মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বাহারি শাল

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫
বাহারি শাল

শীতের আর্দ্রতায় সকলেই শিহরিত হয়। ইতোমধ্যেই উত্তরের শীতল হাওয়া বইতে শুরু করেছে। গাছের পাতা শুকিয়ে গেছে, আর তাই শীতের আমেজ, পরার সঙ্গে সঙ্গেই গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় জমছে। বাহারি নিত্য-নতুন পোশাকের সমাহার বিভিন্ন বিপণিবিতানে। শীতের আরামদায়ক পোশাক হিসেবে সোয়েটার, জ্যাকেট, ব্লেজার ইত্যাদি রুচিসম্মত পোশাক থাকলেও বর্তমানে সবচেয়ে বেশি চাহিদা শালের।

কুয়াশা ভরা শীতের সকালে যখন মোটা সোয়েটার গায়ে চাপিয়ে বেরিয়ে পড়বেন, তারপর একটু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রোদের তীব্রতায় আপনি পড়বেন বেকায়দায়। তখন গায়ে হালকা শাল পরা থাকলে চট করে সরিয়ে নিতে পারেন। আর এক প্যাঁচের পরিধেয় বলেই মানুষের পছন্দের পোশাক হচ্ছে শাল।

এক সময় শাল পরিধানের মধ্য দিয়ে আভিজাত্য প্রকাশ পেত এবং সেই সূত্র ধরেই পুরুষদের শীতের আরামদায়ক ও রুচিসম্মত পোশাক ছিল শাল। বর্তমানে সেই আভিজাত্য সমভাবে প্রকাশ পায় এমনকি তরুণ-তরুণীরা শহরের কর্মব্যস্ত মানুষরা তাদের রুচিসম্মত ও স্বাচ্ছন্দ্যসই পোশাক হিসেবে বেছে নিচ্ছে শাল।

শীত আসা মানেই শালের কদর বেড়ে যাওয়া। বাহারি রঙের, বাহারি নক্সা এবং কারুকার্যম-িত বিভিন্ন প্রকাশ শাল বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। এ করস্তা, এ্যাপলিক, ব্লক, কানট্রাস্ট, এ্যামব্রয়ডারি ও হাতের কাজের নকশি কারুকার্যময় শালের বাহার। এসব শালের রঙের সঙ্গে মিল রেখে কাপড় হালকা কাজ ও ভারি কাপড়ে হালকা ডিজাইনের মধ্যে বাহারি শাল পাওয়া যাচ্ছে আবার যারা একটু ব্যক্তিত্বসম্পন্ন, নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে চায় তারা বেছে নিচ্ছে বাহারি নকশি চাদর। যদিও অন্যান্য শালের তুলনায় এই শালগুলো একটু ভিন্ন মানের এবং দামেও একটু বেশি তবে রুচিসম্মত পোশাকে নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে অনেকেই কার্পণ্য করছে না। তাই তো বাহারি শালের পাশাপাশি নকশি শালগুলো চাহিদাও কম নয়। এছাড়া দেশীয় শালের বিশাল ভা-ার রয়েছে। কুমিল্লার খাদি, মণিপুরী, তাঁত টাঙ্গাইলের বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী শালের সমাহার দেখা যায়। সব সময় ব্যবহারের জন্য যেমন পাবেন হালকা ডিজাইনের মধ্যে শাল তেমনি বিভিন্ন অনুষ্ঠানদিতে পরার জন্যও পাবেন বাহারি জড়ি সুতার গর্জিয়াস শাল যা আপনার বাহ্যিক সৌন্দর্যকে আরও ফুটিয়ে তুলবে।

দেশীয় শালের পাশাপাশি বাজরে ভারতীয়, কাশ্মীর, পাকিস্তানী শালের সম্ভার রয়েছে। তাই তো নিজ নিজ রুচিসম্মত শালটি বেছে নিতে ক্রেতারা দোকানে দোকানে ভিড় করছে। নিউমার্কেট, গাউছিয়াসহ বিভিন্ন মার্কেটে কিরক বুটিকস্গুলোতে বাহারি শালের সমাহার লক্ষ্য করা যায়। এসব শাল কোয়ালিটির ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন দামের হয়ে থাকে। মার্কেটগুলো ছাড়াও ফুটপাথে বাহারি শাল দেখা যায়। রঙিন পাতলা শালগুলো ৩০০ টাকা থেকে শুরু করে ৪০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। আর কাশ্মীরি শালগুলো ৬০০ টাকা থেকে শুরু করে ১২০০ টাকা। মণিপুরী শাল ৩০০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা। ভারতীয় শাল ৫০০ টাকা থেকে ২০০০ টাকা এবং নকশি শালগুলো ২০০০ থেকে ৫০০০ টাকা পর্যন্ত পাওয়া যায়। নকশি শালগুলো বিভিন্ন বুটিকস হাউসে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া বুটিকস হাউসগুলোতে কোয়ালিটি ও কাজের ওপর নির্ভর করে বিভিন্ন দামের শাল রয়েছে।

নিথুল ঘোষ

ছবি : লংকেশর রায়

মডেল : মন

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫

২৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: