আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

স্থায়ী পে-কমিশন গঠনের চিন্তা চলছে ॥ মুহিত

প্রকাশিত : ১৯ জুন ২০১৫, ০১:৩০ এ. এম.

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ একটি স্থায়ী পে-কমিশন গঠনের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, পাঁচ বছর পর পর পে-স্কেল ঘোষণা-এটা যেন এবারই শেষ হয়। এ লক্ষ্যেই স্থায়ী পে-কমিশন গঠন করা হবে। এতে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা আপডেট হতে পারবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের এ তথ্য দেন। এর আগে তিনি বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী ১ জুলাই থেকে সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নতুন পে-স্কেল কার্যকর করা হবে। একই সঙ্গে আগামী মাসেই বেতন কাঠামো চূড়ান্ত করা হবে। তবে যখনই এটা চূড়ান্ত করা হোক না কেন, ১ জুলাই থেকে এটি কার্যকর হবে।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের পক্ষ থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল ঘোষণা এবং প্রস্তাবিত অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো পুনর্নির্ধারণের দাবি করে অর্থমন্ত্রীর হাতে স্মারকলিপি তুলে দেয়া হয়।

অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, পে-কমিশন এবং সচিব কমিটির প্রতিবেদন তিনি দেখেছেন। এখন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বসবেন এবং প্রয়োজনে মন্ত্রিসভার বৈঠকে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করবেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এর আগের বার পে-স্কেল চূড়ান্ত করতে ৫ জন মন্ত্রীকে নিয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এবার এমন কিছু করা হবে কি না জানি না। মুহিত বলেন, পে-স্কেলে অনেক জটিলতা থাকে। সেগুলোর সুরাহা করা অনেক কঠিন। আমার কাছে যখন কোন কেস আসে তখন সেটা বোঝা যায়।

সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পে-স্কেল সংক্রান্ত জটিলতা এড়াতে স্থায়ী পে-কমিশন গঠনের ওপর গুরুত্বারোপ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমি চাই পাঁচ বছর পর পর পে-স্কেল ঘোষণা-এটা যেন এবারই শেষ হয়। এজন্য একটা স্থায়ী পে-কমিশন গঠন করা হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, পে-কমিশনের সুপারিশে ২০টির পরিবর্তে ১৬টি গ্রেড রাখার সুপারিশ করা হয়েছে। কিন্তু যেটা একবার চালু হয়ে গেছে, আমি মনে করি সেটা পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, আমি সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভাতার সংখ্যা কমিয়ে আনতে চেয়েছিলাম, কিন্তু পারি নাই। ভাতা এখন অধিকারের মতো হয়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ২০টি ভাতা পান উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমার মতে, ভাতা চারটির (বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা, যাতায়াত ও আপ্যায়ন) বেশি থাকা উচিত নয়।

স্বতন্ত্র পে-স্কেলের দাবি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ॥ অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতকালে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের নেতারা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র পে-স্কেল ঘোষণা ও বৈষম্য দূরীকরণসহ চারদফা দাবিতে স্মারকলিপি দেন। এ ছাড়া বাজেটে শিক্ষা খাতে বরাদ্দ বাড়ানো এবং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের উচ্চতর শিক্ষার জন্য বিদেশগমন বৃত্তির দাবি জানান তারা। দাবি প্রসঙ্গে শিক্ষক নেতারা বলেন, প্রস্তাবিত বেতন কাঠামো নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। দাবিগুলোর সঙ্গে শিক্ষকদের মর্যাদার বিষয়টি জড়িত। সুতরাং এগুলো বাস্তবায়িত না হলে বৃহত্তর কর্মসূচী দিতে বাধ্য হবেন শিক্ষকরা।

শিক্ষকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী বলেন, এ সব বিষয়ে আমি এখন কোন মন্তব্য করব না। বিষয়গুলো নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। তিনি বলেন, তবে শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল গঠনের বিষয়টি ২০০৮ সালের নির্বাচনে অঙ্গীকার করা হয়েছিল। কিন্তু এটা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় নাই। গত নির্বাচনে এ বিষয়ে কিছু বলা হয়নি। অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে মতবিনিময় সভায় ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামালসহ সংগঠনের অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রকাশিত : ১৯ জুন ২০১৫, ০১:৩০ এ. এম.

১৯/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: