মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

৩০ এপ্রিলের মধ্যে তিন সিটি নির্বাচনের পরামর্শ আইজিপির

প্রকাশিত : ১৭ মার্চ ২০১৫
  • সিইসির সঙ্গে বৈঠক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আগামী ৩০ এপ্রিলের মধ্যেই তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের আয়োজন করতে নির্বাচন কমিশনকে পরামর্শ দিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার। সোমবার বিকেলে প্রধান নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠকে তারা এ আহ্বান জানান। বৈঠক শেষে আইজিপি শহীদুল হক সাংবাদিকদের বলেন, ঢাকার দুটি ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ৩০ এপ্রিলের মধ্যে করলে সুবিধা হয়। কারণ, মে মাসের শুরুতেই ক্রিকেট খেলা রয়েছে। তাদের এ প্রস্তাব কমিশন বিবেচনা করছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এর আগে নির্বাচন কমিশন সচিব মোঃ সিরাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ভোটের জন্য তারা সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। এখন সুবিধাজনক সময়ে কমিশন সভা করে তফসিল ঘোষণা করতে পারে।

গত ১২ মার্চ বৃহস্পতিবার নির্বাচনপূর্ব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতেও ইসির সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রধানদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানেও ঢাকা মহানগর পুলিশের পক্ষ থেকে এপ্রিলের শেষে নির্বাচন করার প্রস্তাব করা হয়। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন মে মাসে করার পরামর্শ দেয়া হয়। জানা গেছে, কশিমন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাব বিচেনা করে নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করে। এ জন্য কমিশনের পক্ষ থেকে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে নির্বাচনের জন্য এইচএসসি পরীক্ষার ৫দিনের একটি ফাঁক রাখার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে আহ্বান জানানো হয়।

এ অবস্থায় সোমবার পুনরায় পুলিশের পক্ষ থেকে বৈঠক করে এপ্রিলের শেষে ভোট গ্রহণের পরামর্শ দেয়া হলো। এছাড়া পুলিশের পক্ষ থেকে নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে ঢাকার দুটি সিটি কর্পোরেশন এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন আলাদা দিনে করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে, মে মাসের শুরুতে বাংলাদেশে ক্রিকেট খেলা রয়েছে। পাকিস্তান দল ওই সময় বাংলাদেশ সফরে আসবে। তাদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করেই ক্রিকেট খেলার আগেই নির্বাচন অনুষ্ঠানের অনুরোধ জানানো হয়েছে।

বিকেল পৌনে ৪টার দিকে পুলিশ প্রধান শহিদুল হক ও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া প্রধান নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে বৈঠক করেন। নির্বাচনের সার্বিক প্রস্তুতি নিয়ে তারা ঘণ্টাখানের বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে শহিদূল হক সাংবাদিকদের আরও জানান, তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে সার্বিক পরিস্থিতি সিইসির কাছে তুলে ধরা হয়েছে। যে কোন ভোটে আইনশৃঙ্খলার মূল দায়িত্ব পালন করে পুলিশ। তিনি বলেন, বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও পুলিশের অনুকূলে। নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজ করছে। তফসিল ঘোষণা করা হলে পরিস্থিতি আরও উন্নতি হবে। তখন সবাই নির্বাচন মুখী হবে। ফলে মানুষ নাশকতাকারীদের রুখে দিতে পারবে। নির্বাচনে কমিশন যেভাবে চাইবে সেভাবেই সহায়তা দিতে পুুলিশ প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে ঢাকা ও চট্টগ্রাম, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আলাদা দিনে অনুষ্ঠানের জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু ইসির পক্ষ থেকে তাদের জানানো হয়েছে, তিনটি নির্বাচন এক সঙ্গে অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করছে ইসি। এ কারণে খুব সম্ভব একদিনে এ তিনটি সিটি নির্বাচন হবে।

জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতি চলছে। এ কারণে এইচএসসি পরীক্ষার মাঝে ফাঁক খোঁজার চেষ্টার চলছে। আগামী ১ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে এইচএসসি পরীক্ষা। এইচএসসি পরীক্ষার ফাঁকে এপ্রিলের শেষভাগ থেকে মধ্য জুনের মধ্যে এ তিন সিটির নির্বাচন করার কথা ইতোমধ্যে সিইসি জানিয়েছেন। এপ্রিলের শেষভাগে ২৫, ২৮, ৩০ এপ্রিল এবং মে মাসের শুরুতে ৪, ৭ ও ১০ ও ১২ মে পরীক্ষা রয়েছে। যে কোন একদিন পরীক্ষা পুনর্বিন্যাস করে ৫ দিনের ফাঁকে ভোট নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে ইসির।

প্রকাশিত : ১৭ মার্চ ২০১৫

১৭/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: