আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বর্ণোজ্জ্বল বসন্তের ফ্যাশন

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫
  • রেজা ফারুক

প্রকৃতির ভাঁজে ভাঁজে যেন মন কেমন করা। উদাস আর চঞ্চল সমীরণের প্রগাঢ় উচ্ছ্বাস জাগা আবাহন। মাধবী আর বোগেনভিলিয়ার ঝাড়ে রঙিন প্রজাপতি আর ফড়িঙের গুঞ্জরিত ওড়াওড়ি। প্রকৃতির যে দিকেই চোখ যায় সে দিকেই যেন ঝকঝকে বর্ণোজ্জ্বলতার ছোঁয়া। থেকে থেকে কোকিলের হৃদয় কাড়া কুহুরণে নিসর্গের ক্যানভাসের উদ্ভাসিত হয় ঋতু বদলের অমোঘ প্রহরের মায়াবি ছবি। যে প্রহরের সান্নিধ্যে সমগ্র চরাচরে নতুন এক ছবির উন্মেষ ঘটে। বসন্তের ওই উন্মেষের কথা মাথায় রেখেই কবি সুভাস মুখোপাধ্যায় লিখেছিলেন এক অনন্য বসন্তকালীন কবিতা। যার পঙ্ক্তিতে বসন্তের বন্দনা ঝরে পড়ে আমিয় ঐশ্বর্যে- ‘ফুল ফুটুক আর না ফুটুক- আজ বসন্ত’ হ্যাঁ আজ বসন্ত। আজ পহেলা ফাল্গুন। বাড়ির আঙিনায় থোকা-থোকা বসন্তের আরক্তিম ছায়ার পালক যেন বিছিয়ে দিয়েছে এক উন্মাতাল আবেগের রোদ আর জ্যোৎস্নারাজি সকাল বেলার সবুজ দূর্বাঘাসে হাল্কা রৌদ্রাঙ্কিত শিশির কুচির মনোমুগ্ধকর দৃশাবলী আর অদূরের লাল আগুনঝরা কৃষ্ণচূড়ার শাখায়-শাখায় সবুজ পাতার ঝালর সরিয়ে গুচ্ছ-গুচ্ছ ফুলের সমারোহ বসন্তের মুখর মুহূর্তগুলোকে যেন আরও প্রবলভাবে জানিয়ে দেয়।

প্রাঙ্গণে বসন্ত- তাই চলছে এখন বসন্তকে বরণ করে নেয়ার তুমুল আয়োজন। আর এ আয়োজনের প্রধান অনুষঙ্গ হলো বাঙালীয়ানাকে অঙ্কিত করা পোশাক। সে পোশাক হোক শাড়ি, থ্রি-পিস, ফতুয়া, পাঞ্জাবি, শার্ট কিংবা টি-শার্ট। সেইসঙ্গে খোঁপায়, গলায়, হাতে শোভা পাবে মন উতলা করা ঘ্রাণের গাদা, রজনীগন্ধা, গোলাপ, জুঁই বেলীসহ নানা ফুলের সন্ধি। সব মিলিয়ে পহেলা ফাল্গুন বসন্তেকে বরণ করে নিতে উৎসবের মায়াবি আয়োজন যেন চলবে। আর এই বসন্তে চোখে পড়ে শপিংমলের আউটলেটগুলোতে ক্রেতাদের উৎসবমুখর যাওয়া-আসা। পছন্দের পোশাকটি পহেলা ফাল্গুনের আগেই সংগ্রহে রেখে দেয়া যেন বসন্তের প্রথম দিনের প্রথম প্রহরে নবসাজে সেজে উৎসবে অংশ নেয়া যায়। আর এদিকটা মাথায় রেখে ফ্যাশনট্রেডও থাকে প্রস্তুত। বসন্তকে ঘিরে অতুলনীয় এই আয়োজন থেকে নগর জীবনের মতো পিছিয়ে নেই মফস্বল শহরগুলোও। রাজধানী ঢাকার মতো মফস্বল শহরের রংটাও সারাবসন্তে বাসন্তী হলুদ লালে যেন ছেয়ে যায়। বাঙালীর চিরায়ত স্বকীয়তা অক্ষুণœ রেখে সকলেই বসন্ত বরণে সমবেত হয় গভীর আগ্রহে।

সন্ধ্যায় আবার খানিকটা শীতার্ত আবেশ। ফলে সারাদিনের জন্য এমন পোশাক নির্বাচন করতে হয় যেন সকাল, দুপুর, সন্ধ্যা- এই প্রহরই মানিয়ে যায়। এটাই ঋতুরাজ বসন্তে নিসর্গের খেয়ালি আবহ। যে আবহের প্রতিচ্ছবিটা একেবারে নিখুঁতভাবে পোশাকের প্রতিটি স্তবকে ফুটিয়ে তোলা হয়। সে পোশাক হোক নারী কিংবা পুরুষের। তবে সে পোশাকে যেন থাকে বসন্তের মিহিন আবীর টুকু মাখা।

ছবি : আজিম এলাহী

মডেল : তুর্য, মেহেরনীগার ও লিগোমেজ

পোশাক : কাপড়-ই বাংলা

প্রকাশিত : ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১৩/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: