রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

গাজায় যুদ্ধ বৈধ ছিল!

প্রকাশিত : ১৫ জুন ২০১৫, ০২:০৬ পি. এম.

অনলাইন ডেস্ক ॥ ২০১৪ সালের জুলাই-আগস্টে ফিলিস্তিনের গাজা ভূখণ্ডে ইসরায়েলের চালানো ৫০ দিনব্যাপী একতরফা যুদ্ধ ‘বৈধ’ ছিল বলে উল্লেখ করেছে দেশটি। ইসরায়েল সরকারের পক্ষ থেকে রবিবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ দাবি করা হয়েছে। খবর বিবিসির।

ইসরায়েলের এ প্রতিবেদনকে প্রত্যাখ্যান করেছে গাজা শাসনকারী হামাস। সংগঠনটি এ প্রতিবেদনকে মূল্যহীন বলে উল্লেখ করেছে।

ইসরায়েলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রকাশিত ২৭৭ পৃষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই যুদ্ধে ২ হাজার ১২৫ ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছে। এর মধ্যে ৯৩৬ যোদ্ধা ও ৭৬১ বেসামরিক নাগরিক রয়েছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, হামাসের যোদ্ধারা বেসামরিক লোকজনের মাঝে ছদ্মবেশ ধারণ করে থাকে এবং বেসামরিক ভবনগুলোকে সামরিক ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করে।

বলা হয়েছে, বেসামরিক ভবনগুলোকে নিজ স্বার্থে ব্যবহার করা প্রায়ই যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হয়। এর বিরুদ্ধে আইডিএফের (ইসরায়েলী প্রতিরক্ষা ফোর্স) চালানো অভিযানে নীতি ও নৈতিকতা বজায় রাখা বেশ চ্যালেঞ্জের ছিল।

আরও উল্লেখ করা হয়েছে, বেসামরিক লোকজনের ক্ষয়-ক্ষতির ঘটনা দুর্ভাগ্যজনকভাবে ঘটেছে। এরপরও বেসামরিক লোকজন এবং তাদের বসবাসের স্থান লক্ষ্য করে আইনগতভাবেই সামরিক পদক্ষেপ নিয়েছে ইসরায়েল।

এদিকে এ প্রতিবেদনকে ‘মূল্যহীন’ উল্লেখ করে হামাসের মুখপাত্র সামি আবু জুহরি বলেছেন, ‘ইসরায়েলের যুদ্ধাপরাধ স্পষ্ট। তারা সরাসরি সম্প্রচারমান ক্যামেরার সমানেই এগুলো করেছে।’

এর আগে জাতিসংঘসহ বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের পক্ষ থেকে গাজায় ইসরায়েলের যুদ্ধপরাধের তদন্তের কথা বলা হয়েছে। এ তদন্তের আগেই ইসরায়েল সরকারের পক্ষ থেকে এ সাফাই প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলো।

চলতি সপ্তাহে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলও ইসরায়েলের যুদ্ধাপরাধের বিষয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করবে।

জাতিসংঘের দেওয়া তথ্যমতে, গত বছর অধিকৃত গাজায় ইসরায়েলী আগ্রাসনে ২ হাজার ১৮৯ ফিলিস্তিনী নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে ১ হাজার ৪৮৬ জন বেসামরিক নাগরিক। এদের মধ্যে প্রায় ৫০০ জনই শিশু।

অপরদিকে যুদ্ধ চলাকালীন ইসরায়েলের ৬৭ সেনা সদস্য ও ছয় বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে।

প্রকাশিত : ১৫ জুন ২০১৫, ০২:০৬ পি. এম.

১৫/০৬/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: