আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নাশকতার প্রতিবাদে রাঙ্গাবালীতে মানববন্ধন

প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • একুশের কর্মসূচী পণ্ড

স্টাফ রিপোর্টার, গলাচিপা ॥ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার বড়বাইশদিয়া ইউনিয়নের আবদুল হাকিম মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচী প- করার জন্য বিএনপি-জামায়াতের নাশকতা কারীদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধন-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। এতে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবকসহ এলাকার হাজারো মানুষ স্বতঃর্স্ফূতভাবে অংশগ্রহণ করে। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ কর্মসূচীর আয়োজন করে। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেনÑ রাঙ্গাবালী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বিদ্যালয় পরিচালনা পর্যদের সভাপতি মোঃ ওমর ফারুক, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহতাব হোসেন প্রমুূখ। প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাতে একুশের প্রথম প্রহরের কিছু আগে বিএনপি-জামায়াতের ক্যাডাররা রাঙ্গাবালী উপজেলার বড়বাইশদিয়া আবদুল হাকিম মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবনে আগুন লাগায় ও শহীদ মিনারের বেদির ওপর বড় বড় গাছের গুড়ি ফেলে রাখে। এতে একুশের সমস্ত কর্মসূচী প- হয়ে যায়।

মুন্সীগঞ্জে আওয়ামী লীগ কর্মী খুনের ঘটনায় ইউপি সদস্য গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ ॥ মুন্সীগঞ্জে একজন আওয়ামী লীগ কর্মী খুনের ঘটনায় নারী ইউপি সদস্য সালেহা বেগম টুম্পা (৪০) গ্রেফতার হয়েছে। সোমবার দুপুরে শহরের হরগঙ্গা মোড় থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে। এজাহারভুক্ত আসামি টুম্পা সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউপির ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের নারী সদস্য। তিনি ইউনিয়নের টরকি গ্রামের মৃত আওলাদ হোসেন মৃধার স্ত্রী। এদিকে আওয়ামী লীগ কর্মী হোসেন মৃধা (৪০) খুনের ঘটনায় রবিবার মধ্য রাতে দিকে নিহতের ভাই হাসান মৃধা বাদী হয়ে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এতে রহমত উল্লাহ লক্কাকে প্রধান আসামিসহ ১১ জন আসামির নামে উল্লেখ করা হয়েছে। রবিবার দুপুরে আদালতে মামলার হাজিরা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথিমধ্যে পাঁচঘড়িয়াকান্দিতে নির্মমভাবে কুপিয়ে হোসেন মৃধাকে হত্যা করা হয়।

সোহাগপুরের বিধবারা ফাঁসি কার্যকরের অপেক্ষায়

রফিকুল ইসলাম আধার, শেরপুর, ২৩ ফেব্রুয়ারি ॥ একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের আওতায় শেরপুরের সোহাগপুর গ্রামে ১শ’ ২০ পুরুষকে হত্যার দায়ে বৃহত্তর ময়মনসিংহ অঞ্চলের আলবদর প্রধান, জামায়াতের সিনিয়র সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের চূড়ান্ত বিচারে দেয়া ফাঁসির দ- কার্যকরের অধীর অপেক্ষায় রয়েছেন সেই ‘বিধবা পল্লী’র অধিবাসীসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানুষ। ইতোমধ্যে সুপ্রিমকোর্টের আপীল বিভাগের চূড়ান্ত রায়ের পূর্ণাঙ্গ আদেশ কারাগারে পৌঁছার পর থেকেই সোহাগপুর বিধবা পল্লীর সেই বিধবারা, কামারুজ্জামানের নেতৃত্বে গোলাম মোস্তফা ও বদিউজ্জামানসহ বিভিন্ন হত্যায় শহীদ পরিবারের সদস্য, দগদগে ক্ষত নিয়ে বেঁচে থাকা নির্যাতিত ব্যক্তি, প্রত্যক্ষদর্শী ও সাক্ষীসহ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকজনদের মধ্যে ওই রায় কার্যকরে অপেক্ষার পালা শুরু হয়। ক্রমেই বাড়ছে অপেক্ষার প্রহর। সেইসঙ্গে বাড়ছে ‘ফাঁসি কখন কার্যকর হচ্ছে-’ প্রশ্নে উৎসুক মানুষের মুর্হূমুহু জিজ্ঞাসা। এদিকে ঘাতক কামারুজ্জামানের দাফন শেরপুরের মাটিতে করতে না দেয়ার ঘোষণা পুর্নব্যক্ত করেছেন তারই স্ত্রীর বড় ভাই জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার এএসএম নুরুল ইসলাম হিরু।

প্রকাশিত : ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

২৪/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: