মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ পেয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য শিক্ষাবিদ ও কলামিস্ট অধ্যাপক আবদুল মান্নান। আগামী চার বছরের জন্য তাকে এ পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বুধবার রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়সমূহের আচার্য মোঃ আবদুল হামিদ এ নিয়োগাদেশে সই করেন। এরপর বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। আজ বৃহস্পতিবার নতুন চেয়ারম্যান তার দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন।

এর আগে ২০১১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. এ কে আজাদ চৌধুরীকে প্রতিমন্ত্রী পদমর্যাদায় ইউজিসির চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। আজ চেয়ারম্যান পদে ড. আজাদ চৌধুরীর নিয়োগের মেয়াদ শেষ হবে। বিকেল তিনটায় তার বিদায়ী সংবর্ধনা হবে। এরপরই কাজে যোগ দেবেন নতুন চেয়ারম্যান। চট্টগ্রামের হাটহাজারি এলাকার বাসিন্দা অধ্যাপক মান্নান ১৯৯৭ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটে রাষ্ট্রপতি মনোনীত সদস্য। এ শিক্ষাবিদ দেশের একজন জনপ্রিয় কলাম লেখক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক। ইউজিসির ১২তম চেয়ারম্যান হলেন অধ্যাপক আবদুল মান্নান। রাতে জনকণ্ঠকে তিনি জানান, বৃহস্পতিবার বর্তমান চেয়ারম্যান ড. আজাদ চৌধুরীর মেয়াদ শেষে হচ্ছে। বিকেল তিনটায় তার ফেয়ারওয়েল। এরপর আমি যোগদান করবো। অধ্যাপক আবদুল মান্নানের জন্ম চট্টগ্রামে। বাবা আবদুস সালাম, মা সালেমা খাতুন। লেখাপড়া চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী সেন্ট প্লাসিড্স হাইস্কুল, সরকারী কমার্স কলেজ আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি প্রত্যেকটি পরীক্ষায় প্রথম বিভাগ অথবা প্রথম শ্রেণীতে উত্তীর্ণ হন। ১৯৭৩ সালের ৬ আগস্ট তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগে লেকচারার হিসেবে যোগদান করেন। ১৯৭৬ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্র সরকারের বৃত্তি নিয়ে সে দেশে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করতে যান। তিনি হাওয়াই বিশ্ববিদ্যালয়, মায়ামি ইউনিভার্সিটি, অক্সফোর্ড, ওহাইওতে অধ্যয়ন করেন। ফিরে এসে তিনি পুনরায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। পরবর্তীকালে অধ্যাপক মান্নান বিভাগের সভাপতি, অনুষদের ডিন, সিনেট, সিন্ডিকেট, একাডেমিক কাউন্সিল, বোর্ড অব এ্যাডভান্সড স্টাডিস, ফাইনান্স কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৮৯ সালে তিনি বিশ্বব্যাংকের ফেলোশিপ নিয়ে ওহাইও স্টেট ইউনিভার্সিটিতে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ওপর উচ্চতর গবেষণা করেন। ১৯৯৪ সালে অধ্যাপক মান্নান নেদারল্যান্ডস পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে রটারডামে মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের ওপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। ১৯৯৮ সালে তিনি ব্রিটিশ কাউন্সিল ফেলোশিপের অধীনে চেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘উচ্চ শিক্ষা প্রশাসন’-এর ওপরও বিশেষ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি পরপর দু’বার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক, একবার সভাপতি ও বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে তিনি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে এই পদে ২০০১ সালের ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এই সময়কালে তিনি স্ট্যান্ডিং কমিটি অব ভাইস-চ্যান্সেলরস ও বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভাপতি নির্বাচত হন। তিনি লন্ডনের এ্যাসোসিয়েশন অব কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটিজেস-এর নির্বাহী সদস্য ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের খ-কালীন সদস্যের দায়িত্ব পালন করেন। আবদুল মান্নান সার্ক চার্টার প্রাপ্ত এ্যাসোসিয়েশন অব ম্যানজমেন্ট ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিউটিউশেনের সাউথ ইস্ট এশিয়ার একজন প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। তিনি শামসুল হক শিক্ষা কমিশনের সদস্য ছিলেন। তার অধ্যয়ন ও গবেষণার বিষয় হচ্ছে কৌশলগত ব্যবস্থাপনা। তার ত্রিশটির মতো আন্তর্জাতিক ও দেশীয় প্রকাশনা রয়েছে। তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা নয়টি। বর্তমানে তিনি দেশে ও দেশের বাইরে ছ’টি জাতীয় দৈনিকে সমসাময়িক দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়, অর্থনৈতিক বিশ্লেষণ ইত্যাদি বিষয়ে লেখালেখি করছেন। তার একমাত্র সন্তান ফারজানা মান্নান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ।

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

০৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: