কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

২০১৪ সালে গ্রামীণফোনের আয় ১০ হাজার কোটি টাকা

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ বেসরকারী মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন ২০১৪ সালে ১০ হাজার ২৭০ কোটি টাকা রাজস্ব আয় করেছে। এর বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ছিল আগের বছরের তুলনায় ৬ দশমিক ৩ শতাংশ। এ সময়ে তাদের গ্রাহক সংখ্যা ৫ কোটি ১৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে, যা বাংলাদেশের টেলিকম মার্কেটের মোট গ্রাহকের প্রায় ৪২ দশমিক ৮ শতাংশ। সোমবার বিকেলে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এক অনুষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানটির এসব তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গ্রামীণফোনের সেবা খাত থেকে অর্জিত রাজস্ব আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় বেড়েছে ৫ দশমিক ৯ শতাংশ। সেই সঙ্গে গ্রাহকদের ব্যবহার্য ডিভাইস এবং অন্যান্য রাজস্ব বেড়েছে ১৪ দশমিক ১ শতাংশ। সেবা থেকে রাজস্ব আয় প্রবৃদ্ধি প্রধানত ডাটা ও মূল্য সংযোজিত সেবা থেকে এসেছে। তবে আন্তর্জাতিক কল টার্মিনেশন রেট কমে যাওয়ায় রাজস্ব আয় কিছুটা বাধার সম্মুখীন হয়।

গত বছর গ্রামীণফোনে নতুন গ্রাহক যোগ হয়েছে ৪৪ লাখ, যার ফলে বছর শেষে গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ কোটি ৫০ লাখ। জাতীয় গ্রাহক প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৮ শতাংশ হলেও গ্রামীণফোনের প্রবৃদ্ধি ছিল ৯ দশমিক ৩ শতাংশ ফলে কোম্পানির মার্কেট শেয়ার ১ দশমিক ৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৪২ দশমিক ৮ শতাংশ হয়েছে। প্রতিযোগিতামূলক পরিবেশে বাজারে দৃঢ় এবং বৈচিত্র্যময় অবস্থানের কারণে এই প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের নবনিযুক্ত সিইও রাজিব শেঠি বলেন, ২০১৩ সালে আমরা ৫ কোটি গ্রাহক এবং ১০ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের ঐতিহাসিক মাইলফলক অতিক্রম করেছিলাম। গত বছর দেশের শীর্ষ মোবাইল অপারেটর হিসেবে আমাদের অবস্থান আরও দৃঢ় হয়েছে। ২০১৫তে আমরা আরও ভাল করার লক্ষ্য স্থির করেছি।

আমাদের শক্তিশালী অবস্থানের ওপর পরিকল্পিতভাবে কাজ, সঠিক মানসিকতার প্রয়োগ এবং আমাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন শেয়ারহোল্ডারদের জন্য মূল্য সংযোজনের ক্ষেত্রে আরও ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, আয়কর প্রদানের পর ২০১৩ এর শতকরা ১৫ দশমিক ২ ভাগ মার্জিনসহ ১৪৭০ কোটি টাকা মুনাফার তুলনায় ২০১৪ তে নিট মুনাফা হয়েছে শতকরা ১৯ দশমিক ৩ ভাগ মার্জিনসহ ১৯২০ কোটি টাকা। এ বছর ইবিআইটিডিএ বেড়েছে ১১ দশমিক ২ শতাংশ এবং ২০১৩ এর শতকরা ৫০ দশমিক ৭ ভাগের তুলনায় ২০১৪ তে ইবিআইটিডিএ মার্জিন শতকরা ৫৩ ভাগ হয়েছে। ২০১৪ সালে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ১৪ দশমিক ৬৭ টাকা, যা ২০১৩ তে ছিল ১০ দশমিক ৮৯ টাকা। এর ফলে শেয়ার প্রতি আয় ৩৪ দশমিক ৭ শতাংশ বেড়ে গেছে তবে ২০১৩ এর ১ সেপ্টেম্বর জিপিআইটি এর বিক্রয় থেকে আয় এবং কর্পোরেট ট্যাক্স ৫ শতাংশ বেড়ে যাওয়ার হিসাব বাদ দিলে প্রকৃত আয় বেড়েছে ১২ শতাংশ।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, গ্রামীণফোন ২০১৩ এ তার ৩জি নেটওয়ার্ক স্থাপন, ২জি নেটওয়ার্কের মানোন্নয়ন এবং দক্ষতা বৃদ্ধিতে ১৫২০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে। এদিকে দেশের বৃহত্তম করদাতা গ্রামীণফোন ২০১৩ সালে সরকারী কোষাগারে কর, ভ্যাট, শুল্ক ও লাইসেন্স ফি হিসেবে ৫৮৯০ কোটি টাকা দিয়েছে, যা কোম্পানির মোট রাজস্ব আয়ের ৫৭ দশমিক ৪ শতাংশ।

এছাড়া অনুষ্ঠানে বলা হয়, গত ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তে অনুষ্ঠিত বোর্ড সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্রামীণফোন লিঃ এর পরিচালকম-লী ২০১৪ সালের জন্য পরিশোধিত মূলধনের ৬৫ শতাংশ (প্রতিটি ১০ টাকার শেয়ারের জন্য ৬ দশমিক ৫ টাকা) চূড়ান্ত নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করা হয়েছে। এর ফলে ২০১৪ সালের জন্য মোট নগদ লভ্যাংশের পরিমাণ দাঁড়ালো পরিশোধিত মূলধনের ১৬০ শতাংশ (প্রতিটি ১০ টাকার শেয়ারের জন্য ১৬ টাকা), যার মধ্যে রয়েছে আগস্ট ২০১৪ এ পরিশোধ করা ৯৫ শতাংশ অন্তর্বর্তী নগদ লভ্যাংশ (প্রতিটি ১০ টাকার শেয়ারের জন্য ৯ দশমিক ৫ টাকা)।

রেকর্ড তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তে যারা শেয়ারহোল্ডার থাকবেন তারা এই লভ্যাংশ পাবেন, যা ২১ এপ্রিল ২০১৫ এ অনুষ্ঠিতব্য বার্ষিক সাধারণ সভার দিন শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনের ওপর নির্ভরশীল।

প্রকাশিত : ১০ ফেব্রুয়ারী ২০১৫

১০/০২/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: