আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ওবামার ভারত সফরে পরমাণু চুক্তি বাস্তবায়নে ঐকমত্য

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫
  • নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যপদের জন্য দিল্লীকে সমর্থন

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ বেসামরিক পরমাণু সহযোগিতা নিয়ে দুটি বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছেছে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। রবিবার নয়াদিল্লীতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান। ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লীর হায়দরাবাদ হাউস গার্ডেনে ওবামা ও মোদির দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে ২০০৮ সালের বেসামরিক পরমাণু সহযোগিতা চুক্তি (টু থাউজেন্ড এইট সিভিল নিউক্লিয়ার কো-অপারেশন এ্যাগ্রিমেন্ট) বিষয়ে আলোচনার পর এ ঘোষণা আসে। বেলা সোয়া তিনটার দিকে হায়দরাবাদ হাউসে এ দুই নেতার মধ্যে আনুষ্ঠানিক বৈঠক শুরু হয়। বৈঠক শেষে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে গণমাধ্যমের সামনে বক্তব্য তুলে ধরেন বারাক ওবামা ও নরেন্দ্র মোদি। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভি অনলাইনের।

সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেন, আমরা একটি সমঝোতায় পৌঁছেছি এবং বেসামরিক পারমাণবিক জ্বালানি চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের দিকে অগ্রসর হচ্ছি। যৌথ সংবাদ সম্মেলনেও বিষয়টি উল্লেখ করেন ওবামা।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকের পর ওবামা বলেন, আমাদের সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিতে বেসামরিক পারমাণবিক সহযোগিতা একটি পদক্ষেপ মাত্র।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ছয় বছর আগে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি স্বাক্ষরের পর আমরা এখন বাণিজ্যিক সম্পর্ক টেকসই করতে অগ্রসর হচ্ছি। যৌথ সংবাদ সম্মেলনে নরেন্দ্র মোদি বলেন, এটা একটা প্রকৃতিগত বৈশ্বিক অংশীদারিত্ব। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও এ সময় উপস্থিত ছিলেন। মোদি এ সময় মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ‘বারাক’ বলে সম্বোধন করেন।

মোদি বলেন, ইন্দো-মার্কিন পারমাণবিক চুক্তির বাণিজ্যিক সহযোগিতার দিকে অগ্রসর হচ্ছে ভারত ও যুক্তরাষ্ট্র। তিনি বলেন, ইন্দো-মার্কিন সম্পর্কের কেন্দ্রবিন্দু ছিল বেসামরিক পারমাণবিক চুক্তি। ২০০৮ সালে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ঐতিহাসিক বেসামরিক পারমাণবিক সহযোগিতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পর বক্তব্য দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি ‘নমস্তে’ বলে বক্তব্য শুরু করেন। এরপর তিনি হিন্দিতে বলেন, ‘মেরা পেয়ার ভারা নমস্কার’। তিনি চা চক্রে আলাপের জন্য (চাই পে চর্চা) মোদিকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, হোয়াইট হাউসে এ ধরনের আরও আলোচনা প্রয়োজন। এর আগে এ দুই নেতা দিল্লীর হায়দরাবাদ হাউসের লনে এক সঙ্গে হেঁটে হেঁটে গভীর আলাপ করেন। এরপর তারা চা খেতে বসেন। এ সময় মোদি ওবামার কাপে চা ঢেলে দেন। পরে ওবামা ও মোদি ছয় বছর ধরে অচলাবস্থায় থাকা পারমাণবিক চুক্তির বিষয়ে আলোচনা করেন।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে রবিবার সকালে তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ভারত পৌঁছান বারাক ওবামা। এ সফরে ওবামার সঙ্গে ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামাও আছেন। এ সফরকে কেন্দ্র করে দিল্লীজুড়ে নেয়া হয়েছে অভূতপূর্ব নিরাপত্তা।

২১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে বারাক ওবামাকে রাষ্ট্রপতি ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাগত জানানো হয়। সেখানে তিনি রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ইন্ডিয়ান এয়ারফোর্সের উইং কমান্ডার পুজা ঠাকুরের নেতৃত্বে একটি চৌকস দল ওবামাকে গার্ড অব অনার প্রদান করে। এ ব্যাপারে এক প্রতিক্রিয়ায় ওবামা বলেন, অসাধারণ আতিথেয়তায় আমি মুগ্ধ ও কৃতজ্ঞ। ভারতে আসাটা একটা বিরাট সম্মানের বিষয়। বিকেলে তিনি রাজঘাটে মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় তিনি সেখানে একটি গাছের চারা রোপণ করেন। ভারতে অভ্যর্থনার বিষয়ে ওবামা বলেন, এটার সঙ্গে সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়া সত্যিই কঠিন। তিনি রাষ্ট্রপতি ভবনে রবিবার রাতে প্রণব মুখার্জির দেয়া রাষ্ট্রীয় ভোজসভায় অংশ নেন। এতে ২৫০ জন অতিথিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

আজ সোমবার ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের কুচকাওয়াজে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ওবামা। কোন মার্কিন প্রেসিডেন্ট এই প্রথম ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে থাকছেন।

চলুন একসঙ্গে চলি ॥ হিন্দী ভাষায় ‘চলে সাথ সাথ’ (আসুন একসঙ্গে চলি) বলার মধ্য দিয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে যৌথ সংবাদ সম্মেলন শেষ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

দুজনের এ একসঙ্গে চলা সম্পর্কে মোদি বলেন, “বারাক এবং আমি বন্ধু। আমরা ফোনে কথা বলি, কৌতুক করি। আমাদের বন্ধুত্বই আমাদের দেশ ও জনগণকে একে অপরের কাছে নিয়ে এসেছে।”

আলোচনায় পরমাণু চুক্তির পথে বাধা দূর করে বেসামরিক পরমাণু বাণিজ্য চুক্তি সই করতে পেরেছেন দুই নেতা। পরমাণু উপকরণ সরবরাহ এবং পরমাণু দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে সরবরাহকারীদের দায়বদ্ধতার বিষয়টি নিয়ে দুপক্ষের মতপার্থক্য দূর হয়েছে বলে জানিয়েছে এনডিটিভি।

পরবর্তীতে একটি যৌথ প্রেস ব্রিফিংয়ে পারমাণু চুক্তির বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেবেন ওবামা ও মোদি। ওবামা এরই মধ্যে উল্লেখযোগ্য এ অগ্রগতির কথা জানিয়ে বলেছেন, দু’দেশ বেসামরিক পরমাণু জ্বালানি চুক্তি পুরোপুরি বাস্তবায়নের পথেই এগুচ্ছে।

পরমাণু চুক্তি ছাড়াও কয়েকটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি সই করেছেন ওবামা ও মোদি। এর মধ্যে রয়েছে জলবায়ু, নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও প্রতিরক্ষাবিষয়ক কিছু চুক্তি।

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে সদস্যপদের জন্যও ভারতকে সমর্থন দিয়েছেন ওবামা। তিনি বলেন, শান্তিরক্ষায় নেতৃস্থানীয় দেশ হিসেবে ভারতের ভূমিকাকে যুক্তরাষ্ট্র স্বাগত জানায়।

রবিবার সকাল ১০টায় সস্ত্রীক তিনদিনের সফরে ভারতে যান ওবামা। ২১টি তোপধ্বনি দিয়ে স্বাগত জানানো হয় তাঁকে। দেয়া হয় গার্ড অব অনার।

সোমবার দিল্লীর রাজপথে আয়োজিত ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হবেন। পরে রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রেসিডেন্ট প্রণবের পারিবারিক সংবর্ধনায় যোগ দেবেন।

বিকেলে ওবামা ও মোদি যুক্তরাষ্ট্র-ভারত ব্যবসায়িক সম্মেলনে উপস্থিত থাকবেন ও ভাষণ দেবেন।

প্রয়াত সৌদি বাদশা আবদুল্লাহর প্রতি শ্রদ্ধা ও নতুন বাদশা সালমানের সঙ্গে সাক্ষাত করতে ভারত সফর কিছুটা সংক্ষিপ্ত করে ওবামা সৌদি আরবে যাবেন।

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী ২০১৫

২৬/০১/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: