আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পার্বত্য অঞ্চলের বৈসাবি

প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০১৫
  • শাকুর মজিদ

বান্দরবান, খাগড়াছড়ি আর রাঙ্গামাটি- এ তিনটি জেলা নিয়েই বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ২৩ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকা পার্বত্য চট্টগ্রাম, যা বাংলাদেশের মোট আয়তনের এক-দশমাংশ। পুরো পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে প্রায় ১৪ লাখ মানুষের বাস। এদের মধ্যে বাঙালী আর পাহাড়ী আদিবাসী সংখ্যায় প্রায় সমানে সমান। আদিবাসী ১২টি গোষ্ঠীর সঙ্গে সমতল থেকে অভিবাসিত হওয়া প্রায় ৭ লাখ বাঙালী এক সৌহার্দ্যময় পরিবেশ নিয়ে এই পাহাড়ী এলাকায় বাস করেন।

বাংলাদেশের পার্বত্য অঞ্চলের এই জনগোষ্ঠী বাংলা সনের পথম দিনটি উদযাপন করার জন্য আয়োজন করেন ‘বৈসাবি’র। ত্রিপুরাদের বৈসুক বা বৈসু, মারমাদের ‘সাংগ্রাই’ আর চাকমাদের ‘বিজু’Ñ এই তিন উৎসবের সমন্বিত নাম বৈসাবি।

২০১০ সালের আগে পার্বত্য জনগোষ্ঠীর এই বৈসাবি আয়োজন দেখতে গিয়েছিলাম। রাঙ্গামাটি, কাপ্তাই আর বান্দরবানে পুরো তিনদিন ঘুরে দেখেছি তাদের এই আয়োজন।

চাকমাদের ‘বিজু’

রাঙ্গামাটি চাকমা অধ্যুষিত এলাকা। সারাদেশে প্রায় ৪ লাখ চাকমা আদিবাসীর বসবাস হলেও খোদ এই রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলায় প্রায় ৩ লাখ চাকমার বাস। নিজস্ব কৃষ্টি, সংস্কৃতি আর পেশা নিয়ে প্রায় ৬শ’ বছর ধরে চাকমারা এই অঞ্চলে বসবাস করছে।

এরা প্রধানত বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। রাঙ্গামাটিতে বৌদ্ধদের একটি বড় প্রার্থনা কেন্দ্র আছে। বাংলা নববর্ষের সময় এই বৌদ্ধ বিহারকে কেন্দ্র করে চাকমাদের সবচেয়ে বড় সামাজিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে।

চাকমাদের প্রধান সামাজিক উৎসব বিজু। বাংলা বছরের শেষ দু’দিন আর নতুন বছরের প্রথম দিন, এ তিন দিনজুড়ে তারা বিজু উৎসব পালন করে। ভোরবেলা পানিতে ফুল ছিটিয়ে উৎসবের সূচনা করে চাকমা কিশোরীরা। দ্বিতীয় দিনে চলে আপ্যায়নের আয়োজন। চাকমারা মনে করে অন্তত দশটি পরিবারকে যদি আপ্যায়িত না করা হয় আর নিজে যদি অন্তত সাতটি বাড়িতে গিয়ে দাওয়াত না খায়, তবে সে খুব বড় আত্মার চাকমা নয়। এই বিজু উৎসব উপলক্ষে চাকমারা বেশ কয়েক পদের সবজি দিয়ে পাজন তৈরি করে। পাজনের সঙ্গে থাকে নিজেদের বানানো বিশেষ ধরনের পানীয়। এই বিজু উৎসবটি রাঙ্গামাটিতে পালিত হয় সর্বজনীনভাবে। পাহাড়ী বাঙালী এক সঙ্গে মিলে মিশে উপভোগ করেন এমন আমুদে আয়োজন।

সাংগ্রাই জল উৎসব

রাঙ্গামাটি থেকে কাপ্তাইয়ের দূরত্ব এখন কমে এসেছে। নতুন সড়কপথ তৈরি হয়েছে পাহাড় কেটে। ডানে বামে কাপ্তাই হ্রদের অপরূপ শোভা দেখতে দেখতে আধা ঘণ্টার মধ্যেই চলে আসা যায় চিতমরম খেয়াঘাটে।

এই খেয়াঘাটের ওপারেই চিতমরম (চিংম্রং) ইউনিয়ন পরিষদ। ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে মারমা উপজাতি গোষ্ঠীর বাংলা নববর্ষ উদযাপনের আয়োজন চিংম্রং সাংগ্রাই। মারমা আদিবাসীদের ঐতিহ্যবাহী এই উৎসবে যোগ দিতে দূর দূরান্ত থেকে উৎসাহী জনগোষ্ঠীর সমাগম হয় এখানে। ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে বসে মেলা। নিজের হাতে, ঘরে বানানো কারু শিল্পে মারমাদের হাত ভাল। তাদেরই হাতে বানানো নানা রকমের সামগ্রীর পসরা নিয়ে দোকানিরা বসেন এখানে। জমজমাট মেলা চলে ৩ দিন ধরে।

এই মারমা জনগোষ্ঠী পার্বত্য চট্টগ্রামের দ্বিতীয় বৃহত্তম আদিবাসী সম্প্রদায়। এরা সংখ্যায় প্রায় দু’লাখ। যদিও পার্বত্য অঞ্চলের বান্দরবান জেলায় তাদের বাস বেশি, তবুও এই রাঙ্গামাটি বা খাগড়াছড়িতেও তাদের বাস আছে। এরা কথা বলে নিজস্ব ভাষায়। এই মারমা সম্প্রদায়ের নিজস্ব বর্ণমালা আছে। এই আয়োজনে সবচেয়ে বড় অংশটি হচ্ছে সাংগ্রাই জল উৎসব। একটা বড় নৌকা মাঠের ওপর এনে রেখে পানি দিয়ে ভর্তি করা হয়। একপাশে ছেলেরা দাঁড়ায় অপরপাশে মেয়েরা। হুইসেল বাজলে পরস্পকে পানি ছিটানো শুরু করে। মারামাদের আরেকটি বড় জল উৎসব দেখেছিলাম বেতবুনিয়া হাইস্কুল মাঠে।

বাংলদেশে পার্বত্য অঞ্চলে প্রায় ২ লাখ মারমার আদি বাসস্থান ছিল বর্তমান মিয়ানমার। প্রায় ৪শ’ বছর ধরে মারমা আদিবাসী সম্প্রদায় স্বদেশীয় ভাষা এবং সংস্কৃতি এখনও লালন করে যাচ্ছে। বাংলাদেশে আসা মারমা আদিবাসী গোষ্ঠী ও পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন জায়গায় নতুন বছরে এমন আয়োজন করে থাকেন।

এ আয়োজনের মূলে থাকে আনুষ্ঠানিক জল উৎসব। এই উৎসবে জল ছিটানো হয় নারী পুরুষ দুই দলের মধ্যে। মাঝখানে রাখা থাকে জলের আধার। খেলা নিয়ন্ত্রকের ইঙ্গিত পাওয়ার পর পরই শুরু হয়ে যায় জল ছোড়াছুড়ির খেলা। ছেলেরা মেয়েদের আর মেয়েরা ছেলেদের জল ছিটায়। আনুষ্ঠানিক জল ছোড়াছুড়ির বাইরে পুরো চত্বরজুড়েই পানি ছোড়াছুড়ির আয়োজন থাকে এখানে। শিশু কিশোররাই এই মজাদার খেলায় অনেক বেশি মেতে থাকে। পানি ছিটানোর জন্য প্লাস্টিকের বোতলই তাদের প্রধান সম্বল। তরুণ-তরুণীরাও পানি হাতে বসে থাকেন না। বৈশাখের রৌদ্রতাপে প্রিয়জনের মাথায় পানি ঢেলে শরীরটাকে শীতল করেন। নতুন বছরের প্রথম তিন দিন ধরেই চলে এমন জল ছিটানোর উৎসব। বিগত বছরের দুঃখ দুর্দশা ধুয়ে মুছে নতুন করে আরেকটি বছরকে স্বাগত জানানোর এমন আয়োজন পার্বত্য অঞ্চলে বেড়াতে যাওয়া পর্যটকদের জন্য অনেক বড় পাওয়া।

এসব আয়োজন থাকে আনুষ্ঠানিক পর্যায়ের। কিন্তু অনানুষ্ঠানিক জল ছিটানোর আরেকটি আয়োজন পেয়েছিলাম বান্দরবানের শহর কেন্দ্র থেকে ১২ কিলোমিটার দূরের কলতলী গ্রামে।

কলাতলীর মারমা

বৈশাখের প্রথম দিনগুলোয় মারমা তরুণীরা পথচারী আর বাসের যাত্রীদেরও আনন্দের ভাগীদার করার জন্য পানি ছোড়াছুড়িতে উন্মুখ থাকে। মারমারা আকৃতিতে একটু ছোট আকারের হয়ে থাকে। চোখের নিচের হাড় সামান্য উঁচু এবং কালো চুল। তাদের চোখ ছোট নাক চ্যাপ্টা এবং শরীরের রং পৃতাভ্র নতুন বছরে নানা রকম আমোদে উচ্ছ্বাসে মেতেছিল পুরো গ্রাম। পাহাড়ের তলায় একটা পুকুর আছে, এ পুকুরে আয়োজন হয় সাঁতার প্রতিযোগিতার। গ্রামের ছেলে বুড়ো সবাই মিলে উপভোগ করে এমন আমুদে আয়োজনের। নতুন বছরের প্রথম দিনে পুরনো বছরের সব জঞ্জাল ধুয়ে ফেলার বাসনায় নিজেদের মধ্যে জল ছিটানোর মজার খেলায় মত্ত হয়ে থাকেন গ্রামবাসী। ছেলে বুড়ো কেউই বাদ যান না এমন আমুদে আয়োজন থেকে।

এ পানি ছোড়াছুড়ি দু রকমের হয়ে থাকে। সামনে থেকে ছলাৎ করে পানি ছিটানো হয় প্রিয়জন বা সমবয়সীদের ওপর, শ্রদ্ধা, সম্মান ও ¯েœহের সঙ্গে পানি ঢালা হয় আস্তে করে শরীরের ওপর থেকে মাথা বা ঘাড়ের ওপর। ভাইয়ের প্রতি বোনের কিংবা বোনের প্রতি ভাইয়ের নববর্ষের আশীর্বাদ হিসেবে কাঁধের ওপর থেকে ধীরে ধীরে কোমলভাবে জলধারা বিলানো হয়।

পুরনো বছরের দুঃখ দুর্দশা, গ্লানি আর ক্লান্তি ধুয়ে মুছে ফেলে নতুন বছরে তরতাজা শুদ্ধ শরীর নিয়ে জীবন শুরু করার তাগিদ থেকেই মূলত তাদের এই জল ছিটানো উৎসব।

প্রকাশিত : ১৪ এপ্রিল ২০১৫

১৪/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: