি এডিটিংয়ের মাধ্যমে এ টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ করতে পারবেন।

* Startএ ক্লিক করে Run-G Regedit টাইপ করে এন্টার চাপুন।

* Registry Editor-G HKEY_ CURENT_USER\Software\Microsoft\Windows\Current Version\Explorer\Advanced রেজিস্ট্রি কী-তে ক্লিক করুন।

* ডান প্যানে ঝযড়ি ওহভড় ঞরঢ় রেজিস্ট্রি কী-তে ডাবল ক্লিক করুন।

* Value data ১-কে পরিবর্তন করে ০ করুন।

* ড়শ বাটন ক্লিক করে রেজিস্ট্রি এডিটর উইন্ডো বন্ধ করে দেখুন টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ হয়ে গেছে।

* আগের অবস্থায় ফিরতে হলে Value data ০- কে পরিবর্তন করে ১ করেন।

এভাবেই আপনি সহজে হার্ডডিস্ক ড্রাইভের লেটার পরিবর্তন ও টুলটিপ ডিসপ্লে বন্ধ করা অনেক সহজে করতে পারেন।

সমস্যা : OOP বা অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং কি? ঙঙচ বা অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং সম্পর্কিত বিষয়গুলো বিস্তারিত জানালে খুশি হব।

শীলব্রত বড়ুয়া, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম

সলিউসন : অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং হচ্ছে প্রোগ্রামিংয়ের একটি মেথড। এটি আসলে কোন নির্দিষ্ট প্রোগ্রামিং ল্যাংগুজের জন্য নয়, বরং ঙঙচ এর কনসেপ্ট সাপোর্ট করে এমন সব প্রোগ্রামিং ল্যাংগুজেই এই মেথড ইমপ্লিমেন্ট করা যায়। যদি ও পিএইচপি পরিপূর্ণভাবে ঙঙচ এর সকল কনসেপ্ট এখনও সাপোর্ট করে না। তারপরেও বর্তমানে পিএইচপি ৫ ভার্ষণে ঙঙচ কনসেপ্টগুলোর অধিকাংশেরই সাপোর্ট আছে। সম্ভবত পিএইচপি ভার্ষণ ৬ থেকে আমরা ঙঙচ এর পূর্ণ সাপোর্ট পাব। যাই হোক এতে টেনশনের কোন কারণ নেই, কারণ আমার জানামতে অন্যতম শক্তিশালী ল্যাংগুয়েজ প++ ও পরিপূর্ণভাবে ঙচচ সাপোর্ট করে না। পরিপূর্ণভাবে ঙঙচ এর সকল কনসেপ্ট সাপোর্ট করে জাভা এবং সিমুলা ৬৭। আসুন এবার সাধারণ প্রসিডিউর বা টপ ডাউন প্রোগ্রামিংয়ের সঙ্গে তুলনা করে আমরা ঙঙচ সম্বন্ধে কিছু জ্ঞান অর্জন করি। সাধারণ প্রোসিডিউর ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং (যেমন ঈ ) এ কোন সমস্যা সমাধানের জন্য প্রথমে মূল সমস্যাকে ছোট ছোট ফাংশনে বিভক্ত করা হয়। এর পর ফাংশনগুলোতে প্রয়োজন অনুসারে ভেরিয়েবল ব্যবহার করা হয়। ভেরিয়েবলগুলো লোকাল (অর্থাৎ শুধুমাত্র ওই ফাংশনের জন্য নির্দিষ্ট ভেরিয়েবল) কিংবা গ্লোবাল ( প্রোগ্রামের যে কোন অংশ থেকে একে এক্সেস করতে পারে) হতে পারে। এবং ফাংশনসমূহ একে অন্যের ডাটা এক্সেস করতে পারে যার কারণে ডাটার নিরাপত্তা অনেকাংশে হ্রাস পায়। এই পদ্ধতিতে ডাটা অপেক্ষা ফাংশনকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। অন্যদিকে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড পদ্ধতিতেও মূল সমস্যাকে ছোট ছোট অংশে বিভক্ত করা হয় যেগুলো অবজেক্ট নামে পরিচিত। এর পর অবজেক্টের ডাটার ফলাফল যোগ করার জন্য প্রয়োজনীয় ফাংশন যোগ করা হয়। তাই অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড মেথডে ফাংশন অপেক্ষা ডাটাকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়। অবজেক্ট আসলে কি? এই প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে সাধারণভাবে অবজেক্ট বলতে বস্তু বুঝায় আর পিএইচপিতে অবজেক্ট হচ্ছে একটি স্পেশাল ডাটা টাইপ। একটি বাস্তব উদাহরণ হিসেবে আমরা একটি গাড়িকে অবজেক্ট হিসেবে বিবেচনা করতে পারি। ধরে নিলাম গাড়িটির রং লাল এবং তাতে চারটি চাকা আছে। এগুলো হচ্ছে এই অবজেক্টটির প্রপার্টি বা বৈশিষ্ট্য। এবং গাড়িটি চলতে পারে সেটি হচ্ছে তার মেথড অথবা ক্রিয়া। এখন আমরা পরিচিত হব ক্লাসের সঙ্গে। ক্লাস হচ্ছে অবজেক্টের একটি ব্লুপ্রিন্ট বা অবজেক্টের প্রোটোটাইপ ফর্ম। এটাকে ঙঙচ এর ফাউন্ডেশন ব্লক হিসেবে ধরা যায়। পরবর্তীতে ব্যবহারিক পর্বগুলোতে আমরা ক্লাসের আরও বিস্তারিত আলোচনা করব। প্রতিটি ক্লাস বা অবজেক্টের বৈশিষ্ট্য নিয়ে আবার চাইল্ড ক্লাস তৈরি করা যায়। এই প্রক্রিয়াকে ইনহেরিটেন্স হলা হয়। এর ফলে কোডের পুনর্ব্যবহার করা সম্ভব হয়, যা অনেক সময় বাঁচায় এবং নির্ভুলভাবে কোড লিখতে সাহায্য করে। ফলে প্রোগ্রামের মেইন্টেন্স ও সহজ হয়ে যায়। ইনহেরিটেন্সের মাধ্যমে এইভাবে নতুন ক্লাস তৈরি করলে নতুন ক্লাসটিকে ইনহেরিটেড/ডিরাইভড ক্লাস এবং যে ক্লাসের বিশিষ্ট নিয়ে তৈরি করা হয়েছে তাকে বেস ক্লাস বলা হয়। প্রতিটি ক্লাসের একই বিশিষ্ট থাকা সত্ত্বেও ইন্টারএকশনের ওপর নির্ভর করে তারা আলাদা আলাদা আউটপুট রিটার্ন করতে পারে, এই বৈশিষ্ট্যকে পলিমরফিজম বলা হয়। এটি ঙঙচ এর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য। প্রোসিডিউর ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং এ ফাংশন এবং ডাটা আলাদা আলাদা থাকে, অন্যদিকে অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং এ ফাংশন এবং ডাটা একত্রে একটি ইউনিট হিসেবে থাকে যেটি এনক্যাপ্সুলেশন নামে পরিচিত। এই সকল বৈশিষ্ট্য ছাড়া ঙঙচ এর অন্য টার্মগুলোর মধ্যে রয়েছে ডায়নামিক বাইন্ডিং, মেসেজ পাসিং, ডাটা এবস্ট্রাকশন যার সবগুলোর আলোচনা এই সিরিজের সীমিত পরিসরে করা সম্ভব।

প্রকাশিত : ২০ জুন ২০১৫

২০/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: