কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ছাত্রলীগের হুমকি অগ্রাহ্য, গাজীপুরে জনসভা করবেন খালেদা জিয়া

প্রকাশিত : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৪

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ছাত্রলীগের পাল্টা কর্মসূচী ও প্রতিরোধের হুমকি সত্ত্বেও ২৭ ডিসেম্বর গাজীপুরের ভাওয়াল বদরে আলম কলেজ মাঠে জনসভা করবেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। জয়দেবপুর ছাত্রলীগের হুমকি অগ্রাহ্য করে পূর্বঘোষিত তারিখ ও স্থানে জনসভা করার ব্যাপারে এখনও অনড় ২০ দলীয় জোটনেত্রী। বুধবার রাতে বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে গাজীপুর জেলা বিএনপির শীর্ষনেতা এবং দলের কয়েকজন নীতিনির্ধারকের সঙ্গে বৈঠকে খালেদা জিয়া এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানা গেছে। বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলন ও সাধারণ সম্পাদক কাজী সাঈদুল আলম বাবুল। বৈঠক সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় ছাত্রলীগের পাল্টা কর্মসূচী ঘোষণা ও প্রতিরোধের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে পূর্বঘোষিত জনসভা স্থগিত করা বা তারিখ ও স্থান পরিবর্তনের কোন সিদ্ধান্ত খালেদা জিয়া নেবেন কি না সে ব্যাপারে জানতে চান গাজীপুর জেলা নেতারা। এ সময় খালেদা জিয়া সাফ জানিয়ে দেন, সরকারের চাপের মুখে নতি স্বীকার করা হবে না। অর্থাৎ পূর্ব নির্ধারিত সময় ও স্থানেই জনসভা করবেন তিনি। বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিএনপির চেয়ারপারসনের প্রেস ইউংয়ের কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান জানান, ২৭ ডিসেম্বর দুপুর ২টায় ঢাকা থেকে গাজীপুরের উদ্দেশে রওয়ানা দেবেন খালেদা জিয়া। এদিকে, বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় জাতীয়বাদী শ্রমিক দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন বিএনপির চেয়ারপারসন। শ্রমিক দলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেয়ার পর এটি ছিলো দলীয় প্রধানের সঙ্গে সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের প্রথম বৈঠক। এতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলে৻ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও শ্রমিক দলের সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম খান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাফরুল হাসান, বর্তমান সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নাসিম প্রমুখ। শ্রমিক দল এবং গাজীপুর জেলা বিএনপির সঙ্গে বৈঠক ছাড়াও কেন্দ্রীয় বিএনপির বেশ কয়েকজন শীর্ষনেতার সঙ্গেও বুধবার রাতে বৈঠক করেন খালেদা জিয়া। বকশীবাজারে ছাত্রদল, যুবদল ও বিএনপি নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগ ও পুলিশের হামলার বিষয়টি ওই বৈঠকে আলোচনা হয়। এতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আব্দুল আউয়াল মিন্টু আমান উল্লাহ আমান, হাবীব উন নবী খান সোহেল, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাউদ্দিন আহমেদ, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দীন আলম, ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক শহীদ উদ্দীন চৌধুরী এ্যানি, সহ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দীন টুকু প্রমুখ।

প্রকাশিত : ২৫ ডিসেম্বর ২০১৪

২৫/১২/২০১৪ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: