কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সারাদেশে সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি করবে ১৪ দল

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫
  • স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে কাল বৈঠক

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ আন্দোলনের নামে সন্ত্রাস ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে ‘সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটি’ গঠন করবে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। এ লক্ষ্যে আগামীকাল বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে বৈঠক করবেন ১৪ দলের শীর্ষ নেতারা।

মঙ্গলবার আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানম-ির রাজনৈতিক কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের বৈঠক শেষে সংগঠনের কেন্দ্রীয় মুখপাত্র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন। সূত্র জানায়, বৈঠকে শরিক দলের নেতারা বিএনপি-জামায়াতের অবরোধের নামে সহিংসতা-নাশকতা প্রতিরোধে সরকারকে আরও কঠোর হওয়ার দাবি জানান। জনগণের জানমাল রক্ষায় প্রয়োজনে পুলিশ বাহিনীকে গুলি করার নির্দেশ প্রদানেরও পরামর্শ দেন তাঁরা। তবে এ প্রস্তাবের বিষয়ে কোন কথা বলেননি আওয়ামী লীগের নেতারা।

বৈঠকে শরিক দল জাসদের কার্যকরী সভাপতি মইনউদ্দীন খান বাদল এমপি সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য মোকাবেলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ভূমিকা প্রসঙ্গে বলেন, সন্ত্রাসী কর্মকা- দমনে প্রথমে পুলিশ লাঠিপেটা করবে, পরে পায়ে গুলি। তাতেও না হলে প্রয়োজনে বুকে গুলি করার ক্ষমতা দিতে হবে। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া যদি এখন গ্রেনেড নিয়ে রাস্তায় নামেন, তবে কি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাঁকে চুমো দেবে?

সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, দেশ স্বাভাবিক রয়েছে, কিন্তু মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। সন্ত্রাসীদের তো কোন দল নেই। খালেদা জিয়ার সৈনিকরা তো মাঠে নেই। কিন্তু তাঁর সন্ত্রাসীরা মাঠে রয়েছে। এজন্যই তারা চোরাগোপ্তা হামলা করছে। বিএনপি এখন তৃতীয় শ্রেণীর রাজনৈতিক দলে পরিণত হচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা প্রশাসনকে আরও কঠোর হতে বলব। তাদের আরও কঠোরভাবে সন্ত্রাসীদের মোকাবেলা করতে হবে। তাদের আর বিন্দুমাত্র ছাড় নয়। এদের বিরুদ্ধে আরও কঠোর হতে হবে। বৈঠকে শরিক দলের নেতারা তেল ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানান।

কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেনÑ জাসদের মইনউদ্দীন খান বাদল এমপি, ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি, জাতীয় পার্টির (জেপি) মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম এমপি, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, এ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, এনামুল হক শামিম, সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া, তরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভা-ারি, লায়ন এমএ আউয়াল, গণতন্ত্রী পার্টির নুরুর রহমান সেলিম, ডা. শহিদুল্লাহ সিকদার, ডা. শাহাদৎ হোসেন, ন্যাপের ইসমাইল হোসেন, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের ডা. অসীত বরণ রায় প্রমুখ।

নাশকতার পরিকল্পনা থাকলে সমাবেশের অনুমতি নয়, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ॥ খাদ্যমন্ত্রী এ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেছেন, নাশকতার পরিকল্পনা থাকলে কাউকেই সমাবেশের অনুমতি দেয়া দেয়া হবে না। শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ কিংবা মিছিল-মিটিং করার অধিকার প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলের আছে। এ অধিকার সংবিধানসিদ্ধ। তবে সমাবেশের নামে কেউ নাশকতার পরিকল্পনা করলে তা অবশ্যই করতে দেয়া হবে না।

মঙ্গলবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে বাংলাদেশ স্বাধীনতা পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সংগঠনের উপদেষ্টা হাসিবুর রহমান মানিক এতে সভাপতিত্ব করেন।

খাদ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি-জামায়াত অবরোধ কর্মসূচির নামে দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপি গণতন্ত্র রক্ষার নামে সন্ত্রাসবাদকে উস্কে দিয়ে গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। যারা সন্ত্রাসবাদকে মদদ দেয় তাদের কোন গণতান্ত্রিক অধিকার থাকতে পারে না। তিনি বিএনপিকে ভুল স্বীকার এবং নাশকতার পথ পরিহার করে গণতন্ত্রের পথে ফিরে আসার আহ্বানও জানান।

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী ২০১৫

১৪/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: